প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনীতে জবি শিক্ষার্থীর শিল্পকর্ম ‘ঐকাত্ম্য’

অপূর্ব চৌধুরী: [২] শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত ২৪তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনীতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাঈম রাজের শিল্পকর্ম ‘ঐকাত্ম্য’ প্রদর্শিত হচ্ছে। নাঈম রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের ১২তম ব্যাচের শিক্ষার্থী এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তমঞ্চ পরিষদ-এর সভাপতি।

[৩] জানা যায়, গত ৯ জুন নির্বাচন কমিটির বাছাই প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে শিল্পকর্মটি চূড়ান্ত প্রদর্শনীর জন্য মনোনীত হয়। এটি পারফরম্যান্স আর্ট বিভাগে প্রদর্শিত হচ্ছে।

[৪] শিল্পকর্মটির বিষয়ে নাঈম রাজ বলেন, আমি গত দুই বছর থেকে পারফরম্যান্স আর্ট নিয়ে গবেষণাধর্মী কাজ করছি। পারফরম্যান্স আর্ট বিষয়ক বিভিন্ন প্রকার তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ, বিশ্লেষণ, কার্যকারণ অনুসন্ধান করে সমসাময়িক বিষয়বস্তু সমূহকে পর্যবেক্ষণের আলোকে কিভাবে দৃশ্যমান করা যায় সে বিষয়ে বিস্তর পরিসরে কাজ করার চেষ্টা করছি। আমি “ঐকাত্ম্য” নিয়ে চলতি বছরের মে মাস থেকে কাজ শুরু করি এবং জুনের প্রথম সপ্তাহ থেকে মহড়া কার্যক্রম পরিচালনা করি।

[৫] প্রেক্ষাপট সম্পর্কে নাঈম রাজ বলেন, ‘ঐকাত্ম্য’ পারফরম্যান্স আর্টের মাধ্যমে দর্শকদের বুঝাতে চেয়েছি পৃথিবীতে কত রকমের মানুষ। শারীরিক ও মানসিক গঠনে প্রত্যকেই নিজস্ব একক বৈশিষ্ট্যের অধিকারী। ভাষা, সংস্কৃতি, ধর্ম, জাতিসত্ত্বা এবং শ্রেণীকরণেও পৃথক। তবে সব মানুষের রক্তের রং একই। মানুষ-মানুষের সহযোগিতা ছাড়া চলতে পারেনা। মানুষের সবচেয়ে বড় ও মূল্যবান সম্পদ হলো তার বিবেক ও মানবিকতাবোধ।

[৬] তিনি বলেন, বিবেকের কাছে দায়বদ্ধ মানুষের কর্মের প্রতিফলন ঘটে মানবিকতায়। পৃথিবীতে আজ মানবিকতার বড়ই অভাব। বিবেক বর্জন ও অমানবিকতার ফলে মানুষ থেকে মানুষের দূরত্ব বেড়েই যাচ্ছে। এই দূরত্ব পৃথিবীকে অতি নৈরাজ্যের রূপদান করেছে। পৃথিবীকে সুন্দর, সমৃদ্ধ, শান্তিময় এবং বাসযোগ্য করে গড়ে তুলতে মানুষের মধ্যে একাত্মতার কোন বিকল্প নাই। পৃথিবী হবে এমন যেখানে মানুষ হবে মানুষের শ্রেষ্ঠ বন্ধু।

[৭] নিজের শিল্পকর্ম শিল্পকলা একাডেমিতে প্রদর্শিত হবার অনুভূতির পাশাপাশি সহ-শিল্পী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে নাঈম রাজ বলেন, “ঐকাত্ম্য” প্রদর্শিত হবার পর অসাধারণ অনুভূতি হয়েছে। এখনো হচ্ছে। এগুলো ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আমার প্রতিটি সহ-শিল্পী রাতদিন অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে। পাশাপাশি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মহড়া করার জন্য কেন্দ্রীয় অডিটোরিয়াম ব্যবহার করার সুযোগ করে দেওয়ার সাথে বিভিন্ন রকম সহযোগিতা করেছেন।এজন্য আমি সহ-শিল্পী এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের প্রতি শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

[৮] পারফরম্যান্স আর্ট নিয়ে নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার বিষয়ে এই শিক্ষার্থী বলেন, বর্তমানে পারফরম্যান্স আর্ট বাংলাদেশে সম্পূর্ণরূপে শিল্পের একটি নতুন মাধ্যম বিধায় এই মাধ্যমের কাজ খুবই স্বল্প পরিসরে হচ্ছে। এটি নিয়ে কিভাবে ব্যাপকভাবে কাজ করা যায় বিশেষ করে যারা আগ্রহী এবং তরুণ তাদের জন্য বিষয় ভিত্তিক কর্মশালা ও উন্মুক্ত সেমিনার করার পরিকল্পনা আছে।বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আমার একটি আহ্বান থাকবে,যেহেতু পারফরম্যান্স আর্ট শিল্প জগৎ-এ একটি শক্তিশালী মাধ্যম তাই কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিভিন্ন ইনিস্টিটিউটগুলোর নাট্যকলা ও চারুকলা বিভাগগুলোতে পারফরম্যান্স আর্ট এর উপর প্রথম দিকে পরীক্ষামূলক ভাবে হলেও একটি কোর্স চালু করা হোক।

[৯] ‘ঐকাত্ম্য’ পারফরম্যান্স আর্টের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় ছিলেন নাঈম রাজ, সহ-শিল্পী ছিলেন নাঈম রাজ,উম্মে হানি, সৌরভ বিশ্বাস (রুদ্র), কপোতাক্ষী নূপুরমা সিঞ্চি, কাদেরুজ্জামান কমল, আব্দুল্লাহ আল মারুফ। সেট ডিজাইন করেছেন নাঈম রাজ ও মাহাবুবুর রহমান। পোশাক পরিকল্পনায় ছিলেন নাঈম রাজ ও কপোতাক্ষী নূপুরমা সিঞ্চি, আলোক পরিকল্পনা ও প্রক্ষেপণ করেছেন মাহাবুবুর রহমান। চিত্রগ্রাহক খমক মন্ত্র সহ সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন আশফিকুর রহমান এবং সাব্বির হোসেন।

[১০] এর পূর্বে ২২ তম নবীন শিল্পী চারুকলা প্রদর্শনী ২০২০-এ নাঈম রাজের “জীবন দ্বন্দ্ব” পারফরম্যান্স আর্ট প্রদর্শিত হয়। যা পারফরম্যান্স আর্ট বিভাগে শ্রেষ্ঠ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। পারফরম্যান্স আর্ট বিভাগে বাংলাদেশে সেটিই প্রথম কোন শ্রেষ্ঠ অ্যাওয়ার্ড ছিল।

[১১] উল্লেখ্য, গত ২৯ জুন রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত ২৪তম জাতীয় চারুকলা প্রদর্শনী ২০২১ -এর উদ্ধোধন করা হয়। ৩১ জুলাই পর্যন্ত প্রদর্শনীর কথা থাকলেও সময় বৃদ্ধি করায় ৩১ আগস্ট পর্যন্ত চলবে এবারের প্রদর্শনী।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত