প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘ঢাকা নগর পরিবহন’ চালু হচ্ছে ১ ডিসেম্বর

নিউজ ডেস্ক: পাইলট প্রকল্পের অংশ হিসেবে আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে ‘ঢাকা নগর পরিবহন’ নামে শুরু হচ্ছে বাস রুট রেশনালাইজেশনের প্রথম ধাপ। কেরানীগঞ্জের ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত চলবে এ পরিবহনের ১২০টি নতুন বাস। প্রায় ২১ কিলোমিটারের এ রুটে প্রতি কিলোমিটার যাতায়াত ভাড়া ২ টাকা ২০ পয়সা।

‘ঢাকা নগর পরিবহন’ নামে এই রুটে বাস চলাচলের জন্য এরইমধ্যে খসড়া নির্দেশিকা তৈরি করেছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ)। বাস মালিকদের যৌথ চুক্তির খসড়াও প্রস্তুত করা হয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) এক কর্মকর্তা জানান, বাস মালিকদের সমন্বয়ে গঠিত একটি ব্যবস্থাপনা কমিটির অধীনে সব বাস চলবে। পুরো কার্যক্রম এই কমিটির দায়িত্বেই থাকবে এবং কমিটি রিপোর্ট করবে ডিটিসিএ এর কাছে।

বর্তমানে রাজধানীতে বাস চলাচলের জন্য কোনো নির্দেশিকা নেই। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আগামী ২৪ ডিসেম্বর খসড়া নির্দেশিকা নিয়ে আলোচনা হবে। এরপর তা অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির ১৯তম সভায় উপস্থাপন করা হবে আগামী ২৮ ডিসেম্বর।

পাইলট রুটে প্রায় ৪০টি বাস স্টপ এবং ১৬টি বাস-বে স্থাপন করা হবে। তবে উদ্বোধনের পরে বাস-বে নির্মাণের কাজ শুরু হবে বলে জানান ডিএসসিসি কর্মকর্তা।

নির্দিষ্ট কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করতে হবে এবং কোনো যাত্রীকে টিকিট ছাড়া বাসে উঠতে দেয়া হবে না বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, বাসগুলোর নকশা এরইমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে এবং একটি মডেল বাসও তৈরি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) রুট পারমিটের তথ্য অনুযায়ী, ঘাটারচর-কাঁচপুর রুটে ১৩টি রুট পারমিট নিয়ে ৩৮২টি বাস চলাচল করে। পর্যায়ক্রমে এর সবই বাতিল করে দেওয়া হবে।

‘বাস রুট ফ্র্যাঞ্চাইজ পাইলটিং ড্রাফট গাইডলাইন-২০২১’ অনুযায়ী, প্রতিটি বাসকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত বাস টার্মিনাল বা ডিপো থেকে যাত্রী শুরু করতে হবে এবং নির্দিষ্ট সময়ে চলাচল করতে হবে।

বাসগুলোকে শুধুমাত্র নির্দিষ্ট বাস টার্মিনাল বা ডিপোসহ নির্দিষ্ট স্থানে পার্ক করার অনুমতি দেয়া হবে।

টার্মিনালে প্রবেশের পর প্রতিটি বাসকে পিক আওয়ারে ৫ মিনিটের মধ্যে এবং অফ-পিক আওয়ারে ১০ মিনিটের মধ্যে ছেড়ে যেতে হবে এবং খসড়া নির্দেশিকা অনুসারে ড্রাইভারদের কাজের লগ করা হবে।

নগর ভবনে কমিটির ১৮তম সভা শেষে ডিএসসিসি মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস জানান, ১ ডিসেম্বর থেকে কেরানীগঞ্জের ঘাটারচর থেকে কাঁচপুর পর্যন্ত ২১ কিলোমিটার রুটে বাস চলাচল করবে।

তিনি আরো জানান, পাইলট রুট চালু করার পর এর সঙ্গে অন্যান্য রুট যুক্ত করা হবে।

কাঁচপুর-ঘাটারচর রুটের বাস মালিকদের জন্য ১০০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। তবে মেয়র তাপস বলেছেন, তহবিলটি পরবর্তী পর্যায়ে ব্যবহার করা হবে।

সরকার গঠিত কমিটি এই রুটে প্রতি কিলোমিটারের জন্য বাস ভাড়া ২ টাকা ২০ পয়সা নির্ধারণের প্রস্তাব করেছে। প্রস্তাবিত এই ভাড়া ঢাকা শহরের বর্তমান ভাড়ার তুলনায় প্রায় ৩০ শতাংশ বেশি।

বিআরটিএ চেয়ারপার্সন নূর মোহাম্মদ মজুমদারের নেতৃত্বে গঠিত কমিটি গত ১ ফেব্রুয়ারি বিআরটিএ সদর দফতরে এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়। – ডেইলি-বাংলাদেশ ডটকম

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত