প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] আশুগঞ্জে ২০ সেট চীনা ম্যাজিক ও ৫০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল পুড়িয়েছে উপজেলা মৎস্য অফিস

গোলাম সারোয়ার: [২] জেলার আশুগঞ্জের মেঘনা নদীতে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান ২০২১(০৪-২৫ অক্টোবর) কার্যক্রম এর আওতায় চর সোনারামপুর থেকে লালপুর পর্যন্ত মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়ে ২০ সেট চায়না রিং (ম্যাজিক) ও ৫০ হাজার মিটার অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করে পুড়িয়ে দিয়েছে উপজেলা মৎস্য দপ্তর।যার মূল্য ১৫ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা।

[৩] রোববার (২৪ অক্টোবর) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলা মৎস্য অফিসার রওনক জাহানের নেতৃত্বে আশুগঞ্জ থানা ও নৌ পুলিশ এর সহায়তায় উপজেলার চরসোনারামপুর থেকে লালপুর পর্যন্ত মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়ে এসব জাল জব্দ করা হয়। এসময় নদীতে খেও কাটার ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়। এছাড়াও লালপুর মাছ বাজারে জেলেদের নিকট মা ইলিশ সংরক্ষণের বিভিন্ন দিক সম্পর্কে তুলে ধরা হয়।

[৪] পরে জব্দকৃত জালগুলিকে জনসম্মুখে পুড়িয়ে ধ্বংস করে দেয়া হয়।এসময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা সাইদুর রহমান, ক্ষেত্র সহকারি হোসাইন আহম্মদসহ সংশ্লিষ্টরা।

[৫ উল্লেখ্য যে, চীনের রিং জাল বা ম্যাজিক জাল এক ধরনের বিশেষ ফাঁদ। এটি প্রায় ৬০ থেকে ৮০ ফুট লম্বা। ছোট ছোট কক্ষ বিশিষ্ট খোপের মতো। এ জাল খাল-বিল, নদী-নালা ও জলাশয়ে বাঁশের খুঁটির সঙ্গে জালের দু’মাথা বেঁধে রাখা হয়। ছোট-বড় সব ধরনের ডিমওয়ালা মাছ এ জালে আটকা পড়ে।

[৬] উপজেলা মৎস্য অফিসার রওনক জাহান বলেন, চায়না জাল, অবৈধ কারেন্ট জালসহ যে জাল দিয়ে পোনা মাছ ধরা হয় সেসব জাল আমাদের দেশে নিষিদ্ধ। সর্বনাশা এই জালের ব্যবহার আমাদের মৎস্য সম্পদকে হুমকির মুখে ফেলবে।

[৭] তিনি বলেন, মৎস্য সম্পদ রক্ষায় এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

সর্বাধিক পঠিত