প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সৌন্দর্য চর্চায় মধুর ব্যবহার!

ডেস্ক রিপোর্ট : সেই প্রাচীনকাল থেকে মধু নানা চিকিৎসা বিদ্যায় ব্যবহার হয়ে আসছে। মধুর প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান মধুকে প্রাকৃতিক ঔষধিতে পরিণত করেছে। দৈনন্দিন জীবনে তাই মধুর ব্যবহারের সীমা নেই। মধুর অনেক ব্যবহার সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানি না। সৌন্দর্য চর্চার খাতিরে কত অর্থই ব্যয় করে সবাই। তবে সঠিক পদ্ধতি জানা থাকলে আপনি নিজেই সমাধান করে ফেলতে পারবেন সকল সৌন্দর্য সমস্যা। প্রকৃতির এই অনন্য উপাদানটি কখনও নষ্ট হয় না। এই এক মধু আপনার চুল ও ত্বক সুন্দর করে তোলা থেকে শুরু করে আপনার ওজন কমানো পর্যন্ত অনেক কাজেই লাগবে। জেনে নেয়া যাক সৌন্দর্য চর্চায় মধুর অসাধারণ ব্যবহার সম্পর্কে।

সাধারণ ফেসওয়াশের পরিবর্তে ব্যবহার করতে পারেন মধু অনায়েসেই। মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান ত্বকের ব্রণ কমায় এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ত্বকের দাগ দূর করে। এছাড়াও প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজার মধু ত্বকের কোমলতা বাড়ায়। মধু খুব ভালো প্রাকৃতিক ক্লিনজার হিসেবে কাজ করে। ত্বককে ভেতর থেকে ময়লা বের করে ও মরা কোষ দূর করে ত্বক স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে। মধু দিয়ে নিয়মিত মুখ পরিষ্কার করলে ত্বক হবে দাগহীন ও সুন্দর। এক চামচ মধু ও এক চামচ উপটান মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখে কিছুক্ষণ ম্যাসেজ করে ধুয়ে ফেলুন। মধুতে থাকা বিভিন্ন উপকারী উপাদান ত্বকের কোষ পুনর্গঠনে সাহায্য করে, ত্বক টানটান রাখে। তাই প্রতিদিন এক চামচ মধু খাওয়া ভালো।

ঠাণ্ডা সর্দি যদি একেবারেই দূর না হতে চায় এবং কাশির সমস্যা চলতেই থাকে তাহলে প্রতিদিন ১/৪ কাপ কুসুম গরম পানিতে ২ টেবিল চামচ মধু এবং অর্ধেকটা লেবুর রস চিপে পান করুন। অনেকটা উপশম হবে।

আপনার কি প্রায় প্রতিদিনই রাত ২ -৪ টার মধ্যে ঘুম ভেঙে যায় অথবা ৪ টার আগে ঘুমাতেই পারেন না? তাহলে বিছানার পাশে ছোট একটি বোতলে মধুর সাথে সামান্য লবণ মিশিয়ে রাখুন। এবং ঘুমের সমস্যা হলেই জিহ্বাইয় ২-৩ ফোঁটা লবণাক্ত মধু দিন। ব্যস, দ্রুত ঘুম চলে আসবে। গবেষণায় দেখা যায় এই পদ্ধতি ঘুমের উদ্রেককারী হরমোনের নিঃসরণ ঘটায়।

ছোটোখাটো পোড়া এবং কাটাছেড়া নিরাময়ে হাতে তেল ছিটে এলে অনেকেই ডিমের সাদা অংশ বা টুথপেস্ট লাগিয়ে থাকেন। আজ থেকে মধু লাগানোর অভ্যাস করুন। মধুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও নিরাময় ক্ষমতা ত্বকের কোনো ক্ষতি ছাড়াই ক্ষত দূর করবে এবং এর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান ইনফেকশনকেও দূরে রাখবে।

মুখের দাগ দূর করতে মধু, আমন্ড অয়েল, গুঁড়ো দুধ এবং লেবুর রস পরিমাণ মতো মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। ব্রণ বা রোদে পোড়া দাগ দূর করতে কার্যকর। লিপবাম হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন মধু। এক চামচ আমন্ড অয়েল এবং এক চামচ মধু মিশিয়ে রেখে দিন। ঠোঁট ফাটা রোধ করবে এবং সতেজতা ঠিক থাকবে।

যারা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যায় ভুগছেন তারা প্রতিদিন সকালে ১ গ্লাস কুসুম গরম পানিতে ১ টেবিল চামচ মধু মিশিয়ে পানের অভ্যাস করে নিন। অনেকাংশেই দূর হয়ে যাবে সমস্যা।

চুলের যত্নে মধুর তুলনা নেই। মাথার ত্বক ময়েসচারাইজ করে চুলের নানা সমস্যা দূর করতে মধু সবচাইতে ভালো প্রাকৃতিক উপাদান। শুধুমাত্র মধু চুলের গোঁড়ায় এবং পুরো চুলে ম্যাসেজ করে নিন। এতে চুল আরও বেশি ঝলমলে হয়ে উঠবে। চুলের ফ্রিজি ভাব দূর করতেও সিল্কি রাখতে শ্যাম্পু করার পর কন্ডিশনারের সঙ্গে এক চামচ মধু মিশিয়ে চুলের নিচের অংশে ভালোভাবে লাগিয়ে কিছুক্ষণ পর ধুয়ে ফেলুন। চাইলে কন্ডিশনারের বোতলে পরিমাণমতো মধু মিশিয়ে রেখে দিতে পারেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ