শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ০২:২২ দুপুর
আপডেট : ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ০২:২২ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

কোচ এনরিকের হাত ধরে কাতার বিশ্বকাপ জিততে চায় স্পেন

কোচ এনরিক

স্পোর্টস ডেস্ক : খুব বড় কোনো তারকা নেই। নেই কোনো গোল মেশিন। তবে দলে আছেন এই মুহূর্তে বিশ্ব ফুটবলের সেরা প্রতিভাদের কয়েকজন। খেলছেন নজর কাড়া ফুটবল। রক্ষণ, মাঝমাঠ ও আক্রমণে অভাব নেই বৈচিত্র্যের। তার এক সুতোয় গাঁথার জন্য আছেন লুইস এনরিকে। ক্লাব ফুটবলে সাফল্যের ভেলায় চেপে এসেছেন জাতীয় দলের দায়িত্বে। তার হাত ধরেই বিশ্ব মঞ্চে বিজয় নিশান উড়াতে চায় স্পেন।    

সাম্প্রতিক সময়ে তেমন কিছু জেতেনি তারা। সবশেষ শিরোপা জিতেছিল সেই ২০১২ সালে। স্পেনকে নিয়ে অনেকেরই বড় স্বপ্ন দেখার মূল কারণ- সম্ভাবনা। রোমাঞ্চকর সব ফুটবলারে ঠাসা দলটির সেরাটা দেখা হয়তো এখনও বাকি। এই সম্ভাবনার জন্যই মূলত ফেভারিটদের মধ্যে আছে স্পেন। -বিডিনিউজ 

সাম্প্রতিক সময়ে দলটি যেভাবে স্কোয়াড সাজিয়েছে তাতে এটা মোটামুটি নিশ্চিত, প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ পাচ্ছেন বেশ কয়েক জন। তাদের মতো একটি প্রথমের স্বাদ পাচ্ছেন এনরিকেও। কোচ হিসেবে এবারই প্রথম বিশ্ব আসরে যাচ্ছেন তিনি, এর আগে খেলোয়াড় হিসেবে স্পেনের প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনটি আসরে।

বিশ্বকাপ মানে কি খুব ভালো করেই জানা এনরিকের। জানেন এই টুর্নামেন্টে শিরোপা জেতা কতটা কঠিন। তবে নিজের দলে সেই সামর্থ্য দেখেন ৫২ বছর বয়সী এই কোচ।

আমি বিশ্বাস করি, আমার দলটি বিশ্বকাপে শেষ পর্যন্ত যেতে সক্ষম। (শিরোপা স্বপ্নে) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে এবং দল হিসেবে কঠিন প্রতিপক্ষ হওয়ার লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে চাই আমরা। 

এনরিকের কোচিং ও দলের সামর্থ্য নিয়ে দারুণ আশাবাদী অধিনায়ক সের্হিও বুসকেতস। সম্প্রতি ফিফাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নিজেদের দল নিয়ে আশার কথা শোনান বার্সেলোনার অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার।  

আমাদের সবসময় বড় প্রত্যাশা থাকে। কারণ, স্প্যানিশ সমর্থকরা সবসময় আমাদের সেরা হওয়ার প্রত্যাশা করে। এমনই হওয়া উচিত বলে আমি মনে করি। আমি নিশ্চিত, প্রতিপক্ষরা আমাদের সম্মান করবে এবং সমর্থকরা আমাদের সমর্থন করবে। আশা করি, আমরা আমাদের ধরন অনুযায়ী খেলতে পারব, যা আমাদের এ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। বিশ্বাস করি, আমরা সবার প্রত্যাশা পূরণ করতে পারব।

স্পেনের বর্তমান দলে ২০১০ বিশ্বকাপজয়ী দলের একমাত্র সদস্য হিসেবে আছেন সার্জিও বুসকেতস। দলের স্বার্থে অভিজ্ঞতার তুলনায় শুরু থেকেই তারুণ্যকে প্রাধান্য দিয়ে আসছেন এনরিকে। তাতে তিনি বাদ দিতে পিছপা হননি স্পেনের হয়ে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলা ও বিশ্বকাপজয়ী তারকা ডিফেন্ডার সার্জিও রামোসকেও।

তবে পেদ্রি, আনসু ফাতি, গাভিদের মতো তরুণদের কাঁধে সবসময় আস্থার হাত রেখেছেন এনরিকে। সমালোচনার মুখে তাদের আগলে রেখেছেন অভিভাবকের মতো। এর প্রতিদানও তিনি পাচ্ছেন। সময়ের পরিক্রমায় এই তরুণরা হয়ে উঠেছেন দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। বিশ্বসেরার মঞ্চে দলটির ভাগ্য গড়ে দেওয়ার কারিগরও হতে পারেন তারাই। সম্পাদনা: এল আর বাদল

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়