প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] যৌতুকের টাকা না পেয়ে জীবননগরে গৃহবধূকে নির্যাতন

জামাল হোসেন: [২] জীবননগর উপজেলার কালা গাঙপাড়ায় এক গৃহবধূর নিকট যৌতুকের দেড় লাখ টাকা দাবি করে তা না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে স্বামীর সহযোগিতায় ভাসুর ও তাদের পরিবারেরর লোকজন গৃহবধূর ওপর অমানসিক নির্যাতন চালিয়ে মাথার চুল কেটে ঘরে আটকিয়ে রাখার অভযোগ উঠেছে।

[৩] বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) বিকালে এ ঘটনাটি ঘটলেও নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ নার্গিস আক্তার(২৩) সুযোগ বুঝে শুক্রবার বিকালে পার্শবর্তী পিয়ারাতলা গ্রামে পিতার বাড়ীতে গিয়ে উঠলে ব্যাপারটি লোকজনের মধ্যে জানাজানি হয়। প্রতিবেশীরা গৃহবধূকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা করান।

[৪] এঘটনায় নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ নারগিস বাদী হয়ে শনিবার সকালে সকালে জীবননগর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।

[৫] নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ নার্গিস আক্তার উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের কালা গাঙপাড়ার আউলিয়ার স্ত্রী। তাদের পাঁচ বছরের দাম্পত্য জীবনে তিন বছর বয়সের আফরিন নামের এক কন্যা সন্তান রয়েছে।

[৬] গৃহবধূ নার্গিস আক্তারের অভিযোগ তার ভাসুর ওয়াজ করনি, জা শেফালি, রিপা খাতুন ও রোজিনাদের কুপরামর্শে স্বামী আউলিয়া তার নিকট বেশ কিছুদিন ধরে দু’লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছে। কিন্তু আমি তাদের বলি আমার শারীরিক প্রতিবন্ধী পিতা কোথায় পাবে এতো টাকা? তোমাদের তো কম দেয়নি। তারা যৌতুকের টাকা নিয়ে গত বৃহস্পতিবার বিকালে অত্যন্ত খারাপ আচরণ করতে খাকে। আমি প্রতিবাদ করাতে আমার ওপর তারা ক্ষিপ্ত হয়ে সবাই মিলে মারধর করে আমার মাথার চুল কেটে দেয়। তারা আমাকে ঘরের মধ্যে আটকিয়ে রাখে, যাতে ঘটনা কেউ জানতে না পারে। তারা এক সময় আমার সামনে দা নিয়ে হাজির হয় এবং শাসিয়ে বলে ঘটনার কথা কাউকে বললে রাতের আধারে আমাকে কেটে গাঙের মধ্যে ফেলে দেয়ার হুমকি দেয়। পরে আমি শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৪টার সময় বাড়ীতে কেউ না থাকার সুযোগে পালিয়ে বাবার বাড়ীতে গিয়ে ঘটনার কথা সবাইকে বলি। লোকজন আমাকে হাসপাতালে ভর্তি করেন। তারা সবাই যৌতুকের টাকার জন্য আমার সঙ্গে দজ্জালের মতো আচরণ করে।

[৭] অভিযুক্ত ভাসুর ওয়াজকরনি বলেন, আমাদের সঙ্গে গৃহবধূর মামলা চলছে। আমরা তাকে মারধর করব কেন? সে আসলে মামলায় সুবিধা নিতে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে। তবে তার স্বামী মারপিট করেছে কিনা জানি না।

[৮] মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার মুন্সী রিপন হোসেন বলেন, আমি ঘটনার কথা শুনেছি। ঘটনাটি মর্মান্তিক ও দুঃখজনক। অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

[৯] জীবননগর থানার অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম বলেন, ঘটনার ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সম্পাদনা: হ্যাপি

সর্বাধিক পঠিত