প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সিরাজগঞ্জে শষার বাম্পার ফলন খুশি চাষিরা

সোহাগ হাসান: [২] সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে শষার বাম্পার ফলন হয়েছে। আগাম ফসল ফলায় দাম বেশি পেয়ে কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি। অল্প পরিশ্রম ও খরচে বেশী লাভবান হওয়ায় এ অঞ্চলে প্রতিবছরই বাড়ছে শষার আবাদ। প্রতিবিঘা জমিতে শষা চাষ করতে প্রায় ২০-৩০ হাজার টাকা ব্যয় হয়। ১ বিঘা থেকে উৎপাদিত শষা বিক্রি হয় এক লক্ষ ১০-২০ হাজার টাকা। এ আবাদে পোকা-মাকড়ের ঝামেলা কম, তাই শষা চাষে কৃষকের আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে।

[৩] চাষি নুর ইসলাম ও আব্দুর রহিমসহ একাধিক কৃষক বলেন, মাত্র তিন মাসের মধ্যেই ফল আসে শসা গাছে। পানি জমে না এমন বেলে দো-আঁশ মাটি শসা চাষের জন্য যথেষ্ট উপযোগী। গর্ত করে প্রয়োজনীয় জৈব সার প্রয়োগ করে বীজ বপন করে একটু সেচ ও পরিচর্যা করলেই শসা ফলানো সম্ভব। ফলে উৎপাদন খরচ একেবারেই কম। ফসল সংগ্রহ শুরু হলে একদিন পর পরই শসা তুলে বাজারে পাঠানো যায়।
শাহজাদপুরের গাড়াদহ, পুরান টেপরী, বওশাগাড়ী, নবীপুর, কায়েমপুর, ব্রজবালা, ও নরিনাসহ বিভিন্ন গ্রামের কৃষকদের উৎপাদিত শষা বেচাকেনার জন্য উপজেলার গাড়াদহে একটি আড়ৎ রয়েছে। এই এলাকার বেশি ভাগ শষা চাষীরা এই আড়তে বিক্রি করতে আসেন।

[৪] ব্যবসায়ী মোতালেব বলেন, শাহজাদপুর অঞ্চলের উৎপাদিত শষা মান ভালো, শষার মান ভালো হওয়ায় এর কদর সারাদেশে রয়েছে। দেশের বিভিন্ন এলাকায় যাচ্ছে শাহজাদপুরের শষা।

[৫] শাহজাদপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মোহাম্মদ আব্দুস ছালাম জানান, অল্প সময়ে স্বল্প বিনিয়োগে অধিক লাভ করা যায়। এবার উপজেলায় ফেন্সি, সম্রাট, রত্না অলরাউন্ডার ও সাইগ্রিন হাইব্রীড জাতের শষা চাষ হয়েছে। উপজেলায় এবছর প্রায় ২০ হেক্টর জমিতে শষা চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে শষার সবচেয়ে বেশি চাষ হয়েছে নরিনা ইউনিয়নে। শষা চাষে কৃষকরা ব্যাপক সফলতা পাচ্ছেন। কৃষকেরা বিঘা প্রতি খরচ বাদে প্রায় লক্ষ টাকা করে লাভ করছেন। আগামীতে শষা চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে উপজেলা কৃষি দপ্তর।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত