প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দেবিদ্বারে খাল ভরাটের প্রতিবাদে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষদের মানববন্ধন

শাহিদুল ইসলাম: [২] কুমিল্লার দেবিদ্বারে শতবছরের পুরনো প্রবাহমান একটি জনগুরুত্বপূর্ণ খালের ২’শ ফুট জায়গা ভরাট করার প্রতিবাদে ক্ষতিগ্রস্থ শতাধিক কৃষকের মানববন্ধন।

[৩] বুধবার (২৫ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার সুবিল ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামের কেন্দ্রীয় গোরস্থানের সামনে ওই মানব বন্ধন করেন স্থানীয় ভোক্তভুগী কৃষকরা।

[৪] মানববন্ধন চলাকালে স্থানীয় কৃষকরা জানান, বৃটিশ শাসনামলে এই এলাকার পানি নিষ্কাশন ও কৃষির উন্নয়নে খালটি খনন করা হয়েছিলো। যে খালটি শাখা প্রশাখা সালদা, মরজড়া, বুড়ি, তিতাস ও গোমতী নদীর সাথে সংযোগ রয়েছে। ২০১৯ সালের প্রথমদিকে আব্দুল্লাহপুর কেন্দ্রীয় কবরস্থানের প্রশস্তকরণের নামে কবরস্থান কমিটি ওই খালটির প্রায় ২’শ ফুট অংশ ভরাট করেন। আমরা বাঁধা দেয়ায় কমিটির কর্মকর্তারা ৬মাস পরেই খালটি খনন অথবা মোটা পাইপ দিয়ে পানিনিষ্কাশনের ব্যাবস্থা করা হবে বলেছিল। এরই মধ্যে দু’বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও গোরস্থান কমিটির পক্ষ থেকে খাল খননের কোন ব্যাবস্থা না নেয়ায় কৃষিকাজে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। চলতিবছর কৃষকদের নিজস্ব উদ্যোগে আব্দুল্লাহপুর সড়কের পূর্বপাশে বাঁধ দিয়ে আবাদ করায় এ বিলের ফসল কিছুটা ভালো হলেও রাস্তার পশ্চিম পাড়সহ অন্যান্য কৃষকের ফসল উৎপাদনে ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

[৫] আব্দুল্লাহপুর গ্রামের কৃষক মনিরুল ইসলাম’র স্ত্রী নার্গিস আক্তার নামে এক দরিদ্র কৃষাণী দুঃখ করে বলেন, বড় কষ্টে আছি, ওরা প্রভাবশালী তাই আমরা প্রতিবাদ করতে পারি না। প্রতিবাদ করলে মারতে আসে, ভয় দেখায়, নানাভাবে হুমকী দেয়।

[৬] মোঃ ময়নাল হোসেন জানান, খাল ভরাটের প্রতিবাদে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)’র বরাবরে খালটি উদ্ধার এবং পুনঃখননের আবেদন জানিয়ে একাধিকবার আবেদন পত্র দিলেও কোনো প্রতিকার পাইনি।

[৭] স্থানীয় কৃষক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু তাহের জানান, আব্দুল্লাহপুর কেন্দ্রীয় গণকবরটি প্রায় ৩’শ বছরের পুরনো। প্রায় ১০ একর জমি নিয়ে প্রতিষ্ঠিত এ গণকবরটি ব্যাবহার করা যাবে আরো ৫’শ বছর। তারপরও কবর কমিটি বৃটিশ শাসনামলে এ অঞ্চলের পানি নিষ্কাসন ও কৃষির উন্নয়নে খননকৃত এ খালটি ভরাট করে পুরো এলাকা পানিতে তলিয়ে দিয়েছে।

[৮] সুবিল ইউনয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও গোরস্থান কমিটির সদস্য ইউনুছ বাহাদূর বলেন, ঘটনাটি কয়েক বছর পূর্বের। আজকে যারা মানববন্ধন করেছেন তাদের মধ্যে একাধিক ব্যক্তি এখনো কমিটির সদস্য আছেন। গ্রামের সম্মানীত ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে সিদ্ধান্ত নিয়েই ড্রেজার মেসিন দিয়ে মাটি তুলে খালটি ভরাট করা হয়েছিলো।

[৯] উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ গিয়াস উদ্দিন জানান, অভিযোগ পেয়ে তদন্তস্বাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে স্থানীয় ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দিয়েছি।

[১০] এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাকিব হাসান বলেন, তদন্তে খাল ভরাট হলে পুনঃখনন সহ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পাদনা: সঞ্চয় বিশ্বাস

 

সর্বাধিক পঠিত