প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এক ভীষণ ‘মানবিক’ খুনির গল্প!!(ভিডিও)

ডেস্ক রিপোর্ট :  চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় আজিজুল হক (২৬) নামে এক ট্রাকচালককে অপহরণের পর হত্যা করে লাশ গুমের ঘটনার রহস্য উন্মোচন এবং ওই চালকের অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনার এক মাস পর শনিবার (২৪ এপ্রিল) গভীর রাতে উপজেলার একটি ডোবার তলদেশের মাটি খুঁড়ে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

সহকারী পুলিশ সুপার (রাউজান-রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে ফেসবুকে একটি (উদ্ধারের ভিডিওসহ) পোস্ট দেন। ইতোমধ্যে পোস্টটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। আমাদেরসময়.কমের পাঠকদের জন্য হুবহু পোস্টটির লিঙ্কসহ নিচে দেওয়া হলো:

গাড়ি চালনারত অবস্থায় থাকা বন্ধু আজিজুলের মাথায় লোহার রেঞ্জ দিয়ে আঘাতের পর পেটে ছুরি ঢুকিয়ে দেয় নেজাম। অনেকদিন ধরে তার সন্দেহ, তার স্ত্রীর সাথে পরকীয়া প্রেমে লিপ্ত আজিজুল। সেই অপরাধের উপযুক্ত বিহিতব্যবস্থাই নেওয়া হলো আজ। মৃত্যু নিশ্চিত হবার পর নেজাম হাটু গেড়ে বসে লাশের দুই হাত ধরে তাকে খুন করার জন্য ক্ষমাও চেয়ে নেয়। এমনও তো হতে পারে, তার সন্দেহটি ছিল মিথ্যে। যা হোক, যা হবার তা তো হয়েই গেছে। এবার মৃতদেহ সৎকারের পালা। যত কিছুই হোক, তারা দুইজন বন্ধুই তো! নিজে মেরেছে বলে তো আর বন্ধুর লাশ যেনতেন প্রকারে মাটিতে পুঁতে ফেলতে পারে না নেজাম! ধর্মীয় বিধিবিধান বলেও তো একটা কথা আছে! লাশটা ডোবার পাড়ে এনে সে একাই জানাযা নামাজে দাঁড়িয়ে যায়। সে-ই ইমাম, সে-ই মুসল্লি।

জানাযা শেষে ‘বিসমিল্লাহি আলা মিল্লাতে রাসুলিল্লাহ’ দোয়া পড়তে পড়তে ডোবার কাদামাটির নিচে কবর দেওয়ার মতো করে লাশটা গুম করে ফেলে নেজাম। যাক স্বস্তির নিশ্বাস! ধর্ম রক্ষা, পাশাপাশি হত্যার দায় থেকেও চিরমুক্তি। সবাই এখন জানবে, শুধু আজিজুলকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। আর এই জানাটাই হয়তো চিরদিনের একমাত্র ‘জানা’ হয়ে থাকতো, যদি আমরা টিম রাঙ্গুনিয়া এই ঘটনার রহস্য উদঘাটন করার জন্য আদাজল খেয়ে না লাগতাম। বলতে গেলে কোন ক্লু-ই পেছনে রখেনি অত্যন্ত ধূর্ত এই অভিযুক্ত খুনি নেজাম। আমরা খাবি খেতে খেতে দিনের পর দিন পার করি, কোন কূল কিনারা পাওয়া যায় না।
অবশেষে ১ মাসের মাথায় এসে ধৈর্যের মিঠা ফল প্রাপ্তি। প্রযুক্তিনির্ভর ও নিরবিচ্ছিন্ন তদন্তে আমরা নিশ্চিত হতে পারি যে, আজিজুল আহলে অপহৃত হননি বা হারিয়ে যাননি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। এটাও জানতে পারি, আজিজুলের বন্ধু নেজামই এই হত্যাকাণ্ডের মেইন মাস্টারমাইন্ড। অত:পর প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে গতকাল নেজামকে গ্রেপ্তার এবং তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী গভীর রাতে ওই ডোবা থেকে আজিজুলের অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার!

অভিযান শেষে বাসায় ফেরার পর থেকে এখনো পর্যন্ত তিন-চার বার গোসল হয়ে গেলেও ডোবার পঁচা পানির কারণে গা এখনো চুলকাচ্ছে। আমি জীবনেও এমন ভয়ানক ডোবায় আর দ্বিতীয়বার নামতে চাই না। যা হোক, গা চুলকাতে চুলকাতে বলছি, আজ আমার ভীষণ মন ভাল। লকডাউন না থাকলে সেলিব্রেশন করতে রাতে বাইক রেসেই বের হতাম শিওর!
Md. Anwar Hossan Shamim
সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি)
রাঙ্গুনিয়া সার্কেল, চট্টগ্রাম।

পোস্টটির লিঙ্ক

 

 

সর্বাধিক পঠিত