প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যে কারণে বুকে পিস্তল ঠেঁকিয়ে পুলিশ কর্মকর্তার ছেলের আত্মহত্যা

নিউজ ডেস্ক : মুশফিকুল হক মাহিন। বয়স মাত্র ১৮ বছর। ছাত্র হিসেবে ছিল যথেষ্ট মেধাবী। চট্টগ্রামের পুলিশ লাইন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেছে ছেলেটি। আজ শুক্রুবার (২ এপ্রিল) মেডিকেল ভর্তির পরীক্ষার্থী ছিলো সে। অথচ, আজই ঘটে গেলে এক ভয়াবহ রকমের ঘটনা। পড়াশোনার জন্য পুলিশ কমকর্তা বাবার বকা সহ্য করতে না পেরে জেদের বসে পিস্তল নিজ বুকে ঠেঁকিয়ে বড়ই অসময়ে চলে যেতে হলো তাকে!

এমন ঘটনায় তার পুরো পরিবারে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। বকা দেওয়া পুলিশ কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) মহিম উদ্দিন তার ছেলের জন্য হাউমাউ করে কেঁদে চলছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আজ শুক্রবার (২ এপ্রিল) দুপুরে বন্দর নগরীর আকবরশাহ এলাকায় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) এসআই মহিম উদ্দিনের বাসায় এ ঘটনা ঘটে।

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, এসআই মহিম উদ্দিন দুপুরে জুমার নামাজের জন্য মসজিদে গেলে ছেলে মাহিন ঘরের দরজা বন্ধ করে বাবার পিস্তল দিয়ে নিজের বুকে পিস্তল ঠেঁকিয়ে নিজেই গুলিবিদ্ধ হন।

সিএমপি পাহাড়তলী জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) আরিফ হোসেন বলেন, গুলির শব্দ শুনে পরিবারের সদস্যরা দরজা ভেঙে রুমে ঢুকে গুলিবিদ্ধ ও রক্তাক্ত অবস্থায় মাহিনকে উদ্ধার করে। পরে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা মাহিনকে মৃত ঘোষণা করেন। প্রাথমিক তদন্তে এটি আত্মহত্যা বলে আমরা ধারণা করছি।

সিএমপির ডেপুটি কমিশনার (ডিসি-পশ্চিম) আবদুল ওয়ারিশ মাহিনের পরিবারের বরাত দিয়ে বলেন, আকবরশাহের শাপলা আবাসিক এলাকার মিরপুর আবাসিক এলাকার পানির ফ্যাক্টরির পাশে এসআই মহিম উদ্দিনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। মহিম দুপুরে ডিউটি শেষে বাসায় ফিরে ছেলে মাহিনকে পড়াশোনা নিয়ে বকা দেন। পরে তিনি জুমার নামাজ আদায় করার জন্য মসজিদে চলে যান। এরপরই ছেলে মাহিন রুমের দরজা বন্ধ করে তার বাবার সার্ভিস পিস্তল দিয়ে নিজেকে গুলিবিদ্ধ করেন।

এসআই মহিমের সার্ভিস পিস্তল ও গুলি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু (ইউডি) মামলা হবে বলে জানান আকবরশাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহির হোসেন।

সর্বাধিক পঠিত