প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বিএনপি জোট ছাড়ছে ইসলামী দলগুলো, জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন নেই, আন্দোলন কতটা সফল হবে?

মহসীন কবির: [২] এ বছরের ১৪ জুলাই বিএনপি জোট ছাড়ে কওমি আলেমদের পুরনো দল জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। এর আগে মুফতি ফজলুল হক আমিনীর দল ইসলামী ঐক্যজোট ২০১৬ সালে বিএনপি জোট ছেড়ে যায়। আর শায়খুল হাদিসের দল বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস জোট ছাড়ে তারও অনেক আগে। বর্তমানে বিএনপি জোটে নিবন্ধিত একমাত্র ইসলামী দল মাওলানা মোহাম্মদ ইসহাকের নেতৃত্বাধীন খেলাফত মজলিস।

[৩] এ প্রসঙ্গে স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, বিএনপির নেতৃত্বের দুর্বলতার কারণে দলগুলো চলে যাচ্ছে ব্যাপারটা এমন নয়। সবচেয়ে বড় কারণ সরকারের পক্ষ থেকে দলগুলোর প্রতি চাপ। এ ছাড়া দলগুলোর মধ্যে বিরোধ রয়েছে। একটি অংশ চলে গেলেও আরেকটি অংশ আমাদের সঙ্গে রয়েছে।

[৪] তিনি বলেন, ইসলামী দলগুলোর নেতারা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে মসজিদের ইমাম কিংবা মাদরাসার শিক্ষক। তারা তাদের প্রফেশন ধরে রাখার জন্য অনেক সময় বাধ্যও হন এমন সিদ্ধান্ত নিতে। জানা যায়, বাংলাদেশের জন্মলগ্ন থেকে ইসলামী মূল্যবোধ রাজনীতিতে অনেকটা এককভাবে ব্যবহার করত এবং এর সুবিধা পেত বিএনপি।

[৬] জামায়াত প্রসঙ্গ উল্লেখ করে বৈঠকে টুকু বলেন, ২০ দলের কারণে উদারপন্থী দল হওয়া সত্ত্বেও দেশে-বিদেশে জামায়াত-বিএনপিকে ব্র্যাকেট বন্দি করা হয়। এখনো আলোচনার সময় বলা হয়, নিজামী-খালেদা। তাই এমন পরিস্থিতি থেকে এখন বের হয়ে আসা উচিত। তিনি আরো বলেন, পরগাছার কারণে বটগাছ বড় হতে পারে না। তাই পরগাছা ছেঁটে দিয়ে বিএনপিকেই আন্দোলনের জন্য মাঠে নামতে হবে। এরপর ওই আন্দোলনে যারা শরিক হবে তাদের নিয়েই বৃহত্তর ঐক্য গড়ে উঠবে। তখন ২০ দলের কেউ এলে আসবে। কালেরকন্ঠ

[৭] বিএনপির দায়িত্বশীল নেতারা দাবি করেছেন, ২০ দল ভাঙার পেছনে সরকারের ভূমিকা রয়েছে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপিকে দুর্বল করতে বিকল্প আরেকটি জোট গঠনের তৎপরতা চলছে। বিএনপির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে জোট ছাড়ার ঘটনা ওই প্রক্রিয়াই একটি অংশ। নেতারা আরও বলেন, ২০ দল একটি নির্বাচনী জোট। বড় দল হিসাবে বিভিন্ন কর্মসূচিসহ নানা ইস্যুতে বিএনপির একক সিদ্ধান্ত নেওয়ার অধিকার আছে। সেখানে ক্ষোভ বা হতাশার কিছু নেই। নানা ষড়যন্ত্রের মধ্যেও জোটের ঐক্য অটুট আছে। যুগান্তর

[৮] বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ২০ দলীয় জোটে কোনো টানাপোড়েন নেই। সরকার জোট ভাঙার চেষ্টা চালাচ্ছে। জোটের শরিকদের সঙ্গে নিয়মিত তাদের যোগাযোগ রয়েছে। আগের চেয়ে জোট আরও বেশি শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ।

[৯] জোটের শরিক দল হিসাবে যথাযথ মূল্যায়ন না করাসহ কয়েকটি অভিযোগ তুলে বুধবার জোট ছাড়ার ঘোষণা দেন ২০ দলের শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। এ সময় দলটির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা বাহাউদ্দিন জাকারিয়া বলেন, শরিকদের সঙ্গে পরামর্শ না করেই উপনির্বাচন এককভাবে বর্জন করা, আলমদের গ্রেফতারের প্রতিবাদ না করা, প্রয়াত জমিয়ত মহাসচিব নূর হোসেন কাসেমীর মৃত্যুতে বিএনপির পক্ষ থেকে সমবেদনা না জানানো এবং তার জানাজায় শরিক না হওয়া জোট ত্যাগের কারণ। এর আগে গত কয়েক বছরে আন্দালিভ রহমান পার্থের দল বিজেপি, ইসলামী ঐক্যজোট, বাংলাদেশ ন্যাপ, এনডিপি, এনপিপি, লেবার পার্টির একাংশ বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট ত্যাগ করে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত