শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৬ অক্টোবর, ২০২২, ১২:১৬ রাত
আপডেট : ০৭ অক্টোবর, ২০২২, ০৪:৪৭ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বাংলাদেশি ছেলের সঙ্গে উলফা নেতা অনুপ চেটিয়ার মেয়ের বিয়ে

অনুপ চেটিয়া এবং তার মেয়ে বন্যা বড়ুয়া।

মাছুম বিল্লাহ: বাংলাদেশি ছেলের সঙ্গে মেয়ে বন্যা বড়ুয়াকে (২৭) বিয়ে দিচ্ছেন উত্তর-পূর্ব ভারতের আসাম রাজ্যের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক অনুপ চেটিয়া। বর অনির্বান চৌধুরীর (৩০) বাড়ি কুমিল্লা। বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে বসবাস করেন। আগামী ২৫ নভেম্বর মেলবোর্নের ইসকন মন্দিরে এই বিয়ে সম্পন্ন হবে।

অনুপ চেটিয়া আমাদের নতুন সময়কে মুঠোফোনে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেছেন, আপনাদের মাধ্যমে বাংলাদেশের মানুষের কাছে নব দম্পতির জন্য দোয়া চাই।

বাংলাদেশি ছেলের সঙ্গে কেন মেয়ে দিচ্ছেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে অনুপ চেটিয়া বলেন, ঢাকার ধানমন্ডির মাস্টার মাইন্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে পড়ার সময় তাদের দুজনের পরিচয় হয়। এরপর তাদের মধ্যে একটা সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ কারণে আমরা বিয়েতে মত দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমি দীর্ঘ ২৮ বছর বাংলাদেশে অবস্থান করেছি। বাংলাদেশের মানুষের আতিথেয়তা ও ভালোবাসা পেয়েছি। এ জন্য বাংলাদেশের মানুষের প্রতি দুর্বলতা কাজ করে। সেটাও এই বিয়েতে রাজি হওয়ার একটা কারণ। 

বাংলাদেশে আসার কোনো পরিকল্পনা আছে কি না- এমন প্রশ্নের উত্তরে উলফার এই শীর্ষনেতা বলেন, বাংলাদেশে যখন ছিলাম তখন লুকিয়ে পরিচয় গোপন করে ছিলাম। বাকি সময় জেলে ছিলাম। এবার বৈধভাবে সবাইকে জানিয়ে যেতে চাই। কিন্তু আমার যাওয়া ভারত ও বাংলাদেশ সরকার- কেউই ভালোভাবে দেখবে না। তবে আত্মীয়তা হয়ে গেলে একবার যাবো। সেখানে অনেক বন্ধু রয়েছে, তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের ভীষণ ইচ্ছা আছে।

ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের স্বাধীনতার লক্ষ্যে তিন দশক ধরে সশস্ত্র তৎপরতা চালানো ইউনাটেড লিবারেশন ফ্রন্ট অব আসাম-উলফার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক অনুপ চেটিয়া ওরফে গোলাপ বড়ুয়া। ১৯৯৭ সালের ২১ ডিসেম্বর ঢাকার মোহাম্মদপুর এলাকার একটি বাসা থেকে অনুপ চেটিয়াকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর তার বিরুদ্ধে অবৈধভাবে বাংলাদেশে অবস্থান এবং অবৈধভাবে বিদেশি মুদ্রা ও একটি স্যাটেলাইট ফোন রাখার অভিযোগে তিনটি মামলা হয়। আদালত তিনটি মামলায় তাকে যথাক্রমে তিন, চার ও সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেন। একসঙ্গে তিন মামলার সাজা কার্যকর হওয়ায় সাত বছর পরই ২০০৪ সালে তাঁর সাজার মেয়াদ শেষ হয়। কিন্তু তারপর থেকে তিনি কারাগারে আটক ছিলেন। 

২০১৫ সালের ১২ নভেম্বর কাশিমপুর কারাগার থেকে তাকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করা হয়। বর্তমানে তিনি উলফার আলোচনাপন্থী দলের প্রধান হিসেবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে শান্তি আলোচনার নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অচিরেই শান্তি চুক্তি সম্পন্ন হবে বলে অনুপ চেটিয়া জানান। আরেকটি অংশ উলফা-স্বাধীনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন পরেশ বড়ুয়া। যিনি বর্তমানে চেয়ারপারসন ও কমান্ডার ইন চিফ হিসেবে সশস্ত্র আন্দোলন করছেন। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব

  • সর্বশেষ