শিরোনাম

প্রকাশিত : ১২ জুন, ২০২১, ০৩:২১ দুপুর
আপডেট : ১২ জুন, ২০২১, ০৩:২১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

[১] চলনবিলে ৯ উপজেলায় নতুন পানিতে অবাধে ডিম ওয়ালা মাছ নিধনের উৎসব চলছে

জাকির আকন: [২] দেশের বৃহত্তম চলনবিলের তাড়াশ, সিংড়াসহ ৯টি উপজেলায় বর্ষা মৌসুম শুরু ও গত কয়েক দিনের বৃষ্টিপাতে কারণে নতুন পানিতে ভরপুর খাল ও ছোট নদীতে শিং, বোয়াল,শোল, টেংরা, পুঁটি সহ নানা রকম দেশী প্রজাতির ডিম ওয়ালা মা মাছ অবাধে নিধন উৎসব চলছে।

[৩] ছোট নদী ও খালের মুখে বাঁশের তৈরি বানার বেড়া দিয়ে মাছ চলাচলের পথ আটকিয়ে নানা রকম ফাঁদ পেতে এসব মা মাছ নিধন ও প্রকাশ্য স্থানীয় বাজারে বিক্রি হলে ও স্থানীয় প্রশাসনের এ ব্যাপারে কোনো অভিযান নেই।

[৪] সরজমিনে ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বর্ষায় মৌসুমে শুরুতেই ও গত কয়েক দিনের বৃষ্টিপাতের কারণে পানিতে ভরপুর খাল ও ছোট নদীতে শিং, বোয়াল, শোল, টেংরা, পুঁটি সহ নানা রকম দেশী প্রজাতির ডিম ওয়ালা মা মাছ দেখা দিয়েছে। মাছের প্রজনন মৌসুমের আষাঢ় মাস জুড়ে ডিম ছাড়ে এই মা মাছ এবং চলনবিলে নতুন পানিতে বংশ বিস্তারে প্রজনন চলছে। চলনবিল অধ্যুষিত তাড়াশ, সিংড়া, গুরুদাসপুর, চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, উল্লাপাড়া, বড়াইগ্রাম, বনওয়ারীনগর ফরিদপুরও শাহজদপুর উপজেলার স্বল্প পানির সব ছোট নদী ও খালের মুখে বাঁশের তৈরী বানার বেড়া দিয়ে মাছ চলাচলের পথ আটকিয়ে নানা রকম ফাঁদ পেতে এসব মা মাছ নিধন করছে এক শ্রেণীর মানুষ।

[৫] সরেজমিনে গিয়ে সিংড়া-বারুহাস রাস্তা সংলগ্ন তিশি খালী খালের ব্রীজে দেখা যায় এক মৎস্যজীবি মাছ চলাচলের সর্ম্পূণ পথ আটকিয়ে মা মাছ নিধন করছেন। সিংড়া উপজেলার ডাহিয়া গ্রামের ব্রীজের নীচে, তাড়াশ উপজেলা চলনবিলের মহাসড়কের ৯নং ও ১০নং ব্রীজ সহ বিভিন্ন খালে একই কায়দায় মাছ নিধন করছেন মৎস্যজীবিরা।

[৬] মৎস্যজীবিরা জানায়, বিলের নীচু খালে নতুন পানি আসায় মাছ ধরা পড়ছে প্রচুর। তাই তারা মাছ শিকার করছেন।

[৭] ডাহিয়া বাজারের হোমিও চিকিৎসক মোঃ আবু কাওছার ও বেড়াবাড়ি গ্রামের মোঃ আনোয়ার হোসেন জানান, বন্যা আসার এই আগ মৌসুমে বেড়াবাড়ির খালেও ধুন্দি, বিত্তি, কারেন্টজাল সহ নানা ফাঁদ পেতে মাছ ধরা হয় প্রতিবছর।

[৮] তাড়াশ উপজেলা নাদোসৈয়দপুর গ্রামে গত শুক্রবার এক মৎসজীবি ১০ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ ধরেছে ।

[৯] হামকুড়িয়া গ্রামের মোঃ জহুরুল ইসলাম মাষ্টারসহ অনেকেই জানান, বিলের খালে অবাধে বড় বড় বোয়াল মাছও ধরা গড়ছে এবং স্থানীয় বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হচ্ছে ।

[১০] মৎসশিকারী রাশেদুল (৩০) জানান ,আষাঢ় মাসে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি নামলে সাধারণত মা বোয়াল মাছ ডিম ছাড়তে পানির ধারে উঠে আসে। আর এই সুযোগে এক শ্রেণীর মানুষ দলবেঁধে জোঁত কুঁচ, পালা সহ নানা ফাঁদ দিয়ে এই মা বোয়াল মাছ নিধন উৎসবে মেতে উঠে।

[১১] পরিবেশ ও প্রকৃতি আন্দোলনের সভাপতি মোল্লা মোঃ এমরান আলী রানা বলেন, এই সময়ে ডিমওয়ালাসহ মাছ নিধন বন্ধ হওয়ার কথা থাকলে দেশী প্রজাতির অভয়ারণ্য চলনবিলে এই সময়ে মা মাছ নিধন বন্ধ করার জন্য মৎস্য অধিদপ্তর,প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট সকলের এবিষয়ে নজরদারি নেই।

[১২] সিংড়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য অফিসার মোঃ শাহাদত হোসেন বলেন, চলনবিল সহ মিঠা পানির মা মাছ রক্ষায় ইতোমধ্যে আমরা ৫টি অভিযান পরিচালনা করেছি। আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। সম্পাদনা: হ্যাপি

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়