শিরোনাম
◈ সাংবাদিকরা চাষাবাদ করছেন কি না, দেখার দায়িত্ব পেলেন শাইখ সিরাজ ◈ মালদ্বীপে আবার জাহাজ পাঠাল চীন  ◈ কারামুক্ত বিএনপি নেতা আলালের স্বাস্থ্যের খোঁজ নিলেন মঈন খান ◈ গাজায় যুদ্ধ নয়, গণহত্যা চলছে: প্রধানমন্ত্রী ◈ শুক্রবার বিশ্বে বাতাস দূষণের তালিকায় ঢাকা ছিল সপ্তম ◈ মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে নির্বাচন  নিয়ে কেউ প্রশ্ন করেনি: প্রধানমন্ত্রী ◈ লোহিত সাগরে হামলায় ব্যবহার করা হবে সাবমেরিন অস্ত্র: হুথি নেতা  ◈ ২১ বলে সেঞ্চুরি করে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন আসজাদ ◈ যারা সরকার উৎখাত করতে চায়, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি তাদেরই কারসাজি: প্রধানমন্ত্রী ◈ খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু: ৩ চিকিৎসকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বিএমডিসিকে নির্দেশ

প্রকাশিত : ২৯ নভেম্বর, ২০২২, ০৬:৫১ বিকাল
আপডেট : ২৯ নভেম্বর, ২০২২, ০৬:৫১ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় প্রধান শিক্ষককে যাবজ্জীবন 

রাঙামাটি প্রতিনিধি: রাঙামাটির লংগদুতে এক স্কুল ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণের দায়ে প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিমকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে রাঙামাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ.ই.এম ইসমাইল হোসেন এই রায় ঘোষণা করেন।

২০২০ সালের ২৫সেপ্টেম্বর সকালে ভিকটিম তাদের হারিয়ে যাওয়া ছাগল খুঁজতে বের হন। একপর্যায়ে ভিকটিমকে লংগদু উপজেলার করল্যাছড়ি আর.এস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের আসামি ছাত্রাবাসের ভিতরে লেবু দেখিয়ে ডেকে নিয়ে এবং জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষণের পরে কাউকে না জানাতে ভিকটিমকে হুমকি দেন।

ভিকটিম ভয়পেয়ে কাউকে কিছু না জানিয়ে দুইদিন ঘরে কান্নাকাটি করে। পরে ভিকটিম তার মাকে বিষয়টি জানাই। পরে ভিকটিমের মা নানা সামাজিক ব্যক্তিকে জানান। তারা কিছু করতে না পারাই পরে লংগদু থানায় ৫অক্টোবর ২০২০তারিখে মামলা দায়ের করা হয় ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে।
 
রায়ে বলা হয়, আসামি যেই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, ভিকটিম সেই বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলেন। আসামি স্বীকৃত মতে বিবাহিত। তিনি একদিকে যেমন তার পরিবারের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা করেছেন, অন্যদিকে তার নিজের ছাত্রীকে ধর্ষনের মাধ্যমে শিক্ষকতার মহান পেশাকে কলঙ্কিত করেছেন। অধিকন্তু, তিনি ধর্ষনের ঘটনাকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য একে পাহাড়ী বাঙ্গালী জাতিগত বিরোধের ফলাফল মর্মে দাবী করেছেন।

তিনি পরবর্তীতে মামলা থেকে বাঁচার জন্য ভিকটিমকে ধর্মান্তরিত করে বিবাহ করেছেন মর্মে আদালতে কাগজ দাখিল করেছেন। তৎপরবর্তীতে আদালতে সাক্ষ্য গ্রহণ কালে আবার দাবি করেছেন যে, তিনি এজাহারকারীর ফাঁদে পড়ে ভিকটিমকে বাঁচানোর জন্য তাকে বিবাহ করেছেন। আসামির উত্তরূপ কর্ম প্রতীয়মান হচ্ছে, আসামি প্রকৃতপক্ষে একজন প্রতারক এবং বিকৃত যৌনাচারের ধারক ও বাহক। তাকে অনুকম্পা প্রদর্শনের সুযোগ নেই। অধিকন্তু, আসামিকে যথোপযুক্ত সাজা প্রদান করা হলে রাঙামাটি পার্বত্য জেলায় বসবাসরত পাহাড়ী, বাঙ্গালীসহ সকল ক্ষুদ্র নৃ- গোষ্ঠীর জনগণের নিকট পুনরায় এই বার্তা যাবে, যে আইনের দৃষ্টিতে সকলে সমান এবং বিচার বিভাগ সকলের জন্যই উন্মুক্ত।

রায়ে আসামিকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ৯ (১) ধারায় শান্তিযোগ্য অপরাধে দোষী সাবস্ত করে আসামি আব্দুর রহিমকে যাবতজীবন কারাদন্ড দেন এবং অতিরিক্ত ১০ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন বছর কারাদন্ড প্রদান করা হয়। এই রায়ে রাষ্ট্রপক্ষ সন্তোষ প্রকাশ করলেও আসামী পক্ষ রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে উচ্চ আদালতে যাওয়ার কথা জানান।

আসামি পক্ষের আইনজীবি এড্যা. মোখতার আহমেদ বলেন, এই রায়ে আমরা সংক্ষুদ্ধ। আমরা উচ্চ আদালতে আপিল করবো।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি এড্যা. সাইফুল ইসলাম অভি জানান, ধর্ষণ মামলার এই রায়ে আমরা সন্তুষ্ট।

প্রতিনিধি/জেএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়