প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সারা দেশে আশঙ্কাজনক হারে ছড়িয়ে পড়েছে ভেজাল ওষুধ

নিউজ ডেস্ক:  রোগ নিরাময়ের আশায় চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র অনুসরণ করে উল্টো হুমকিতে পড়ছে রোগীর জীবন। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় নকল ওষুধের কারখানা বানিয়ে সেই ওষুধ ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে আনাচে কানাচে। জেনে-শুনে-বুঝে কিছু অতিরিক্ত লাভের আশায় অনেক ওষুধের দোকান মালিক তা বিক্রি করছেন চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্রে দেওয়া এসব ওষুধ। সবচেয়ে আশ্চর্যের বিষয় হলো, সাইনবোর্ডেই সীমাবদ্ধ মডেল ফার্মেসির কার্যক্রম। আর তদারকির দায়িত্বে থাকা ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের কর্মকর্তারা কালেভদ্রে কিছু অভিযান চালিয়েই তাদের দায়িত্ব পালন শেষ করছেন। বাংলাদেশ প্রতিদিন

ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক লে. জেনারেল (অব.) মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘এখন তো অভিযানই দেখছি না। আমি তো তখন বলেছিলাম, জুনিয়র অফিসারদের বেশি অফিসে থাকার দরকার নেই। প্রতিদিন কমপক্ষে চার ঘণ্টা তাদের মাঠে থাকার নির্দেশ দিয়েছিলাম। তাদের প্রতি নির্দেশনা ছিল ওষুধের দোকানগুলোতে ভাউচার দেখবেন। তাহলে নকল ওষুধ বেরিয়ে আসবে।’ অভিযান না থাকার কারণে মডেল ফার্মেসিও মুখ থুবড়ে পড়ছে বলে মন্তব্য তার।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর হলো একমাত্র তদারকি প্রতিষ্ঠান। এ জন্য এসব ক্ষেত্রে তাদের এগিয়ে আসা উচিত। কারণ ওষুধের নিম্নমান কিংবা ভেজাল যে কোনো মূল্যে তাদের ঠেকানো উচিত। এর জন্য সরকারের উচিত হবে এই প্রতিষ্ঠানটির সক্ষমতা ও জবাবদিহি বাড়াতে যা যা প্রয়োজন তা নিশ্চিত করা। কারণ মানুষের জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হলো ওষুধ। এ বিষয়টি নিয়ে হেলাফেলার সুযোগ নেই।
গোয়েন্দা সূত্র বলছে, নকল ও ভেজাল ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের জন্য রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে একাধিক চক্র কাজ করছে। অনেকে নকল ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের সঙ্গে জড়িত। কেউ কেউ আয়ুর্বেদিক লাইসেন্সের আড়ালে কারখানা বানিয়ে বা কেউ কেউ ফ্ল্যাট বাসায় ডাইস বসিয়ে নকল ওষুধ তৈরি করে। মাঝেমধ্যেই গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে একেকটি চক্রকে আইনের আওতায় আনা হয়। কিন্তু তারা আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে এসে ঠিকানা পরিবর্তন করে আবারও একই কাজ করে থাকেন। গত কয়েক বছরে মিটফোর্ডের ওষুধের বাজার থেকে কোটি কোটি টাকার নকল, ভেজাল ও নিম্নমানের ওষুধ জব্দ করা হয়েছে। ১২ আগস্ট ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কোতোয়ালি জোনাল টিম রাজধানী ঢাকা, সাভার ও পিরোজপুরের নেছারাবাদ বিসিক শিল্প এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ জব্দ করে। এ সময় গ্রেফতার করা হয় আটজনকে, যারা রীতিমতো কারখানা বানিয়ে নামিদামি ব্র্যান্ডের বিভিন্ন নকল ওষুধ তৈরি করতেন। তাদের কারখানা থেকে নকল ওষুধ তৈরির ডায়াস এবং মেশিনও উদ্ধার করা হয়েছে। এর কিছুদিন আগে ডিবির গুলশান বিভাগ ২৯ জুন রাজধানীর হাতিরপুল, রামপুরা, মালিবাগ ও নারায়ণগঞ্জের জালকুড়িতে অভিযান চালিয়ে সাতজনকে গ্রেফতার করে। এরা গায়ে ইচ্ছামতো জেনেরিক নেইম/ট্রেড নেইম দিয়ে ওষুধ চালিয়ে দিচ্ছিল। একেক সময় তা হয়ে উঠছিল হার্টের ওষুধ, কখনো বা লিভারের, আবার কখনো হাড় ক্ষয়ের।

গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, নকল ওষুধ উৎপাদনকারীরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে সারা দেশের বিভিন্ন এলাকায় কারখানা স্থাপন করলেও এসব বিক্রির কেন্দ্রস্থল হলো পুরান ঢাকার মিটফোর্ড এলাকা। এখানে গড়ে ওঠা ওষুধের পাইকারি বাজার থেকেই মূলত সারা দেশে নকল ও ভেজাল ওষুধ ছড়িয়ে পড়ে। করোনা মহামারীতে বহুল ব্যবহৃত একমি ল্যাবরেটরিজের মোনাস-১০ এবং ইনসেপ্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের মনটেয়ার-১০ (জেনেরিক নাম মন্টিলুকাস্ট) নকল উৎপাদন ছাড়াও এরা স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের সেফ-৩ (জেনেরিক নাম সেফিক্সিম-২০০), সেকলো-২০ (জেনেরিক নাম ওমিপ্রাজল বিপি ২০), জেনিথ ফার্মাসিউটিক্যালসের ন্যাপ্রোক্সেন প্লাস-৫০০ উৎপাদন করত।

গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা জানান, সম্প্রতি তারা যেসব নকল ওষুধ জব্দ করেছেন এর মধ্যে সেফ-৩-এর বাজারমূল্য প্রতি পিস ৩৫ টাকা ৫০ পয়সা। সেখানে নকল সেফ-৩ বিক্রি করা হয় প্রতি পিস ৫ টাকা করে। একইভাবে ৬ টাকা মূল্যের সেকলো একটা ৭৫ পয়সা, ১৬ টাকা মূল্যের মনটেয়ার ৩ টাকায়, ১১ টাকা মূল্যের ন্যাপ্রোক্সেন আড়াই টাকায় এবং ১৬ টাকা মূল্যের মোনাস ৩ টাকায় বিক্রি করা হতো। ফার্মেসি মালিকরা অধিক লাভের আসায় আসল ওষুধের নামে নকল ওষুধ বিক্রি করতেন।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার সাইফুর রহমান আজাদ বলেন, সর্বশেষ গ্রেফতার নকল ওষুধ উৎপাদনকারী চক্রটির মূল হোতা ফয়সাল। তিনি ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর থেকে আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরির একটি লাইসেন্স নিয়েছিলেন। সেই লাইসেন্স ব্যবহার করে তিনি পিরোজপুরের বিসিক শিল্পনগরীতে একটি কারখানা স্থাপন করেন। আতিয়ার নামে এক কেমিস্টের কাছ থেকে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ওষুধের ফর্মুলা নিয়ে নকল ওষুধ উৎপাদন শুরু করেন। এ ছাড়া মিটফোর্ডের মুহিব নামে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে তিনি কেমিক্যাল সংগ্রহ করতেন। সেই কেমিক্যাল সাভার ও পিরোজপুর পাঠিয়ে নকল ওষুধ তৈরি করে আবারও আনা হতো মিটফোর্ডে। মিটফোর্ড থেকেই ফয়সালের সহযোগী মোবারক, নাসির, ওহিদুল, মামুন, রবিন, ইব্রাহীম, আবু নাইম ও আরেক ফয়সালের মাধ্যমে সারা দেশে বিক্রি করা হচ্ছিল নকল ওষুধ।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মাকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সায়েদুর রহমান বলেন, দৃষ্টান্তমূলক সাজা না দিলে এটি থামানো যাবে না। এর ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি। মানুষের রোগ তো ভালো হয়ই না, বরং অন্যান্য রোগে আক্রান্ত হয়ে জটিলতা তৈরি হয়। আবার নকল ওষুধ যদি ক্ষতিকারক কিছু দিয়ে বানায় তবে তা মানবদেহের জন্য আরও বেশি ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দেশে ২৪১টি প্রতিষ্ঠান প্রায় ৩০ হাজার ব্র্যান্ডের ওষুধ উৎপাদন করছে। যে কোনো ওষুধ বাজারজাত করার আগে তা ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের কাছে নমুনা সরবরাহের পর অনুমতি নিয়ে বাজারজাত করতে হয়। কিন্তু একবার বাজারজাত করার পর সেই ওষুধের গুণগত মান নিয়ে আর কোনো তদারক করা হয় না। এ সুযোগে অনেক নামসর্বস্ব ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানি অধিক লাভের আশায় ওষুধের ভেতরে থাকা উপকরণ কমিয়ে দেয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের কাজ হলো মাঝেমধ্যেই বাজার থেকে ওষুধ সংগ্রহ করে গুণগত মান পরীক্ষা করা। কিন্তু তাদের ল্যাবরেটরির সক্ষমতা অনেক কম। এ সুযোগটাই কাজে লাগায় অনেক কোম্পানি। লোকবলের অভাব ও ক্যাপাসিটি না থাকার দোহাই দিয়ে কর্তৃপক্ষ বিষয়টিকে গুরুত্ব দেয় না। একই জেনেরিক নামের ওষুধ বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল বাজারজাত করলেও একেকটির মান একেক রকম। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যথাযথ তদারকির অভাবে এসব নিম্নমানের ওষুধ দেদারসে বিক্রি হচ্ছে। নকল ও নিম্নমানের ওষুধ সম্পর্কে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও হাডসন ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেডের কর্ণধার এস এম শফিউজ্জামান বলেন, ‘নকল ওষুধ উৎপাদন ও বিপণন প্রতিরোধে আমরা নিয়মিত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে চিঠি দিয়ে আসছি। এ ছাড়া আমরা নিয়মিত ড্রাগিস্ট, কেমিস্ট ও ফার্মাসিস্টদের নিয়ে সচেতনতামূলক সভা-সেমিনার করে থাকি। আমরা মডেল ফার্মেসির ওপর জোর দিচ্ছি। কিন্তু গ্রামগঞ্জের ফার্মেসি মালিকদের অনেকেই অধিক মুনাফার আশায় নকল ওষুধ বিক্রি করছেন।’

নকল ওষুধেরও পাইকারি বাজার মিটফোর্ড : অভিযোগ রয়েছে, সারা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে অনেক ফার্মেসি মালিক কম টাকায় ওষুধ কিনতে মিটফোর্ডের ওষুধের বাজারে আসেন। সেখানে নকল ওষুধ উৎপাদনকারীরা তাদের কাছে গোপনে ওষুধ বিক্রির চুক্তি করেন। অধিক মুনাফার আশায় ফার্মেসি মালিকরা নকল ওষুধ বিক্রি করতে রাজি হলে কুরিয়ারের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট এলাকায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া নকল ওষুধ উৎপাদনকারীদের অনেক প্রতিনিধি সারা দেশে ঘুরে ঘুরেও ফার্মেসি মালিকদের কাছে নকল ওষুধ বিক্রি করে থাকেন।

মিটফোর্ডের পাইকারি ওষুধ মার্কেটের কেমিস্ট অ্যান্ড ড্রাগিস্ট সমিতির একজন পরিচালক এ প্রতিবেদককে বলেন, ‘আমরাও নকল ওষুধ উৎপাদন এবং বিপণনের বিপক্ষে। এ জন্য ২০১৮ সালে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরকে একটি টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাবও দিয়েছিলাম। কিন্তু ওষুধ প্রশাসন অধিদফতর কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। তবে কিছু ব্যবসায়ী আছেন, যারা নকল ওষুধ বানান। এ রকম অভিযোগ আছে।

নামেই মডেল ফার্মেসি : ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের তথ্য মতে, ২০১৬ সাল থেকে ‘দ্য বাংলাদেশ ফার্মেসি মডেল ইনিশিয়েটিভ’ দিশারি প্রকল্পের মাধ্যমে দেশে মডেল ফার্মেসি ও মডেল মেডিসিন শপ কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। এরই মধ্যে সারা দেশে দেওয়া হয়েছে প্রায় সাড়ে ৪০০ মডেল ফার্মেসির লাইসেন্স। শর্তগুলোর মধ্যে একটি হলো, মডেল ফার্মেসিগুলোয় একজন ফার্মাসিস্ট রাখা বাধ্যতামূলক। তবে সরেজমিন দেশের একাধিক মডেল ফার্মেসি ও মেডিসিন শপগুলো ঘুরে ওষুধ বিক্রির ক্ষেত্রে নিয়ম-নীতি মানার ক্ষেত্রে উল্টো চিত্র দেখা গেছে। তবে হাতে গোনা কয়েকটি ফার্মেসি ছাড়া অধিকাংশই এ শর্ত মানছে না।

নকল ও ভেজাল ওষুধের উৎপাদন ও বিপণন প্রতিরোধের পদক্ষেপ জানতে চেয়ে ঔষধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

সর্বাধিক পঠিত