প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মে দিবসে শ্রমিকদের ৬ সুবিধা বাস্তবায়নে মালিকদের প্রতি আহ্বান

শরীফ শাওন: [২] সকল শিল্প কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠানে কর্মদিবস ৮ ঘন্টা করতে হবে। শ্রমক আইনের কর্মঘন্টা ও ওভারটাইম বিষয়ে স্থগিত প্রজ্ঞাপন বাতিল করতে হবে। ২০ রোজার আগে সকল পাওনা পরিশোধ করতে হবে। শ্রমিক ছাঁটাই-নির্যাতন ও হয়রানি বন্ধ করতে হবে। লকডাউন চলাকালে শ্রমিকদের ফ্রি টেস্ট, ভ্যাকসিনসহ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। পূর্ণ রেশনিং ব্যবস্থা এবং অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার বাস্তবায়ন করতে হবে।

[৩] শুক্রবার গার্মেন্টস শ্রমিক অধিকার আন্দোলনের বিবৃতিতে নেতারা বলেন, মহান মে দিবসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রাম ও আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে ৮ ঘণ্টা কর্ম দিবসের অধিকার অর্জিত হওয়ার পরেও তা আমাদের দেশে বাস্তবায়িত হচ্ছে না। এখনও গার্মেন্টসসহ বিভিন্ন শিল্প-কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠানে শ্রমিকদেরকে নানা অজুহাতে ১২ থেকে ১৬ ঘণ্টা কাজ করানো হয়। যেখানে শ্রমিকদের জীবনীশক্তি ও উৎপাদন সক্ষমতা রক্ষার জন্য ৮ ঘণ্টা কর্মদিবস বাস্তবায়ন করা জরুরি, সেখানে উল্টো সরকার বাংলাদেশ শ্রম আইনের ৩২৪ ধারার ক্ষমতার অপব্যবহার করে গত ১৩ এপ্রিল একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। এই প্রজ্ঞাপনে ১৭ এপ্রিল ২০২১ থেকে পরবর্তী ছয় মাসের জন্য কর্মঘণ্টা ও ওভারটাইম ভাতা সংক্রান্ত ধারার (১০০, ১০২, ১০৫) প্রয়োগ স্থগিত ঘোষণা করা হয়। এর ফলে শ্রমিকরা আগের থেকে আরও বেশি করে শোষণ-বঞ্চনা ও হয়রানির শিকার হবেন। বর্তমান করোনাকালে এই ঘোষণা শ্রমিকদের জীবন আরও বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ও নিরাপত্তাহীন করে তুলবে।

সর্বাধিক পঠিত