প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কিম কার্দাশিয়ানের অর্থ সহায়তায় আফগান নারী ফুটবল দলটি লণ্ডনে

ইমরুল শাহেদ: রকিত ফাউন্ডেশন সূত্রে জানানো হয়, দলের ৩৫ জন এবং তাদের পরিবারের সদস্যসহ ১৩০ জন বৃহস্পতিবার সকালে পূর্ব লণ্ডনের স্ট্যাটেন্সটেড বিমান বন্দরে পৌঁচেছেন। তালিবানরা আফগানিস্তানের ক্ষমতা গ্রহণের পর এই দলের সদস্যরা সপরিবারে পাকিস্তানে আশ্রয় গ্রহণ করেন। পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ তাদের এক মাসের জন্য অস্থায়ী ভিসা প্রদান করে। ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পর অন্য কোনো দেশ যদি তাদের গ্রহণ না করে তাহলে তাদেরকে আবার আফগানিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়ার আশঙ্কা ছিল। কিন্তু একটি চার্টার বিমানে তাদেরকে যুক্তরাজ্যে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নতুন জীবন শুরু করার আগে তাদেরকে করোনা মহামারির কারণে একটি হোটেলে ১০ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হচ্ছে।

টিভি রিয়ালিটিশোয়ের জন্য পরিচিত কার্দাশিয়ানের একজন প্রতিনিধি পিএ বার্তা সংস্থাকে জানান, বিমানটি ভাড়া করে দিয়েছেন কিম কার্দাশিয়ান ও তার এসকেআইএমএস ব্রান্ড। রকিত ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী সিউ-এন্নে গিল বলেছেন, মেয়েগুলো যে সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তাতে তিনি অভিভূত। তিনিই নারী ফুটবল দলটিকে আফগানিস্তান থেকে পালানোর সব ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন। তিনি বলেন, ‘তাদের সাহসিকতাই আমাকে উপলব্ধি করিয়েছে যে, তারা আফগান ছেড়ে গেলে সেটা বৃথা যাবে না।’ কিন্তু তালিবানরা ক্ষমতায় আসার পর বলেছিল, নারীরা কিছু বিধিনিষেধের মধ্যে ফুটবল খেলতে পারবেন। তবে সেই বিধিনিষেধের মধ্যে একটি হলো তারা প্রকাশ্যে খেলতে পারবেন না। এছাড়া অন্যান্য আফগান খেলোয়াড়রা পর্তুগাল পালিয়ে গেছেন। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান নেওয়া নারী ফুটবলারদের সহায়তায় লিডস ইউনাইটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠানও এগিয়ে এসেছে। তাদের সঙ্গে রয়েছে প্রিমিয়ার লীগ ফুটবল ক্লাবের কর্ণধার এন্ড্রু রাদরিজ্জানি। তারা এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আফগান উইমেন এ্যান্ড গার্লস ডেভেলপমেন্ট ফুটবল টিম’ সপরিবারে যুক্তরাজ্যে আসায় আমরা আনন্দিত। তারা সাবেক ক্যাপ্টেন খালিদা পপলের নেতৃত্বে নিরাপদে যুক্তরাজ্য পৌঁচেছেন এটা আরো আনন্দের।’ বিবৃতিতে বলা হয়, ‘এক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পেরে আমরা সম্মানিতবোধ করছি। যুক্তরাজ্য সরকারের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ যে, সরকার যুক্তরাজ্যে তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নিয়েছেন।’ সূত্র: ইয়ন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত