প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মা’র পরকীয়া সহ্য করতে না পেরে হত্যাকাণ্ড, গ্রেপ্তার দুই

রাজু চৌধুরী :- [২] জেলার পটিয়া থানা এলাকার চাঞ্চল্যকর ‘‘নবী হোসেন’’ হত্যা মামলার রহস্য উদ্ঘাটন করে মাষ্টার মাইন্ড সহ ০২ (দুই) আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে পিবিআই, চট্টগ্রাম।

[৩] রোববার (৮ আগস্ট ) পিবিআই চট্টগ্রাম জেলা সূত্রে জানা যায়, এই চাঞ্চল্যকর হত্যা ঘটনার প্রায় ১০ মাস পর শনিবার মধ্যরাতে ১২ টা ৩০ মিনিটের দিকে প্রধান খুনি ও মামলার আসামি ছেলে আশরাফুল হক প্রকাশ সাব্বির (২৩) ও তার মা শিউলী বেগম (৪৫) কে আশুগঞ্জ উপজেলার সোহাগপুর গ্রামের একটি বাসা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

[৪] মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চট্টগ্রাম পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক মো. মনির হোসেন জানান, ২০২০ সালের ১৭ অক্টোবর সকাল অনুমান ১০:০০ টায় চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া থানাধীন মনসা আইডিয়াল স্কুলের পূর্ব-উত্তর পাশে ব্রীজ সংলগ্ল চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের পাশে একটি অজ্ঞাতনামা পুরুষ এর লাশ পড়ে আছে দেখে এলাকার লোকজন স্থানীয় পটিয়া থানায় সংবাদ দিলে পটিয়া থানার পুলিশ জঙ্গল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পকেটে থাকা আইডি কার্ড পেয়ে নিহতের পরিবারকে ভৈরব থানার মাধ্যমে খবর দেয়।

[৫] খবর পেয়ে তার ভাই কবির হোসেন চট্টগ্রাম গিয়ে ফিঙ্গার প্রিন্ট আইডেন্টিফিকেশন এন্ড ভেরিফিকেশন সিস্টেমের মাধ্যমে লাশ শনাক্ত করেন। এরপর কবির হোসেন বাদী হয়ে পটিয়া থানায় একটি দায়ের মামলা করে। মামলাটি তদন্ত করতে চট্টগ্রামের পিবিআইকে দায়িত্ব দেয়া হয়। পিবিআইয়ের পুলিশ পরিদর্শক মো. মনির হোসেন জানান তদন্তের দায়িত্ব গ্রহণ করে, পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার বিপিএম (বার), পিপিএম এর সার্বিক দিক নির্দেশনা এবং পিবিআই চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান এর নিবিড় তত্ত্বাবধানে পিবিআই এর একটি টিম বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে বিশ্বস্ত গুপ্তচর ও তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে শনিবার রাতে আশুগঞ্জের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মা-ছেলেকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়। খুন হওয়া নবী হোসেনের বাড়ি ভৈরব উপজেলার আগানগর গ্রামে এবং তার বাবার নাম মো. ইসমাইল।

[৬] শিউলির স্বামী আনোয়ার হোসেেন সৌদি আরব থাকার সুযোগে স্বামীর দূর সম্পর্কের আত্মীয় নবী হোসেনের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। পরে শিউলি স্বামীকে তালাক দিয়ে নবী হোসেনকে বিয়ে করেন। তার ছেলে সাব্বির মায়ের অসম প্রেম ও দ্বিতীয় বিয়ের ব্যাপারটি সহ্য করতে পারেননি তাই গত বছর ১৬ অক্টোবর কৌশলে মায়ের প্রেমিক নবী হোসেনকে দাওয়াতের কথা বলে একটি প্রাইভেটকারে তুলে কুমিল্লায় নিয়ে তাকে গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে এবং পায়ের রগ কেটে হত্যা করে।

[৭] তদন্ত কর্মকর্তা আরও জানান, রোববার হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী গ্রেপ্তারকৃত আসামী আশরাফুল হক প্রকাশ সাব্বির ও তদন্তে প্রাপ্ত আসামী শিউলী বেগম’দ্বয়কে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করলে তারা বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

[৮] বিজ্ঞ আদালতে কিভাবে নবী হোসেনকে গাড়ির ভিতর হত্যা করে পটিয়ার জঙ্গলে ফেলে পালিয়ে আসে সেই বর্ণনা দেন।
তাদের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি সূত্রে জানা যায়, গাড়িতে সাব্বিরের দুই বন্ধু তুষার (খুনের জন্য পূর্ব কন্ট্রাক্ট ৬০,০০০ টাকা) ও আশিক (খুনের জন্য পূর্ব কন্ট্রাক্ট ১৮,০০০) সহযোগিতা করে। তারপর লাশ চট্টগ্রামের পটিয়ার মনসা এলাকার একটি জঙ্গলে ফেলে তারা ভৈরব চলে যায়। চট্টগ্রাম আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে হত্যার ঘটনাটি স্বীকার করেন।

[৯] এভাবেই নবী হোসেনের খুনের ঘটনাটি উদঘাটন হয়। এই চাঞ্চল্যকর হত্যাকান্ডের ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত পলাতক অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত