শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৪ এপ্রিল, ২০২৪, ০১:৪০ দুপুর
আপডেট : ০৫ এপ্রিল, ২০২৪, ১১:১৩ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

চুক্তিভঙ্গ করায় কেএনএফ’র সঙ্গে আলোচনা স্থগিত করল শান্তি কমিটি

বাবুল খাঁন, বান্দরবান: [২] বান্দরবানে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টের (কেএনএফ) সঙ্গে শান্তি কমিটির আলোচনা স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছেন পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শান্তি প্রতিষ্টা কমিটির আহব্বায়ক ক্য শৈ হ্লা।

[৩] বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) সকালে বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সভা কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

[৪] তিনি আরও বলেন, সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্টকে (কেএনএফ) সদস্যদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার জন্য ২০২৩ সালের ২৯ মে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে অরুণ সারকী টাউন হলে মতবিনিময় সভা আয়োজন করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ওই বছরের ৯ জুন স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে ১৮ সদস্য বিশিষ্ট একটি শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটি গঠিত হয়। পরবর্তীতে শান্তি প্রতিষ্ঠা কমিটি ও কেএনএফ এর মধ্যে কয়েক দফা ভার্চুয়াল মিটিং এর পর উভয় পক্ষের মতামতের ভিত্তিতে সরাসরি সংলাপে বসার একটা সুযোগ সৃষ্টি হয়।

[৫] ২০২৩ সালের ৫ নভেম্বর  এবং পরবর্তীতে ২০২৪ সালের ৫ মার্চ  দু'দফা সরাসরি সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। উভয় সংলাপে কেএনএফ এর সকল প্রকার সশস্ত্র কার্যক্রম হতে বিরত থাকা ও অন্যান্য বিষয় সংক্রান্ত দু'টি সমঝোতা স্মারক সম্পাদিত হয়। কিন্তু তারা সম্পূর্ণভাবে চুক্তি ভঙ্গ করে বিভিন্ন সময়ে সশস্ত্র কার্যক্রম অব্যাহত রাখে। কমিটির তরফ থেকে এ বিষয়টির ব্যাপারে বারবার অবগতি করা হলেও তারা কর্ণপাত করেনি তারা। বরং বিক্ষিপ্তভাবে বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় জনগণের  উপর হামলা,চাঁদাবাজি, অপরহণসহ নানা অপকর্ম চালিয়ে গেছে।

[৬] সর্বশেষ গত ২ এপ্রিল রুমায় তারাবী নামাজীদের উপর বর্বরোচিত হামলা, সরকারি কর্মকর্তা ও পথচারীদের জিম্মি করে হামলা, অর্থ লুটের উদ্দেশে সোনালী ব্যাংকে হামলা, ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণ, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর ১৪টি অস্ত্র লুট করে নেওয়া এবং ৩ এপ্রিল থানচি উপজেলায় স্থানীয়বাসীদের জিম্মি করে এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ ও দু'টি ব্যাংক লুট করে কেএনএফ সদস্যেরা। 

[৭] এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে তীব্র নিন্দা জানান তিনি। কয়েক দফায় চুক্তির শর্ত ভঙ্গ করায় কুকি-চিনের সাথে শান্তি কমিটির সকল শান্তি আলোচনা স্থগিতের ঘোষনা দেন তিনি।

প্রতিনিধি/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়