প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

শেখ আদনান ফাহাদ: শিক্ষক হয়ে গেলে শিক্ষার্থী-চেতনা ভুলে যাওয়া চলবে না

শেখ আদনান ফাহাদ: ছাত্রজীবনে এক হাউজ টিউটর আমার সঙ্গে বিনাকারণে খারাপ আচরণ করেছিলো। তিনি হলের ছাত্রদের অপমান করতেন। জানালা দিয়ে রুমে উঁকি মারতেন, চেহারা নিয়ে বাজে মন্তব্য করতেন, বর্ণবাদী ছিলেন। এক বড় ভাইকে চার তলা থেকে ফেলে দেয়ার হুমকি দিয়েছিলেন। আমার সঙ্গে অন্যায়ভাবে অপমানজনক আচরণ করলে আমি সেই রাতেই তীব্র আন্দোলন শুরু করি। আমার সঙ্গে যোগ দেয় শত শত শিক্ষার্থী। আমরা সেই শিক্ষককে হলে অবাঞ্চিত ঘোষণা করি। যতোদিন হলে ছিলাম, তিনি আর জয়েন করতে পারেননি। শিক্ষার্থীদেরকে সম্মান করা শিখতে হবে। শিক্ষক হয়ে গেলে শিক্ষার্থী-চেতনা ভুলে যাওয়া চলবে না।

শিক্ষক হলে ধৈর্য শক্তির অধিকারী হতে হবে। চুল কেটে দিয়ে শিক্ষক হওয়া যায় না। অনেক শিক্ষকদের চুল ছোট করে কেটে চাকরিতে জয়েন করার নিয়ম কিন্তু দেশের কোনো এক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি চালু করেছিলেন। চুল ছোট, সাদা শার্ট, কালো প্যান্ট, কালো জুতা পরিধান করে আসতে বাধ্য করতেন সেই ভিসি। ভিসি বদল হয়েছে, নিয়ম বদলেছে কি না জানি না। দেশের একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের ড্রেস কোড আছে। শিক্ষার্থীদের অনেক আচরণ আমারও ভালো লাগে না। আমি মাঝে মাঝে খুব ক্ষেপেও যাই। তবে তখনই ক্ষুব্ধ হই যখন সীমা ছাড়িয়ে যায়। তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সহ্য করে থাকি। শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সম্পর্ক পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও অনুধাবনের মধ্য দিয়ে চলে। তবে শিক্ষকের দায়িত্ব অনেক অনেক অনেক বেশি। এই জন্যই তিনি শিক্ষক। নিজেকে পারফেক্ট মনে করা মানুষগুলোই বেশি ঝামেলা করে। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত