প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রুমা মোদক: বেঁচে থাকা রোগীর ক্ষেত্রে কোভিডাক্রান্ত অবস্থার চেয়ে কোভিড পরবর্তী অবস্থা অধিকতর জটিল

রুমা মোদক: যা বোঝা গেলো, বেঁচে থাকা রোগীর ক্ষেত্রে কোভিডাক্রান্ত অবস্থার চেয়ে কোভিড পরবর্তী অবস্থা অধিকতর জটিল। শারীরিক, মানসিক, পারিবারিক, সামাজিক সব দিক থেকেই। শারীরিকভাবে আমি যখন জানি আমি করোনা পজেটিভ, তুমুল জ্বর আর নানাবিধ উপসর্গ যেমন মাথা ব্যাথায় মাথা তুলতে না পেরে, পেট উপড়ে আসা অরুচিতে নাক টিপে খেয়ে নিজেকে প্রবোধ দিয়েছি, এই তো মাত্র কয়েকটা দিন ভালো হয়ে যাবো…। সুস্থ দিনের অপেক্ষায় অসুস্থ দিন কাটানো খুব কঠিন হয় না। কিন্তু কোভিড পরবর্তী জটিলতা অসহনীয়। সবসময় মাথা ভার, খাওয়ায় অরুচি, ইনসোমোনিয়া, ক্লান্ত লাগা এ এক দুর্বিষহ অবস্থা। অথচ রিপোর্ট সহ সবাই বলছে, আমি সুস্থ।

করোনাক্রান্ত অবস্থায় নিজে কঠোর মনোবল ধরে রাখি, অন্যরাও সান্ত্বনা দেয়, এইতো কয়েকটা দিন সেরে যাবেন। কিন্তু করোনা সেরে গেলে ক্রমাগত দুর্বলতায়, শারীরিক অস্বস্তিতে কেউ মানসিকভাবেও পাশে থাকে না, সবাই ভাবে, সুস্থই তো হয়ে গেছে। পারিবারিকভাবে পজেটিভ অবস্থায় পরিবারসহ আত্মীয়-স্বজনদের যে খোঁজ খবর, দেখভাল ছিলো, নেগেটিভ হওয়া মাত্র সবাই হাত গুটিয়ে ফেলে। এমনকি ছেলেমেয়েরাও বায়না করে এটা-ওটা রেঁধে খাওয়াতে। অথচ আমার শারীরিক যন্ত্রণা শুধু আমিই জানি।

সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা তৈরি হয় সামাজিকভাবে। ঘরের গৃহকর্মী মেয়েটিকে বলেছি, নেগেটিভ হলে আসবি। এ কয়দিন আসার দরকার নেই। নেগেটিভ রিপোর্ট হাতে পেয়ে তাকে আসতে বললাম। এক’দুদিন কাজ করে যাবার পর তাকে সবাই সাবধান করছে, উনি তো করোনা রোগী। উনার বাসায় যাস কেন! একই ঘটনা পত্রিকাওলা সবজিওলা, দুধঅলা সবার ক্ষেত্রে। পজেটিভ অবস্থায় যাদের নিষেধ করেছি, তারা টের পায়নি কেন, নেগেটিভ হয়ে যখন আসতে বলছি, তখন পরোপকারী লোকজন তাদের নিষেধ দিচ্ছে আসতে। আর মানুষের স্বভাব গায়ে পড়া পরোপকারীর উপদেশ বেদবাক্য মনে করে মানা। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত