প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সমুদ্র নিরাপত্তায় গঠিত আঞ্চলিক জোট কলম্বো সিকিউরিটি কনক্লেভের পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে বাংলাদেশকে

বিশ্বজিৎ দত্ত: [২] গত ৪ আগস্ট কলম্বোয় জেটোর প্রথম বৈঠকে বাংলাদেশ, মরিসাস ও সেচেলকে পর্যবেক্ষক করা হয়েছে।

[৩] আগামী বছর সিকিউরিটি কনক্লেভের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে মালদ্বীপে সেখানে ৩ পর্যবেক্ষককে সদস্য করা হবে।

[৪] ২০১১ সালে শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট রাজাপাকসের প্রস্তাবে ভারত মহাসাগরীয় এলাকার দেশগুলোকে নিয়ে কলম্বো সিকিউিরিটি কনক্লেভ জোট গঠন করা হয়। প্রথম দিকে এই জোটে ছিল শ্রীলংকা, মালদ্বীপ ও ভারত। এরপরে এই জোটের তেমন কোন কার্যক্রম ছিল না।

[৫] সম্প্রতি ভারত মহাসাগরিয় এলাকায় চোরাচাল, অস্ত্র ব্যবসা, ও মানব পাচার বৃদ্ধি পাওয়ায় জোটটিকে আবারো সক্রিয় করা হয়েছে।

[৬] এই জোটের প্রধান কাজ হবে সমুদ্র এলাকায় নিরাপত্তা বজায় রাখা। মানব পাচার ও চোরাচালান বন্ধ করা। জোটের সদস্যরা পরষ্পর মানবিক সহায়তায়ও কাজ করবে। তারা এই লক্ষ্যে আগামী ১ বছর নৌ ও কোস্ট গার্ডদের পরষ্পরকে প্রশিক্ষণ প্রদান করবে। নৌ মহড়া আয়োজন করবে।

[৭] ভারত এই জোটকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে। তারা এই জোটের প্রত্যেক দেশের সঙ্গে দ্বৈত বা সবাই মিলে সামরিক মহড়া করবে বলে প্রতিশ্রুতি ব্যাক্ত করেছে।

[৮] এ বিষয়ে বাংলাদেশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন পরিচালক জানান, দেশের সমুদ্রসীমাকে আরো সরক্ষিত করার জন্য এই উদ্যোগকে সমর্থন করা হয়েছে। এই এলাকার জলসীমা ভূরাজনৈতিক কারণে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে আমাদের মত দেশগুলো সম্মিলিত ভাবেই ভূরাজনৈতিক প্রভাবের মোকাবেলা করতে পারে। একই সঙ্গে সমুদ্রসীমার নিরাপত্তাও রক্ষা করতে পারবে। বাংলাদেশ আগাশীতে পূর্ণ সদস্য পদ পেলে আরো কিছু বিষয় তখন এই জোটে যুক্ত করা যাবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত