প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

খুজিস্তা নূর-ই নাহারিন: আসলেই কি পানীয়তে সোনার ছাই মিশ্রিত থাকলে রূপ-যৌবনের শ্রী বৃদ্ধি করে?

খুজিস্তা নূর-ই নাহারিন : মাত্রাতিরিক্ত মেটাল শরীরের জন্য হানিকারক। আমাদের গ্রামের কালুর মা এই ৬০ বছর বয়সেও সারাদিন কাজ শেষে নদীতে সাঁতার কেটে গোসল করে। সোনা খাওয়া তো দূরের কথা শরীরে কোনোদিন সোনার গহনাও পরেনি। মেদহীন শরীর মেকআপবিহীন মুখ, তবুও সে এখনো এতো রূপবতী কী করে? আপনারা পানি আর খাবার খাওয়া বাদ দিয়ে সোনা আর হীরা খান আর আমরা প্রকৃতি প্রদত্ত খাবার খাই। গাঁজাখোরি গল্পেরও একটা লিমিট আছে। চিলে কান টেনে নিয়ে গেছে ভেবে বুদ্ধি বিবেচনা না করে কেবলই চিলের পেছনে ছুটে চলা।

মানুষের শরীরে মেটালের পরিমাণ বেশি হলে কিডনি, লিভারসহ শরীরের সমস্ত ইন্টারনাল অর্গান নষ্ট হয়ে যাওয়ার কথা। এই সাধারণ জ্ঞানের জন্য চিকিৎসক হওয়ার প্রয়োজন নেই। মাটি আর আমাদের শরীরে একই রাসায়নিক দ্রব্য আর খনিজ পদার্থের সংমিশ্রণ আছে বলে বলা হয়, ‘মাটির এই শরীর মাটিতেই বিলীন।’ লাশ পচে সোনা পড়ে থাকলে একটি লাশও কেউ পুড়িয়ে ফেলতো না কিংবা কবর দিতো না, সোনা আহরণের জন্য অপেক্ষা করতো। সোনার ছাই মিশ্রিত পানি পানের মিথ্যা সংবাদে সয়লাব পুরো নেট দুনিয়া। কেউ ভেবে দেখার প্রয়োজন অনুভব করছেন না পেছনের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা কী হতে পারে? শরীরে স্বর্ণের উপাদান আছে এমনটি কোনোদিন শুনিনি।

সোনা আসলে শরীরে কী কাজে লাগে জানা থাকলে জানাবেন। কারণ এসিড ছাড়া সোনা গলানো সম্ভব নয়। যতোদূর জানি ফ্রান্স এবং ফিজির ডিপ সিতে ইলেকত্রলাইসিস প্রক্রিয়ায় প্রাপ্ত হাইলি অক্সিজেনেটেড অ্যালকালাইন ওয়াটার। কিন্তু পানির রাসায়নিক সংকেত তো ঐ২ঙ. অর্থাৎ দুটি হাইড্রোজেন পরমাণুর সঙ্গে একটি অক্সিজেন পরমাণুর সংমিশ্রণ। জাপানে সোনার বোতল এবং ডিজাইনের কারণে এতো দাম, শুধু শুধু। আমরা চাইলে প্রাকৃতিক ঝর্ণার মাঝেও বিশুদ্ধ এই পানি পেতে পারি বলে বিশ্বাস করি। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত