প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] এফএটিএএফ এর গ্রে লিস্টেই থাকছে পাকিস্তান

রাকিবুল আবির: [২] বৃহস্পতিবার ফিনান্সিয়াল একশন টাস্ক ফোস (এফটিএএফ) ঘোষণা দিয়েছে, সন্ত্রাস বিরোধী অর্থায়ন এবং মানি লন্ডারিং বিরোধী ব্যবস্থার ঘাটতির জন্য পাকিস্তান তাদের বর্ধিত পর্যবেক্ষণ তালিকা বা গ্রে লিস্টে থাকবে। ২০১৮ সালের জুন থেকে দেশটি গ্রে লিস্টে রয়েছে। স্টার্টআপ পাকিস্তান

[৩] এফটিএএফ প্রেসিডেন্ট মার্কাস প্লেয়ার বলেন, গ্রে লিস্ট থেকে বের হতে হলে পাকিস্তানের এসকল ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যে ৩৪টি পরিকল্পনার মধ্যে পাকিস্তানকে এখনো ২টি কর্ম পরিকল্পনার বাস্তবায়ন করতে হবে। দেশটি এখন পর্যন্ত ৩০টি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে পেরেছে। তবে বিগত এই সময়ে পাকিস্তানের বেশ উন্নতি হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

[৪] ফাইন্যান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ) বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছে যে পাকিস্তান তার বর্ধিত পর্যবেক্ষণ তালিকায় থাকবে, যাকে গ্রে লিস্টও বলা হয়।
২০১ ঔঁহব সালের জুন থেকে পাকিস্তান তার সন্ত্রাস বিরোধী অর্থায়ন এবং মানি লন্ডারিং বিরোধী ব্যবস্থার ঘাটতির জন্য ধূসর তালিকায় রয়েছে।

[৫] এফএটিএফ সভাপতি ড গধৎপ মার্কাস প্লেয়ার এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করে বলেন, পাকিস্তানকে মোট রঃবসং টি আইটেম নিয়ে দুটি সমবায় কর্মপরিকল্পনা সম্পন্ন করতে হবে। “এটি এখন ৩০ টি আইটেমকে সম্বোধন করেছে বা মূলত সমাধান করেছে,” তিনি বলেছিলেন।

[৬] তিনি বলেন, “সামগ্রিকভাবে পাকিস্তান এই নতুন কর্মপরিকল্পনায় ভালো অগ্রগতি সাধন করছে।

[৭] সন্ত্রাসে অর্থায়নের বিষয়টিকে কেন্দ্র করে ২০১ ধপঃরড়হ সালের কর্মপরিকল্পনা প্রসঙ্গে ড উৎ মার্কাস বলেন, পাকিস্তান বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে কিন্তু এটি আরও প্রমাণ করতে হবে যে জাতিসংঘের মনোনীত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর সিনিয়র নেতৃত্বের বিরুদ্ধে তদন্ত ও বিচার প্রক্রিয়া চলছে।

[৮] “এই প্রক্রিয়ার প্রতি তাদের দৃ পড়হঃরহঁবফ় প্রতিশ্রুতির জন্য আমি পাকিস্তান সরকারকে ধন্যবাদ জানাই।”

[৯] সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরপরই, অর্থ বিভাগ এক বিবৃতিতে বলেছে যে ঋঅঞঋ উভয় কর্মপরিকল্পনায় পাকিস্তানের “উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি” স্বীকৃতি দিয়েছে।

[১০] ২০২১ সালের কর্মপরিকল্পনার ব্যাপারে, পাকিস্তান সাতটি কর্মপরিকল্পনা আইটেমের মধ্যে চারটি সম্পন্ন করেছে।
এফএটিএফ কর্তৃক নির্ধারিত সময়সীমার অনেক আগেই পাকিস্তান এই চারটি কর্মপরিকল্পনা সম্পন্ন করেছে।

সর্বাধিক পঠিত