প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মঠবাড়িয়ায় রাস্তা ভেঙ্গে ৪ গ্রামের মানুষের চলাচলে চরম দুর্ভোগ

জুলফিকার আমীন: [২] পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার সড়ক ও জনপথ বিভাগের ধানীসাফা-মিরুখালী সড়কে ৫/৭ স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে ২ স্থানের রাস্তা ভেঙ্গে খালে পরিণত হওয়ায় ৪ গ্রামের প্রায় ১০ হাজার মানুষ চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। ওয়াহেদাবাদ, মিরুখালী, ছোটহারজী ও চালিতাবুনিয়ার প্রায় ১০ হাজার শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও পথচারীর যাতায়াতের এ রাস্তাটি গত ১৫ দিন ধরে বিচ্ছিন্ন হয়ে রয়েছে। তাছাড়া এ সড়কটি দিয়ে আমুয়া, ভান্ডারিয়া, পিরোজপুরসহ দুরপাল্লার ছোট-বড় গাড়ীও চলাচল করে।

[৩] সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, অমাবস্যায় বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘু চাপ ও গত কয়েক দিনের অব্যাহত ভারী বৃষ্টির প্রভাবে পানির চাপে রাস্তাটির বাদুরা বাজার থেকে মিরুখালী বাজার পর্যন্ত অংশে রাস্তার নিচ দিয়ে ৫/৭ টি স্থানে চালার (অভ্যান্তলীন ডোর) সৃষ্টি হয়েছে। এ চালা গুলোও যে কোন সময় ভেঙ্গে খালে পরিনত হবার আশংকা রয়েছে।

[৪] ইতিমধ্যে ২ স্থানের রাস্তা ভেঙ্গে খালে পরিণত হয়েছে। এ রাস্তার সংলগ্ন ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পড়েছে চরম বিপাকে। ভাঙ্গা স্থানে সুপারি গাছ ও লোহার ভীম দিয়ে মানুষজন কোন রকম পারপার হচ্ছে। তবে ছোটখাট দুর্ঘটনা অব্যহত রয়েছে।

[৫] অটো ড্রাইভার কালাম হোসেন জানান, রাস্তা ভেঙে যাওয়ায় ১৫ দিনের বেশী সময় দিন অটো বন্ধ থাকায় আয়-উপার্যন নেই। আমার মতো এ রুটের অনেক ড্রাইভার পরিবার নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছে। তিনি দ্রুত রাস্তা মেরামতের দাবী জানান।

[৬] স্থানীয় অভিভাবক খাদিজা বেগম জানান, দীর্ঘ দিন পার স্কুলে খুললেও রাস্তা ভেঙে যাবার কারনে তার ছেলে-মেয়ে স্কুলে যেতে পারছে না।

[৭] মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক রোকনুজ্জামান শরীফ জানান, করোনায় দীর্ঘ ছুটির পর বিদ্যালয় খুললেও রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় শিশু শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারছেনা। সড়কটি তিনি দ্রæত মেরামতের দাবী জানান।

[৮] এ ব্যাপারে সওজ এর পিরোজপুর অফিসের এসও মো. আলি আকবরের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, রাস্তার ভাঙ্গা অংশের মেরামত শীগ্রই করা হবে।