শিরোনাম

প্রকাশিত : ১০ জুন, ২০২৩, ১০:০৩ রাত
আপডেট : ১০ জুন, ২০২৩, ১০:০৪ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

দিল্লি সফরের পর প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমলের দাবি 

নেপাল-ভারত সম্পর্ক নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সাম্প্রতিক দিল্লি সফর শেষে দেশে ফিরে নেপালের প্রধানমন্ত্রী পুষ্প কমল দাহাল বলেছেন, নেপাল ও ভারতের মধ্যে সম্পর্ককে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে সাম্প্রতিক চারদিনের দিল্লি সফর। খবর দ্য প্রিন্ট।

৩১ মে-৩ জুন পর্যন্ত ভারতে তার সফরসঙ্গী সম্পর্কে বুধবার নেপালের জাতীয় পরিষদের সভায় ভাষণ দিতে গিয়ে তিনি এই সফরের সময় হওয়া অগ্রগতি তুলে ধরেন। 

তিনি বলেন, ‘নেপাল ও ভারতের মধ্যে অনেক পুরনো এবং ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। আমার সফরটি দুই দেশের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ককে আরও গভীর করার দিকে মনোনিবেশ করেছি। অর্থনৈতিক ইস্যুতে ফোকাস করা হয়েছিল যা দীর্ঘ সময়ের জন্য জাতিকে উপকৃত করবে যেখানে রাজনৈতিক দিক থেকে, আগামী দিনে পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধি করে ক্রমবর্ধমান সমস্যাগুলি সমাধানের জন্য প্রগতিশীল আলোচনা অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি বলেন, ‘হায়দ্রাবাদ হাউসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে বৈঠকটি ছিল সবার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ। দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে বাণিজ্য, পরিবহন, বিনিয়োগ, বিদ্যুৎ বাণিজ্য এবং আন্তঃসীমান্ত সঞ্চালন লাইন, সেচ, জলাবদ্ধতা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা, কৃষি, আন্তঃসীমান্ত সংযোগ-রেলওয়ে, আইসিপি, সেতুর পাশাপাশি শুষ্ক বন্দর- এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। অবকাঠামোগত উন্নয়নের সাথে সম্পর্কিত প্রাথমিকভাবে ফোকাস করা হয়েছিল।’

নেপালের প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী মোদি নেপাল-ভারত সম্পর্ককে হিমালয়ের উচ্চতায় নিয়ে যাওয়ার কথাও বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী দাহাল পুনর্ব্যক্ত করেছেন যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে ভারতে তার চার দিনের সরকারি সফর দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে আরও সুসংহত করার উপর কেন্দ্রীভূত ছিল।’

দাহাল বলেন, ‘বাণিজ্য, ট্রানজিট, সেচ, কৃষি, আন্তঃসীমান্ত পেট্রোলিয়াম পাইপলাইন নির্মাণ, সমন্বিত চেকপোস্ট এবং অবকাঠামো উন্নয়নের বিষয়ে ইতিবাচক চুক্তি করা হয়েছে।’

তিনি সংসদকে আরও জানান, তার সাম্প্রতিক ভারত সফরে নেপাল ও ভারতের মধ্যে সাতটি কাগজপত্র স্বাক্ষরিত হয়েছে এবং বিনিময় হয়েছে।

ভারতের অভ্যন্তরীণ নৌপথের মাধ্যমে নেপালের ট্রানজিট সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে বলেও জানান নেপালের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, তার ভারত সফর নেপাল-ভারত সম্পর্ককে বহুমাত্রিক করতে এবং আরও শক্তিশালী করতে অবদান রেখেছে।

নেপাল-ভারত সীমান্ত এলাকায় বন্যা ও জলাবদ্ধতার সমস্যা সমাধানের বিষয়ে আলোচনা করেছেন উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী দাহাল বলেন, জিপি কৈরালা ইনস্টিটিউট অব হেলথ সায়েন্সে ভারতের সহায়তা এবং অনুদানে ঝুলাঘাটে একটি কংক্রিট সেতু নির্মাণের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সম্পাদনা: শামসুল হক বসুনিয়া

এমবি/এসএইচ/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়