প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দেশে আইন আছে প্রয়োগটা কতটুকু আছে সেটা দেখার বিষয় : শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন

খন্দকার আলমগীর হোসাইন : দেশে আইন আছে কিন্তু আইনের প্রয়োগটা কতটুকু আছে সেটা দেখার বিষয়। যারা উচ্চবিত্ত, যাদের অর্থসম্পদ আছে, যাদের পলিটিক্যাল পাওয়ার আছে, তাদের জন্য আইন ভাঙ্গা কোনো ব্যাপারই না। তাদেরকে পাহারা দিয়ে সারারাত গানবাজনার ব্যাবস্থা করে দিচ্ছে। এটিই হচ্ছে বাস্তব সত্য। আমরা সবাই এর থেকে আমাদের উত্তরণের পথ খুঁজি। প্রকৃতপক্ষে, আমাদের যে ৩২টি টিভি চ্যানেল আছে তারা প্রতিমুহুর্তে এই বিষয়গুলো নিয়ে নিউজ করছে।

এক্ষেত্রে আমাদের সমাজে জনমত তৈরী হয়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। আর অন্যদিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকেও বুঝতে হবে তাদেরকে নাগরিক সেবা দেওয়ার জন্যই রাখা হয়েছে। তাদেরই দায়িত্ব এগুলো দেখবাল করার। উচ্চশব্দে গান বাজনা বাজানোর প্রতিবাদ করায় প্রতিবেশীকে হত্যা নিয়ে আলাপকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক শেখ হাফিজুর রহমান কার্জন আমাদের অর্থনীতিকে এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, প্রতিটি রেসিডেন্সিয়াল এলাকায় গেলে দেখা যায়, সেখানে বড় বড় হোটেল হয়ে গেছে, সেখানে মদের আসর বসে, নারী নিয়ে ডিজে পার্টিসহ কত রকমের অপকর্ম হচ্ছে। আমরা টেলিভিশন গুলোতে নানা ধরনের ক্রাইম রিপোর্ট দেখে থাকি। আমরা দেখি, পাঁচ তারাকা হোটেলগুলোতে হঠাৎ করে একটা তরুনীর লাশ পড়ে আছে, তখন আমাদের টনক নরে। কিন্তু আগে থেকে যে নিরাপত্তা প্রদান তা আমাদের আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী করতে পারছে না।

তিনি বলেন, আমরা আইন জানি না এটাতো আমাদের অজ্ঞতা আবার আইন আছে জানার পরও আমরা মানছি না সঠিকভাবে। প্রত্যেকটা অবস্থাপূর্ণ পরিবারের যে বিয়ের অনুষ্ঠান হয়, তা ক্লাব বা কমিনিউটি সেন্টার ছাড়া বাসা-বাড়িতে হওয়া একবারেই ঠিক না। কিন্তু এই ব্যাপারগুলো আমাদের সমাজে কমন হয়ে গেছে। কেউই খেয়াল করছি না, তাদের পাশের ফ্ল্যাটের ছেলেটি পরীক্ষা দিতে পারে, অথবা কেউ অসুস্থ থাকতে পারে, অথবা কারো কারো আগে ঘুমানোর অভ্যাস থাকতে পারে। আবার এই ধরনের সমস্যা নিয়ে প্রতিবেশীরা কোনো প্রতিবাদও করছেন না। কারণ তারা জানে, প্রতিবাদ করে কোনো প্রতিকার পাওয়া যাবে না।

সম্পাদনা : মারুফ হাসান নাসিম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত