শিরোনাম
◈ সৌদিতে কোরবানি ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা ◈ শ্রম আইন লঙ্ঘনের সাজাপ্রাপ্ত মামলায় স্থায়ী জামিন চাইবেন ড. ইউনূস ◈ ছুটি শেষে ঢাকায় ফিরছে কর্মজীবী মানুষ ◈ স্বাস্থ্যখাতে নতুন অশনি সংকেত অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স: স্বাস্থ্যমন্ত্রী  ◈ কৃষি খাতে ১০ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যে তিন  বছরে সাড়ে ৩৮ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ ◈ বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬.১ শতাংশ: এডিবি ◈ বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে বিজিপির ১৪ সদস্য ◈ সিলেটে বিদ্যুৎকেন্দ্রের আগুন নিয়ন্ত্রণে, ৭০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ◈ ৬০ লাখ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলার তালিকা প্রকাশ করুন: মির্জা ফখরুলকে ওবায়দুল কাদের ◈ পাল্টা হামলার বিরুদ্ধে ইসরায়েলকে ইরানের কঠোর হুঁশিয়ারি 

প্রকাশিত : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০১:৪৩ দুপুর
আপডেট : ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪, ০১:৪৩ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় জামালপুর-দেওয়ানগঞ্জ সড়কের খড়া খালী ব্রিজ

খাদেমুল বাবুল, জামালপুর: [২] জামালপুর-দেওয়ানগঞ্জ পুরাতন সড়কের মেলান্দহ উপজেলার সাধুপুর এলাকায় খড়া খালী ব্রিজটি চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ঝুঁকিপূর্ণ-জরাজীর্ণ এই ব্রিজের ওপর দিয়ে প্রতিদিন ইজিবাইক, মোটরসাইকেল, সিএনজি অটোরিকশা এবং শত শত পথচারী চলাচল করে থাকেন। এলাকাবাসী জানান, এক সময় এই সড়কই ছিল জামালপুর সদরের সাথে দেওয়ানগঞ্জ, মেলান্দহ এবং ইসলামপুরের উপজেলার সড়ক যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। 

[৩] জানা যায়, ব্রিটিশ আমলে এই মেঠো সড়কটি নির্মাণ করা হয়। স্বাধীনতার পর তৎকালীন জামালপুর মহুকুমা বর্তমান জামালপুর জেলার সাথে সড়ক যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম এই সড়কটি ইটের সলিং এবং মেলান্দহ উপজেলার নয়ানগর ইউনিয়নের সাধুপুর এলাকায় খড়া খালের উপর প্রায় ১০০ মিটার দৈর্ঘ একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। ইতোমধ্যে ব্রিজটি যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। নড়বড়ে অবস্থার ব্রিজের প্রায় সবগুলো পিলার। ভেঙ্গে পড়েছে দুই পাশের র্যলিং। ব্রিজটি এতোটাই সরু যে একটি রিকশা পার হওয়ার সময় অন্য রিকশা বা মোটরসাইকেল অন্য পাড়ে অপেক্ষা করতে হয়। পরর্তীতে সড়কটি প্রশস্ত ও পাকা করা হয়লেও ঝুঁকিপূর্ণ ওই ব্রিজের ওপর দিয়ে চরম ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হচ্ছে ছোট ছোট যানবাহন ও শত শত পথচারী। পরর্তীতে জামালপুর-দেওয়ানগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়ক নির্মাণ করা হয়। ওই সড়ক দিয়ে বড় বড় যানবাহন চলাচল করলেও সময় বাঁচাতে এবং সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে ছোট যানবাহনে জন্য এই সড়কটির গুরুত্ব এখনো অপরিসীম। 

[৪] মোটরসাইকেল আরোহী আবুল কালাম আজাদ বলেন, এই ঝুঁকিপূর্ণ এই ব্রিজটি পুনঃনির্মাণ করা হলে ছোট যানবাহন ও পথচারীদের জন্য ৪-৫ কিলোমিটার পথ কমে যেত। পাশাপাশি আঞ্চলিক মহাসড়কের উপর চাপ কমতো এবং সড়ক দুর্ঘটনাও কমে যেতো। 

[৫] ইজিবাইক চালক আব্দুল খালেক বলেন, প্রতিদিন এই ব্রিজের ওপর দিয়ে শত শত রিকশা, ভ্যান, ইজিবাইক, সিএনজি অটোরিকশা, মোটরসাইকেল এবং পথচারী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। 

[৬] স্থানীয় সাধুপুর এলাকার আইয়ুব আলী বলেন, দীর্ঘ কয়েক বছর যাবৎ ব্রিজটির র্যালিং ভাঙ্গা। পিলারগুলো সব নড়বড়ে অবস্থায় ব্রিজটি দাঁড়িয়ে আছে। আমরা এলাকার মানুষসহ অসংখ্য গাড়ি ঘোড়া ও পথচারী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছি। তিনি ঝুঁকিপূর্ণ এই ব্রিজটি ভেঙ্গে নতুন একটি ব্রিজ করার দাবি জানান। 

[৭] স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইড) মেলান্দহ উপজেলা প্রকৌশলী শুভাশিষ রায় এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, খড়া খালের ওপর ওইটা একটি  ফুট ব্রিজ। ফুট ব্রিজটি ভেঙ্গে ওই স্থানে সিআইডি প্রকল্পের মাধ্যমে  ১১৫ মিটার একটি গার্ডার ব্রিজ নির্মাণের প্রস্তাব ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে। প্রস্তাবটি পাস হলে খড়া খালের উপর গার্ডার ব্রিজ নির্মাণ কাজের প্রক্রিয়া শুরু করা হবে।

প্রতিনিধি/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়