প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

তালতলীতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খানাখন্দ সড়ক দিয়ে যেতে হবে প্রধানমন্ত্রীর জনসভায়

মোঃ জয়নুল আবেদীন,আমতলী (বরগুনা): প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার তালতলীতে আগমনের বার্তা বরগুনা এলজিইডি কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছেনি। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে খানাখন্দ সড়ক দিয়ে কয়েক লক্ষ লোকের তালতলী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে জনসভা স্থানে পৌঁছতে হবে। দ্রুত আমতলী-তালতলী আঞ্চলিক সড়কের তারিকাটা মাদ্রাসা থেকে কচুপাত্রা সেতু পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক সংস্কার না হলে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে এমনটাই আশঙ্কা করেছেন এলাকাবাসী।

জানাগেছে, আমতলী-তালতলীর ফকিরহাট পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার আঞ্চলিক সড়ক। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন আমতলী-তালতলীর অর্ধলক্ষ লোক যাতায়াত করে। ওই সড়কের তারিকাটা মাদ্রাসা থেকে কচুপাত্রা সেতু পর্যন্ত দুই কিলোমিটার খানাখন্দে ভরপুর। প্রতি ২০/৩০ গজ দুরত্বে রয়েছে বড় বড় খানাখন্দ। ওই খানাখন্দ দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে মানুষের যাতায়াত করতে হয়। এদিকে আগামী ২৭ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তালতলী মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আয়োজিত জনসভায় অংশগ্রহন করবেন। ওই জনসভায় কয়েক লক্ষ লোক জমায়েত হবে বলে জানান বরগুনা জেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. গোলাম সরোয়ার টুকু। কয়েক লক্ষ লোকের জনসভায় যাওয়ার একমাত্র পথ আমতলী-তালতলী সড়ক। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওই জনসভায় যেতে হবে। দ্রুত সড়কের ওই দুই কিলোমিটারের খানাখন্দ সংস্কার না হলে ঘটে যেতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা এমনটাই আশঙ্কা করেছেন এলাকাবাসী ও সড়কে চলাচলকারী গাড়ীর চালকরা।

আজ বুধবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, সড়কের তারিকাটা মাদ্রাসা থেকে কচুপাত্রা সেতু পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক। ওই সড়কের প্রতি ২০/৩০ গজ দুরত্বে রয়েছে বড় বড় খানাখন্দ। খানাখন্দ দিয়ে গাড়ী চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে। সড়কের পাথরের সুরকি বের হয়ে মাটি উঠে গেছে। খানাখন্দের গর্তে গাড়ীর চাকা ফেঁসে যাচ্ছে।

তারিকাটা এলাকার আবদুল জলিল, নশা হাওলাদার, মোশাররফ হোসেন, খবির উদ্দিন, শহীদুল ইসলাম ও হুমায়ূন কবির হাওলাদার জানান, গত দু’বছর ধরে সড়ক খানাখন্দে ভরে গেছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের লোকজন দেখেও সংস্কারের কোন উদ্যোগ নিচ্ছেন না। তারা আরও জানান, তালতলী প্রধানমন্ত্রীর জনসভার স্থানে এ সড়ক দিয়েই লোকজনের যেতে হবে। দ্রুত এ সড়ক সংস্কার করা না হলে বড় ধরনের দূর্ঘটনা ঘটতে পারে। জনসভায় মানুষের নির্বিঘ্নে যাতায়াতের জন্য দ্রুত সংস্কারের দাবী জানাই।

বাস গাড়ী চালক মজিবুর রহমান, শানু হাওলাদার ও আবদুস সালাম জানান, প্রধানমন্ত্রীর তালতলী মাঠের জনসভায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ সড়ক দিয়ে যেতে হবে। দ্রুত সড়কটি সংস্কার করা না হলে জনসভায় লোকজন যেতে বিঘ্ন সৃষ্টি হবে।

আমতলী উপজেলা প্রকৌশলী মো. নজরুল ইসলাম বলেন, “এ সড়কের দরপত্র আহবান করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর জনসভায় এ সড়ক দিয়ে লক্ষ লক্ষ লোকের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করতে হবে।”

জনসভায় যাতায়াতের সুবিধার জন্য দ্রুত সড়ক সংস্কার করবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “বরগুনা নির্বাহী প্রকেীশলীর কাছে যোগাযোগ করে দেখেন সংস্কার করবেন কিনা?”

বরগুনা নির্বাহী প্রকৌশলী মো. কবির হোসেন বলেন, “দু’এক দিনে মধ্যে ওই সড়কের খানাখন্দ অংশটুকু সংস্কার করা হবে।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ