শিরোনাম
◈ সংঘাতের পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে ◈ দেশজুড়ে সহিংসতার ঘটনায় অভিযান, গ্রেপ্তার ২৭৪৭ ◈ আজ বিদেশি কূটনীতিকরা ধ্বংসযজ্ঞ পরিদর্শনে যাবেন ◈ চলমান সংকটে রাজশাহীতে কৃষিখাতে দিনে ২০ কোটি টাকার ক্ষতি ◈ কারফিউ শিথিল সময়ে চলবে দূরপাল্লার বাস ◈ প্রাণহানি ও ধ্বংসাত্মক ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছে সম্পাদক পরিষদ ও নোয়াব ◈ ড. ইউনূস রাষ্ট্রদ্রোহী কাজ করেছেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বাংলাদেশের সহিংসতা বন্ধে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি জরুরি আহ্বান জানিয়েছেন ড. ইউনূস ◈ নরসিংদী কারাগার থেকে পালানো ১৩৬ কয়েদির আত্মসমর্পণ ◈ কতজন শিক্ষার্থী মারা গেছেন, জানতে সময় লাগবে: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত : ৩১ মার্চ, ২০২৩, ০৩:৫৪ দুপুর
আপডেট : ৩১ মার্চ, ২০২৩, ০৩:৫৪ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের ফেলে যাওয়া অস্ত্র ‘নিষিদ্ধ সংগঠন টিটিপি ও বেলুচদের হাতে’

আফগানিস্তান

ইমরুল শাহেদ: মার্কিন মদদপুষ্ট একটি সম্প্রচার মাধ্যম এই দাবি করেছে। পর্যবেক্ষকদের মতে, মার্কিন অস্ত্র নিষিদ্ধ ঘোষিত তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তান (টিটিপি) এবং বেলুচ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সামরিক শক্তি অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে। রেডিও ফ্রি ইউরোপ, রেডিও লিবার্টি

ডনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই অস্ত্রের কারণেই গত দুই বছর থেকে পাকিস্তানে সহিংসতা বেড়ে গেছে। 

২০২১ সালে যুক্তরাষ্ট্র যখন আফগানিস্তান ছেড়ে চলে যায়, তখন প্রায় সাত বিলিয়ন ডলারের সামরিক সরঞ্জামাদি ফেলে যায়। এর মধ্যে যুদ্ধাস্ত্র, যোগাযোগ গিয়ার ও সশস্ত্র যানও রয়েছে। এ সময় তালিবানরা এসব অস্ত্র হাতে পায়। 

রেডিওর প্রতিবেদনে বলা হয়, তালেবানদের আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর, কিছু মার্কিন সামরিক গিয়ার ও অস্ত্র পাকিস্তানের দিকে চলে গেছে। এসব অস্ত্র দিয়ে সশস্ত্র গ্রুপগুলো পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। 

টিটিপির খোঁজ-খবর রাখা সুইডেনভিত্তিক গবেষক আবদুল সাঈদ বলেছেন, সন্ত্রাসী গ্রুপগুলো অত্যাধুনিক অস্ত্র হাতে পাওয়ার পর সন্ত্রাস করতে সহজ হয়েছে, তাদের তুলনায় পাকিস্তানের পুলিশ বাহিনী কম অস্ত্রে সজ্জিত। 

রাজনৈতিক অরাজকতার মধ্যে, পাকিস্তানের জন্য একটি প্রধান বিষয় নিরাপত্তা সংকট। বর্তমানে, দেশটির সামরিক প্রতিষ্ঠানগুলো আফগানিস্তানের সীমান্তে সন্ত্রাসী আস্তানাগুলি ধ্বংস করতে লড়াই করছে।   

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়