প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্যবসায়িক স্বার্থের জন্যই টিকা আসতে প্রতিবন্ধকতা তৈরি হয়েছে: ডা. জাহেদ উর রহমান

মিনহাজুল আবেদীন: [২] বুধবার (০৯ জুন) যমুনা টিভির টকশোতে নাগরিক ঐক্যর কেন্দ্রীয় নেতা ডা. জাহেদ উর রহমান বলেন, আমরা টিকা আনতে গেলেও অনেক পেছনে পড়ে গেছি। শ্রীলঙ্কা, নেপাল, মালদ্বীপ বাদেও ফিলিপাইন সরকার সরাসরি সেরামের কাছ থেকে টিকা কিনেছে। তারা সরাসরি সরকারের সঙ্গে চুক্তি করেছে, কেউই একটি মাত্র সোর্সের ওপর নির্ভর করেনি।

[৩] ডা. জাহেদ উর রহমান বলেন, কোভিডের টিকা কেনার ক্ষেত্রে সময়মতো কারো সঙ্গে কথা বলা হয়নি। টিকা কেনার ক্ষেত্রে মাঝে কোনও কোম্পানি রাখতে হয়। এটি অনিবার্য কোনও শর্ত ছিলো না। বাংলাদেশ বর্তমানে দুটো টিকা উৎপাদনের অনুমতি পেয়েছে। একটি সিনোফার্ম অন্যটি সিনোভ্যাক। সিনোভ্যাক দেশে থার্ড ট্রয়াল করতে চেয়েছিলো কিন্তু তা মাসের পর মাস ঝুলিয়ে রাখার কারণে বিরক্ত হয়ে তারা চলে গেছে।

[৪] তিনি বলেন, বাংলাদেশের টিকাদান কর্মসূচি ইপিআই’এর জন্য সারাবিশে^ সম্মানিত দেশে পরিণত হয়েছি। সব দেশই বাংলাদেশের পদ্ধতি অবলম্বন করার চেষ্টা করেছে।

[৫] ডা. জাহেদ বলেন, কোল্ড চেইনমেইন্টস করলে আমরা প্রতি বছরই সব জায়গা টিকা ছড়িয়ে দিতে পারতাম। কিন্তু মাঝে একটি কোম্পানির কারণেই রাশিয়া ও চীনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা সম্ভব হয়নি। তার মাশুল এখন আমাদের দিতে হচ্ছে। এখন বাংলাদেশে মানুষের মাঝেও টিকা পৌছে দেয়া নিয়ে সংশয় রয়েছে।

[৬] তিনি বলেন, বর্তমান সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। সীমান্তের জেলাগুলোতে ভারতের ডেল্টা ভেরিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়েছে। যা জনমনে আতঙ্ক তৈরি করেছে।

[৭] তিনি আরও বলেন, আমরা এখন চরমতম বিপদের মুখোমুখি হতে যাচ্ছি। টিকা না থাকার কারণে ঝুঁকিপূর্ণ মানুষগুলোর জন্য ২-৩ মাসের মধ্যে টিকা পাওয়া সম্ভব না। সামনে নতুন ঢেউ আসছে, আমরা সেই ভুলের মাশুল দিতে যাচ্ছি। সম্পাদনা: রাশিদ

 

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত