প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] থাইল্যান্ডে করোনায় মৃতের ঠাঁই হচ্ছে না মর্গে, রাখা হচ্ছে কন্টেইনারে

মারুফ হাসান: [২] থাইল্যান্ডে করোনায় মৃতদেহ রাখার স্থান সংকুলান হচ্ছে না। তাই মৃতদেহগুলো রাজধানী ব্যাংককের একটি হাসপাতাল হিমায়িত কন্টেইনারে রাখতে শুরু করেছে। করোনায় এই ভয়াবহ মৃত্যু ২০০৪ সালে দেশটিতে আঘাত হানা ধ্বংসাত্মক সুনামির সময় ভয়াবহ স্মৃতিকে ফিরিয়ে আনছে। মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এমন ভয়াবহ পরিস্থিতির মুখোমুখি কখনই হয়নি দেশটি।

[৩] ব্যাংককের কাছের থাম্মাসাত ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের ১০ জনের একটি ফ্রিজার মর্গ দিনে ৭ জনের মরদেহের ময়নাতদন্ত করে। সাম্প্রতিক কভিড ঢেউয়ের কারণে বর্তমানে সেখানে তারা দৈনিক ১০ জনের বেশি মানুষের মরদেহের ময়নাতদন্ত করতে হচ্ছে।

[৪] শনিবার (৩১ জুলাই) থাইল্যান্ডে নতুন করে ১৮ হাজার ৯১২ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছেন ১৭৮ জন। এখন পর্যন্ত দেশটিতে করোনায় মোট আক্রান্ত ৫ লাখ ৯৭ হাজার ২৮৭ ও মৃতের সংখ্যা ৪ হাজার ৮৫৭ জন।

[৫] হাসপাতালের পরিচালক ফারুহাৎ তোর-উদোম রয়টার্সকে বলেছেন, হাসপাতালে পর্যাপ্ত পরিমাণ স্থান না থাকায় আমরা লাশ রাখার জন্য দু’টি কন্টেইনার কিনেছি। এই দু’টি কন্টেইনারের দাম প্রায় আড়াই লাখ বাথ বলে জানান তিনি।

[৬] তিনি আরো বলেন, অজ্ঞাত অন্তত ২০ জনের দেহ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে যাদের নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ এসেছে। এসব মরদেহ মর্গ এবং মেডিকেল কর্মীদের ওপর অতিরিক্ত চাপ তৈরি করেছে। শনিবারও একটি কন্টেইনারে বেশ কয়েকটি মরদেহ রাখা হয়েছে। যা তাদের স্বজনদের দ্বারা পরিচয় শনাক্ত করার জন্য রাখা হয়েছে।

[৭] হাসপাতালের এই কর্মকর্তা বলেন, যে বিষয়টি আমাদের অত্যন্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত করে তুলেছে তা হলো আমরা বিনা-চিকিৎসায় মারা যাওয়া লোকজনকে সাহায্য করতে পারিনি। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক মাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রত্যেক দিন হাজার হাজার মানুষ হাসপাতালে জায়গা না পেয়ে ফিরে যাচ্ছেন। রাজধানী ব্যাংকক এবং এর আশপাশের প্রদেশের হাসপাতালগুলোতে রোগীদের ধারণ ক্ষমতা ক্রমেই ফুরিয়ে আসছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত