প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুনমুন শারমিন শামস্: নারী নির্যাতনের বীভৎস রূপ চোখে দেখার পরও মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ দায়ের ও মামলা করা পর্যন্ত অপেক্ষা কেন করতে হবে?

মুনমুন শারমিন শামস্: বিষয়টা গুরুতর। পুলিশ টিকটক হৃদয় বাবুকে আইডেন্টিফাই করেছে। সে এখন ভারতের পুনেতে আছে। ভিক্টিম মেয়েটা আছে গুজরাটে। হৃদয় বাবুর বাসা ঢাকার মগবাজারে। মেয়েটিও মগবাজারের বাসিন্দা। ভিক্টিম ও আসামি বাবুর পরিবারকে সনাক্ত করা গেছে। এখন কথা হলো, পুলিশ বলছে, মেয়েটির পরিবার যদি অভিযোগ দায়ের করে, তাহলে পুলিশ মামলা করবে। কিন্তু এখানে মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ করা পর্যন্ত অপেক্ষা কেন করতে হবে, সেটি আমার বোধগম্য না। একটি ভয়ংকর যৌন নির্যাতনের ভিডিও প্রমাণসহ জনসমক্ষে আছে, অপরাধী সনাক্ত হয়েছে, ভিক্টিম কে জানা গেছে, তাহলে রাষ্ট্র কেন স্বপ্রণোদিত হয়ে মামলা করবে না?

নারী নির্যাতনের এই বীভৎস রূপ চোখে দেখার পরও মেয়েটির পরিবারের অভিযোগ দায়ের ও মামলা করা পর্যন্ত অপেক্ষা কেন করতে হবে? আমরা এই ভয়ংকর অপরাধী চক্রের শাস্তি চাই। কঠিনতম শাস্তি। এর জন্য ভিক্টিম মামলা করলো কী করলো না, সেটির জন্য অপেক্ষা করার কোনো কারণ নেই। পুলিশের উচিত দ্রুত মামলার উদ্যোগ নেওয়া এবং অপরাধীদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করা। সেই সঙ্গে ভিক্টিম মেয়েটিকেও তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে নিয়ে আসার উদ্যোগ নেওয়া। মানবাধিকার সংস্থা, মানবাধিকার কর্মীদের প্রতি অনুরোধ, আপনারা প্লিজ নড়েচড়ে বসুন এই ঘটনায়। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত