প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উল্কার গতিতে বাংলাদেশের উত্থানে মুগ্ধ পাকিস্তান

রাশিদ রিয়াজ : জিডিপি’তে বাংলাদেশ ভারত ও পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে বলে পাকিস্তানের মিডিয়া এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের এক কলামে বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়েছে। কলামে বলা হয় বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের পর কেউ বিশ্বাস করত না দেশটি অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়ে স্বাধীন সার্বভৌম হয়ে টিকে থাকবে। আর সেই বাংলাদেশ এখন বিশ্বকে চমক দিচ্ছে। ফিনিক্স পাখির মত ছাঁইয়ের ওপর থেকে পুনর্জন্ম নিয়ে মাথা তুলে গৌরবের জানান দিচ্ছে বাংলাদেশ।

অপ্রত্যাশীতভাবে এবং খুবই চিত্তাকর্ষকভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়নে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ২০০৬ সালে পাকিস্তানকে জিডিপি’তে ছাড়িয়ে যায় বাংলাদেশ। তখন থেকে প্রতি বছর পাকিস্তানকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ এবং নেতৃস্থানীয় অর্থনীতিবিদদের অবাক করে, আজ বিশ্বের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির একটি দেশ এটি। মাথাপিছু আয়ে ভারতকে আবারো ছাড়িয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) পূর্বাভাস অনুযায়ী, এ বছর চলতি মূল্যে বাংলাদেশের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১৩৮ দশমিক ৭৯৪ ডলার। আর একই সময়ে ভারতের মাথাপিছু জিডিপি হবে ২ হাজার ১১৬ দশমিক ৪৪৪ ডলার। এর ফলে এই নিয়ে পরপর দুই বছর ভারতকে পেছনে ফেলতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

এক্সপ্রেস ট্রিবিউনে পথিক হাসানের কলামে বলা হয়েছে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় পোশাক রপ্তানিকারক এবং অন্যান্য অনেক খাতেই দ্রুত গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এই দেশটি বিশ্বের শীর্ষ ১০ রেমিট্যান্স গ্রহণকারী দেশগুলির মধ্যে রয়েছে এবং বছরে প্রায় ১৮ বিলিয়ন ডলারের রেমিটেন্স কোভিড মহামারীর সময়ে এক দুর্দান্ত সহায়তা। সব কৃতিত্ব জাতির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধানমন্ত্রীর কন্যা শেখ হাসিনার। তিনি ধর্মীয় চরমপন্থা ও গোঁড়ামির বৃদ্ধির উপর দৃঢ় নিয়ন্ত্রণ রাখতে পেরেছেন এবং ধর্ম ও রাষ্ট্রকে পৃথক রাখতে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে দেশটি পরিচালনা করেছেন এবং অর্থনৈতিক উন্নয়ন এবং জাতীয় নীতির অন্যান্য খাতে সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়েছেন।

স্বাধীনতার পর থেকেই বাংলাদেশ তার রক্তাক্ত জন্মের যন্ত্রণা ভোগ করেছে এবং অনেক দুঃখ-দুর্দশার মধ্যে দিয়ে এগিয়ে গেছে যেমন দারিদ্র্য, জনসংখ্যার আধিক্য, বন্যা ও ঘূর্ণিঝড় এবং মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিশাল বন্যা। অনেক প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট দুর্যোগ এবং খুব বেশি আন্তর্জাতিক সহায়তা না থাকা সত্ত্বেও এই তরুণ জাতি বিশ্বের অন্যতম অর্থনৈতিক সাফল্যের গল্পে পরিণত হয়েছে। গার্মেন্টস শিল্প চীনের পরেই দ্বিতীয় এবং এর অর্থনীতি গত ১০ বছরে বার্ষিক প্রবৃদ্ধির হার ৬ শতাংশের উপরে উঠেছে ২০১৫ সালে ৭.৮৬ শতাংশে পৌঁছেছে। ১৬৬ মিলিয়নেরও বেশি জনসংখ্যার এ দেশে মাথাপিছু আয় ২০০৯ সাল থেকে প্রায় তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বিশ্বব্যাংকের মতে দারিদ্র্যসীমার নিচে বসবাসকারী মানুষের সংখ্যা ১৯ থেকে ৯ শতাংশে নেমেছে। বাংলাদেশ আজ ‘স্বল্পোন্নত দেশ’ এর মর্যাদা থেকে ‘উন্নয়নশীল অর্থনীতির’ মর্যাদায় উন্নীত হওয়ার জন্য জাতিসংঘের মানদণ্ড পূরণ করেছে যা দেশটির জাতীয় গর্ব এবং স্ব-ভাবমূর্তিকে একটি উল্লেখযোগ্য উন্নতি দিয়েছে। আজ বাংলাদেশ একটি এশিয়ান টাইগার হওয়ার পথে, এটি মাথাপিছু আয়, রপ্তানি আয়, বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ, অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবকাঠামো এবং জাতীয় উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সকল ক্ষেত্রে জাতীয় প্রবৃদ্ধির সকল ক্ষেত্রে নিরলসভাবে এগিয়ে যাচ্ছে।

কোভিড মহামারিতে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা সত্ত্বেও বাংলাদেশ তার মাথাপিছু আয়ের ক্ষেত্রে অত্যন্ত চিত্তাকর্ষক বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ছিল ২০৬৪ মার্কিন ডলার এবং ২০২০-২১ সালে এই আয় বৃদ্ধি পেয়ে ২২২৮ ডলার হয়েছে। ২০২০-২০২১ এবং ২০২১-২২ সালের এডিপি রিপোর্ট অনুসারে কোভিড মহামারীতেও প্রবৃদ্ধির হার ৬.৮শতাংশ থেকে ৭.২ শতাংশ হওয়ার আশা করা হচ্ছে। আজ বাংলাদেশের উন্নয়নমুখী ঘোড়া অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির কাঙ্খিত লক্ষ্যের দিকে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে এবং দক্ষিণ -পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশকে অতিক্রম করে বিশ্বে অগ্রগতি ও উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে। ব্রিটিশ অর্থনৈতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর ইকোনমিক অ্যান্ড বিজনেস রিসার্চের (সিআইবিআর) মতে, বর্তমান অর্থনৈতিক বৃদ্ধি ও বিকাশ অব্যাহত থাকলে ২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে ৩৪তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ। ২০৩০ সালের মধ্যে ২৬ তম ও ২০৩৫ সালের মধ্যে ২৫তম বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে বাংলাদেশ। আজ বিশ্ব অর্থনীতি কোভিড মহামারীর মারাত্মক কবলে, বৈশ্বিক অর্থনীতি স্থবির এবং বিশ্বের জিডিপি এবং মাথাপিছু আয় স্থিতিশীল বা নেতিবাচক, বাংলাদেশের অর্থনীতি ধীর গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। এই আন্দোলনের পিছনে অন্যতম কারণ হল এর সামগ্রিক রপ্তানি আয়ের বৃদ্ধি, বৈদেশিক রেমিটেন্সের ক্রমবর্ধমান প্রবাহ এবং মাথাপিছু জাতীয় আয়ের ইতিবাচক প্রবাহ।

এই ছোট্ট দেশটির দর্শনীয় উত্থান এবং অর্থনৈতিক অগ্রগতি বিশ্বের জন্য একটি বড় বিস্ময়। সারা বিশ্বে অর্থনীতিবিদ এবং রাজনৈতিক নেতারা কেবল বিস্মিত এবং এখন এই আশ্চর্যজনক অগ্রগতি এবং উন্নয়ন কৌশল পর্যবেক্ষণ করছেন। কিছু দেশ এমনকি নিজেদের দেশে বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে গ্রহণ করার কথা ভাবছে। মার্কিন দৈনিক ওয়ালমার্ট জার্নাল অনুসারে বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে ‘ধাবমান ঘোড়া’ এবং ওয়াশিংটন পোস্টের একজন কলামিস্ট মাইক হার্ড লিখেছেন যে একসময় দক্ষিণ কোরিয়াকে উন্নয়নের উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করা হত কিন্তু এখন বাংলাদেশ গর্বের সাথে জায়গাটি দখল করেছে। কানাডা ভিত্তিক থিংক ট্যাঙ্ক ইন্টারন্যাশনাল ফোরাম ফর রাইটস অ্যান্ড সিকিউরিটি সম্প্রতি পাকিস্তান ও বাংলাদেশ নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এই প্রতিবেদনে স্পষ্টভাবে দেখানো হয়েছে যে, অর্থনীতি ও উন্নয়নের সকল ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে। বিশ্বের অনেক শীর্ষস্থানীয় অর্থনীতিবিদ এখন সব উন্নয়নশীল দেশকে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, অগ্রগতি এবং উন্নয়নের জন্য বাংলাদেশের মডেল গ্রহণ ও অনুসরণ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

২০৪০ সালে এটি হবে উন্নত এবং সমৃদ্ধ সোনার বাংলা, যেমনটি দেশটির স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বপ্ন দেখেছিলেন।
বাংলাদেশ পূর্ব পাকিস্তানের প্রাক্তন পাকিস্তান প্রদেশ দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে অস্তিত্বের মাত্র ৫০ বছর পূর্ণ করছে। একটি রক্তক্ষয়ী গৃহযুদ্ধ এবং তারপর ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের পরে জন্মগ্রহণ করে এটি একটি বিধ্বস্ত অর্থনীতি এবং সম্পূর্ণভাবে ভেঙে যাওয়া অবকাঠামো উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিল। হেনরি কিসিঞ্জারের মতো অনেক অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞ এবং বিশ্বনেতারা এটিকে একটি আশাহীন অর্থনৈতিক বিপর্যয় হিসেবে বর্ণনা করেছিলেন যিনি ১৯৭৪ সালে এটিকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ বলে অভিহিত করেছিলেন। কেউ বিশ্বাস করেনি যে এটি একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে অর্থনৈতিকভাবে টিকে থাকতে পারে। ফিনিক্স পাখির মত ভস্মছাঁইয়ের মাঝ থেকে বাংলাদেশকে উঠতে দেখে বিশ্ব আজ অবাক এবং আনন্দিত।

সর্বাধিক পঠিত