শিরোনাম
◈ বনশ্রীতে জুতার কারখানায় আগুন, নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের ৪ ইউনিট ◈ যড়যন্ত্র না থাকলে পদ্মা সেতুতে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ হলো কেন, প্রশ্ন হাইকোর্টের ◈ শিমুলিয়া ঘটে প্রায় ২০০ বাইক নিয়ে ছাড়লো ফেরি ◈ ‘সুপ্রিম কোর্টের ১২ বিচারপতি করোনায় আক্রান্ত’ ◈ প্রথম ১৫ ঘণ্টায় পদ্মা সেতুতে আয় দেড় কোটি টাকা ◈ বিশ্ব গণমাধ্যমে পদ্মা সেতু: জাতির গর্ব ও সামর্থ্যের প্রতীক  ◈ পদ্মা সেতুর জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে এশিয়ার ৫ দেশ ◈ নাশকতাই ছিলো পটুয়াখালী ছাত্রদল কর্মী বাইজীদের উদ্দেশ্য: সিআইডি ◈ জাতিসংঘে র‌্যাপোটিয়ারের দাবি অর্থহীন: তথ্যমন্ত্রী ◈ খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে বাসভবনে দুই নাতনি

প্রকাশিত : ২৭ মে, ২০২১, ১০:০১ দুপুর
আপডেট : ২৭ মে, ২০২১, ১০:০১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে কাঁঠালের বীজ

ডেস্ক নিউজ: করোনাভাইরাসের সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে এমন খাবারের চাহিদা বেড়েছে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে এমন একটি সহলভ্যফল হলো কাঁঠাল। কাঁচা অবস্থায় এটি তরকারি হিসেবেও খাওয়া যায়। পুষ্টিবিদদের মতে, প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁঠালে খাদ্য-আঁশ থাকে দুই গ্রাম, শর্করা ২৪ গ্রাম, চর্বি দশমিক ৩ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩৪ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ৩৭ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ৩০৩ মিলিগ্রাম, ভিটামিন এ ২৯৭ আইইউ ও ভিটামিন-সি ৬ দশমিক ৭ মিলিগ্রাম।

কাঁচা কাঁঠাল রোগব্যাধি উপশমে যেমন কার্যকর, অন্যদিকে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়িয়ে দেয় অনেক গুণ। এমনকি কাঁঠালের বীজেও আছে শর্করা। তবে বেশি খেয়ে ফেললে হজমে গোলযোগ হতে পারে। যাদের ডায়াবেটিস আছে, তাদের কাঁঠাল খাওয়ায় খানিকটা বিধিনিষেধ আছে। এ ছাড়া কিডনি রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে যাঁদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি, তাদের কাঁঠাল না খাওয়াই ভালো।

সেলিব্রিটি পুষ্টিবিদ রুজুতা দিবাকরও জানিয়েছেন, কাঁঠালের বীজ থেকে সহজেই বাড়ানো যায় শারীরিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা। শুধু রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি নয় কাঁঠালের বীজে আছে আরও অনেক গুণাগুণ। কাঁঠালের বীজে ভিটামিন, জিঙ্ক, খনিজ পদার্থ থাকে যা মানব দেহের টিস্যুকে শক্তিশালী করে।

মানবদেহে সাধারণভাবেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে। যা সব রকম ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। নিত্যনৈমিত্তিক খাদ্যাভ্যাস ও অনিয়ন্ত্রিতভাবে জীবনযাপনের জন্য এই প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। তাই সঠিক সময়ে খাদ্যাভ্যাস গড়ে তোলা ও নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের বিষয়ে সবাইকে সচেতন হতে হবে।বাংলাদেশ প্রতিদিন

  • সর্বশেষ