শিরোনাম
◈ ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে কয়েক ডজন ড্রোন ছুড়েছে ইরান ◈ বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ◈ চার বছর পর বিধিনিষেধহীন মুক্ত পরিবেশে পহেলা বৈশাখ ◈ পহেলা বৈশাখে ইলিশের দাম চড়া ◈ নববর্ষ ১৪৩১ বঙ্গাব্দকে বরণে বর্ণাঢ্য র‌্যালি করবে আওয়ামী লীগ ◈ নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে: প্রধানমন্ত্রী ◈ নতুন বছর মানে ব্যর্থতা পেছনে ফেলে সমৃদ্ধ আগামী নির্মাণ করা: মির্জা ফখরুল ◈ ইসরায়েলের তেল আবিব থেকে সরাসরি ঢাকায় ফ্লাইট অবতরণ ◈ বিএনপি গুম-নির্যাতনের কাল্পনিক তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করছে: ওবায়দুল কাদের ◈ সরকারি খরচে ৩০৪৮টি মামলায় আইনি সহায়তা প্রদান

প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০১:৪৩ দুপুর
আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০৯:৫৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ইরানে জাতীয় পুরস্কার জিতেছে জয়া আহসানের ‘ফেরেশতে’ 

মনিরুল ইসলাম: [২] ইরানের জাতীয় পুরস্কার জিতেছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় অভিনেত্রী জয়া আহসান। এবার সাফল্যের মুকুটে যুক্ত হলো আরও একটি পালক। এই পুরস্কার প্রাপ্তির মাধ্যমে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র তারকা হয়ে ওঠার পথে হাঁটছেন এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী। তার ঝুলিতে রয়েছে বাংলাদেশের একাধিক জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। ভারতের ফিল্মফেয়ার পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা।  

[৩] মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে  ইরানের জাতীয় পুরস্কার পাওয়ার খবরটি নিজেই নিশ্চিত করেছেন জয়া আহসান।

[৪] নিজের সোশ্যাল হ্যান্ডেলে দেওয়া পোস্টে জয়া লেখেন - ফেরেশতে' চলচ্চিত্রটি মানবিক দৃষ্টিভঙ্গির জন্য ইরানের জাতীয় পুরস্কার জিতেছে। প্রতিবছর ফজর চলচ্চিত্র উৎসবের পর, মানবাধিকার, শিক্ষা, পরিবেশ, দাতব্য কাজ ইত্যাদি বিভাগে 'জাতীয় ইচ্ছার প্রতিফলন/বহিঃপ্রকাশ' নামে সমাজের জন্য অনুকরণীয় চলচ্চিত্রগুলোকে জাতীয় পুরস্কার প্রদান করা হয়।তিনি আরও লেখেন, এই পুরস্কারটি 'খয়র-ই-মান্দেগার' নামক একটি প্রতিষ্ঠান দ্বারা প্রদান করা হয়, যা ইরানের সমস্ত দাতব্য প্রতিষ্ঠান, দাতা, এনজিওর প্রতিনিধিত্ব করে এবং প্রতিষ্ঠানটি ইরানে ইউনিসেফের মতো সক্রিয়।

‘খয়র-ই-মান্দেগার’ স্মারক

[৫] এই পুরস্কারের পাশাপাশি, ‘ফেরেশতে’ চলচ্চিত্রের প্রধান দুই অভিনেতা জয়া আহসান ও সুমন ফারুককে ‘খয়র-ই-মান্দেগার’ স্মারক প্রদান করে সম্মানিত করা হয়।,

[৬] ‘ফেরেশতে’ চলচ্চিত্রের অভিনেতাদের দেয়া স্মারকে উল্লেখ ছিল: ‘শিল্পের মাধ্যমে দানশীলতা দেখানো জীবনের সবচেয়ে সুন্দর চিত্র, যা কখনও কখনও মানুষকে তার নিজের প্রকৃতির মহাসাগরের গভীরে টেনে নিয়ে যায় যাতে তার অস্তিত্বের মুক্তা শিকার করতে পারে। 'ফেরেশতে' চলচ্চিত্রটি ভালোবাসা এবং শিল্পের এক অসাধারণ মিশ্রণ, যেখানে আপনি প্রতিটি মুহূর্তে দয়ার উজ্জ্বল আভা দেখতে পাবেন। (খয়র-ই-মান্দেগার দাতব্য সংস্কৃতি কেন্দ্র) এই চিরন্তন কাজে ভূমিকা রাখার জন্য ৪২তম ফজর আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের ‘জাতীয় ইচ্ছার প্রতিফলন/বহিঃপ্রকাশ’ বিভাগে দাতব্য দৃষ্টিকোণ থেকে সেরা কাজের জন্য আপনাকে পুরস্কার প্রদান করা হচ্ছে।


 
[৭] উল্লেখ্য, ইরানি বিখ্যাত চলচ্চিত্র নির্মাতাদের চলচ্চিত্রগুলোর পাশাপাশি 'ফেরেশতে' চলচ্চিত্রটি ফজর আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের প্রধান বিভাগের উদ্বোধনী চলচ্চিত্র হিসেবে জনগণ, সংবাদপত্র এবং সমালোচকদের দ্বারা সমাদৃত হয়েছিল।

এমআই/এইচএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়