শিরোনাম
◈ গাজায় যুদ্ধবিরতি হলেও হিজবুল্লাহর বিরুদ্ধে হামলা বন্ধ হবে না:ইসরায়েল ◈ চার মাসের মধ্যেই প্রাথমিকে ১০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ ◈ পিলখানা হত্যাকাণ্ডের দিবসটির গুরুত্ব বাড়াতে সরকার কার্যকর উদ্যোগ নেবেন, আশা জি এম কাদেরের ◈ সরকার সংবাদপত্রের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করে না: আইনমন্ত্রী ◈ ফিলিস্তিনের বিপক্ষে অপতথ্য ছড়ানো প্রতিরোধে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী ◈ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির তদন্ত প্রতিবেদন পেছাল ◈ গাজায় যুদ্ধ নয়, গণহত্যা চলছে ইসরায়েল: লুলা দা সিলভা ◈ গ্রামীণ টেলিকমসহ তার প্রতিষ্ঠানগুলোর লভ্যাংশ কাউকে দেয়া যায় না: ড. ইউনূস   ◈ মুখ খুলে মানুষ গণতন্ত্রের কথা বলতে পারছে না: ড. ইউনূস  ◈ স্বাস্থ্যসেবা বিকেন্দ্রীকরণ শুরু হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৪:১১ দুপুর
আপডেট : ২৩ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৪:১১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

জমি কিনে বিপাকে ৩৫ পরিবার

নাটোর সদর উপজেলার ফুলসর গ্রাম

নিউজ ডেস্ক: নাটোর সদর উপজেলার ফুলসর গ্রামে জমি কিনেও ভিটেমাটি হারাতে বসেছেন প্রায় ৩৫টি পরিবার। এসব পরিবারের ৫০ বছর আগে কেনা প্রায় ৪৫ বিঘা জমি জমি দখলে নিয়ে ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন। আর টিভি 

রোববার (২২ জানুয়ারি) দুপুরে এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন শতাধিক গ্রামবাসী ও জমির মালিকরা। সংবাদ সম্মেলনে প্রশাসনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন গ্রামবাসীরা। তাদের দাবি, তথ্য গোপন এবং জমি খাস খতিয়ানভুক্তের বিষয়টি তারা জানতেন না। প্রায় ৫০ বছরে সরকার কখনো এসব জমির মালিকানা দাবি করেননি। এখন ফুলসর গ্রামের মানুষেরা ভিটেমাটি হারানোর শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছেন। অন্যদিকে প্রশাসন বলছে, ১৯৭৮ সালে এসব জমি সরকারের নামে খাস খতিয়ানভুক্ত হয়।

ফুলসর গ্রামে রাস্তার পাশে সিমেন্ট ও রডের স্তূপ। পাশের একটি খোলা জায়গায় একদল শ্রমিক পাকাঘর নির্মাণ করছেন। আর নাটোর সদরের এসি ল্যান্ড জুবায়ের হাবিবের নির্দেশে, রাস্তার পাশের জমির প্রায় ৩০টি বড় আমগাছ কেটে ফেলা হয়েছে জানায় গ্রামবাসীরা।

সংবাদ সম্মেলনে বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাজাহান আলী মিয়া, ভিটেমাটি হারানো শরবানু বেওয়া, লিয়াকত হোসেন, নজরুল ইসলাম, আনোয়ার হোসেন, অছির উদ্দিন ও ময়েন উদ্দিনসহ অনেকেই বক্তব্য রাখেন।

শাজাহান আলী মিয়া বলেন, ফুলসর মৌজার ৬ নম্বর খতিয়ানের প্রায় ৪০ থেকে ৫০ বিঘা জমির হাল খতিয়ানের (আরএস রেকর্ড) মালিক ছিলেন অপর্ণা দেবী। তিনি ওই জমি আব্দুল লতিফ, আব্দুল হাই ও আব্দুল রউফের কাছে বিক্রি করেন। তাদের কাছ থেকে জমি কিনে গ্রামে স্থায়ীভাবে বসবাস ও চাষাবাদ শুরু করে ৩৫ পরিবার। ৫০ বছর ধরে তারা ওই জমি ভোগদখল করছেন। অনেকে বসবাসের জন্য পাকাবাড়ি ও ফলের বাগান করেছেন।

নাটোর সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. জুবায়ের হাবিব বলেন, তৎকালীন রাষ্ট্রপতির ১৯৭২/৯৮ নম্বর আদেশে ১০০ বিঘার অতিরিক্ত জমি রাষ্ট্রের অনুকূলে হস্তান্তরের নির্দেশ দেওয়া হয়। নির্দেশ অনুযায়ী, ফুলসর গ্রামের অপর্ণা দেবীর স্বামী কালিচন্দ্র চক্রবর্তী তার পরিবারের ১০০ বিঘার অতিরিক্ত ৩৬ একর জমি রাষ্ট্রের অনুকূলে ফিরিয়ে দেন।  ১৯৭৮ সালের ২২ জুলাই ওই জমি সরকারের নামে খাস খতিয়ানভুক্ত করা হয়। এখন রাষ্ট্রের প্রয়োজনে সরকার এসব জমিতে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে ভুক্তভোগীরা আদালতে মামলা করেছেন। আমরা আদালতের সিদ্ধান্তের বাইরে কিছুই করব না।

এসএ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়