প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্রিজের কাজ শেষ না হতেই বিকল্প কাঠের সাঁকো ভেঙে দেয়ায় দূর্ভোগে দুই পারের মানুষ

অমল তালুকদার: [২] বরগুনার পাথরঘাটায় ১টি ব্রীজের অ্যাপ্রোচ সড়কের কাজ শেষ না হতেই বিকল্প কাঠের ব্রিজ ভেঙে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। ফলে দুই ইউনিয়নের বাসিন্দাদের পারাপারে এখন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

[৩] পাথরঘাটার চরদুয়ানী বাজার খাদ্য গুদাম সংলগ্ন কাঠালতলী ও চরদুয়ানী এই দুই ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ এই ব্রিজটি দিয়ে প্রতিদিন চলাচল করে আসছিল। বাজারের এই গুরুত্বপূর্ণ ব্রিজের কাজ শেষ না হতেই ঠিকাদারের প্রতিনিধি পরিচয়দানকারী ও তার সাথে কিছু স্থানীয় লোক ব্রিজের পাশের একমাত্র সংযোগ কাঠের বিকল্প সাঁকোটি ভেঙে নিয়েগেছে।

[৪] স্থানীয় জনগণ ও দোকানদারের কাছে জিজ্ঞাসা করলে তারা বলেন যে আমাদের এই নতুন ব্রিজের কাজ শুরুর সময় এই কাঠের সাঁকোটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান সরকারি খরচে করা হয়। করার সময় বলেছিল ব্রিজের কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাঠের সাঁকোটি থাকবে এবং তার মেয়াদ ছিল দুই বছর।

[৫] কিন্তু গত ৩০জুন বুধবার আগাম কোনো ঘোষণা ছাড়া-ই হঠাৎ ভেঙ্গে দেয়া হয় কাঠের পুল সদৃশ্য সাকোটি।সেইথেকে অদ্যাবদি পারাপারে দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে দুইপারের মানুষদেরকে।

[৬] স্থানীয় অপর এক ব্যবসায়ী বলেন, আমাদের প্রতিদিন এপার ওপার থেকে মালামাল আনানেওয়ার জন্য আমাদের এই কাঠের ব্রিজটি বিশেষ উপকার হত। প্রতি বাজারের দিন হাজার হাজর মানুষ এখান থেকে আসা যাওয়া করে। এখন নতুন ব্রিজের দুইপাশ থেকে কাঠের সিড়ির মতো দিয়েছে। যা অনেক উঁচু। ওই সিঁড়ি দিয়ে মালামাল আনানেওয়া ঝুঁকিপূর্ণ। শিশু-বৃদ্ধ এবং গর্ভবতী নারীরা ওঠানামা করতে পারে না এবং আমরা ব্যবসায়ীরা মালামাল আনা নেয়া অনেক কষ্ট হয়। মাঝে মাঝে অনেকে পরে যায়।

[৭] এ ব্যপারে স্থানীয় ঠিকাদার প্রতিনিধি মিরাজ আকনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ভাঙার অনুমতি নিয়েছি। এই ব্রিজটি আমরা-ই করেছি এবং আমার সাথে কথা ছিলো ব্রিজের কাজ শেষ হলে এটা আমরা নিয়ে যাবো। তাই কাজ শেষ হওয়ায় আমি ভেঙ্গে রেখে দিয়েছি।

[৮] এ ব্যাপারে পাথরঘাটা উপজেলা ইন্জিনিয়ার চন্দন কুমার চক্রবর্তীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,কাজ এখনো পুরাপুরি শেষ হয়নি। বিকল্প কাঠের সাঁকোটি কেনো ভাঙ্গাহলো আমি জানিনা । আমি ঠিকাদারের সাথে কথা বলেছি। পুনরায় সাঁকোটি মেরামত করে দেয়ার জন্য।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত