প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আমাদের ঐক্য সরকারের জন্য আতঙ্ক

মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল : আমাদের ভাষ্য একেবারেই পরিস্কার। বেগম খালেদা জিয়া যে বৃহত্তর ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছিলেন, সেই দিকই এখন গোটা দেশ এগুচ্ছে। সমস্ত গণতান্ত্রিক শক্তি অর্থাৎ বামদের গণতান্ত্রিক যারা আছেন তারা সকলেই সমাবেশে এসেছেন। তার অর্থ হচ্ছে শাসকগোষ্ঠি বাদে বাকি সবাই ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। সরকারের পক্ষ থেকে যেটি বলা হচ্ছে যে, সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। সরকার পতনের জন্য অগণতান্ত্রিক পন্থায় এগুনো হচ্ছে।  এটি একটি সাম্প্রদায়িক জোট। শাসক দল এবং শাসক গোষ্ঠি বাদে বাকি সবাই এই ঐক্যের সাথে একমত পোষণ করেছে। সরকারের এই কথাগুলো হচ্ছে তাদের ভেতরের আতঙ্কের প্রতিফলন।

তার কারণ হচ্ছে, আমরা যাই করছি তা সকলের সামনেই করছি এবং নির্বাচন বয়কট ও নির্বাচন ভঙ্গ করার কোনো ইচ্ছে আমাদের নেই। আমাদের শর্ত দেওয়ার কারণ হচ্ছে আমরা নির্বাচনের অংশগ্রহণ করতে চাই। নির্বাচন বানচাল করার  ইচ্ছে থাকলে আমরা চুপিসারে কাজ করে যেতাম এবং ষড়যন্ত্র করতাম।  আমাদের ঐক্য গঠন নিয়ে বর্তমান সরকারের পক্ষ থেকে যে কথাগুলো বলা হচ্ছে তা তাদের জন্য আতঙ্কের বহিপ্রকাশ। আওয়ামী লীগ দলীয়ভাবে আতঙ্কিত। জাতীয় ঐক্যে আমরা আওয়ামী লীগকে চেয়েছি এবং তাদের কথা বার বার বলেছি, এখনো বলছি।

তারা এখনো সংলাপে বসে নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করে, তাদেরকে আমরা স্বাগত জানাই। কিন্তু যদি তারা সংলাপ করতে না আসে, তাহলে তাদের বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হবেনা কেন? আওয়ামী লীগ যে বলে তাদের বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হবেনা, আমি বলবো তাদের এটি খামখেয়ালী কথা। তাদের এ ধারণা সঠিক নয়। কারণ বাংলাদেশের অতীত ইতিহাস রয়েছে যে, শাসক গোষ্ঠী জনগণের স্বার্থের বিপক্ষে দাঁড়ালে তাদের বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য করতে হয়। সুতরাং আমরা আবারো বলবো, গত দিনের আহ্বানে  সাড়া দিয়ে আমাদের সাথে সংলাপে বসলেই আওয়মী লীগকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য গঠন করা হবে।

পরিচিতি : যুগ্ম মহাসচিব, বিএনপি/মতামত গ্রহণ : ফাহিম আহমাদ বিজয়/সম্পাদনা : তাওসিফ মাইমুন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত