প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে সূর্যমুখী চাষে ভাগ্য বদলানোর স্বপ্ন দেখছেন কৃষকেরা

শেখ সাইফুল ইসলাম: [২] দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বাগেরহাটসহ ১০ জেলায়এ বছরসূর্যমুখী ফুল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে কৃষকরা। কৃষকদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য বিনামূল্যে বীজ ও সার সরবরাহ করেছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। সূর্যমুখীর বাম্পার ফলন গ্রামীণ অর্থনীতিতে সম্ভাবনার হাতছানি দিচ্ছে।

[৩] কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র জানায়, সূর্যমুখী ফুল সারা বছর চাষ করা যায়। তবে অগ্রহায়ন মাসের মধ্য থেকে চাষ করলে এর ভালো ফলন পাওয়া যায়। সুজামের বাগানে ইন্ডিয়ান প্যাসিফিক হাইসান-৩৩ জাতের সূর্যমুখী ফুল রোপন করা হয়েছে। ফুলের ব্যাস ২১.৩ সেন্টিমিটার। উচ্চতা ৯০ সেন্টিমিটার থেকে ১১০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত । ফুলের দানা ১৩০০ শ এবং ফলন একর প্রতি ৩৫ থেকে ৩৬ মণ।

[৪] সূর্যমুখীর বীজ যন্ত্রে মাড়াই করে তেল বের করা হয়। তেলের উৎস হিসেবে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সূর্যমুখীর ব্যাপক চাষ হয়। সমভূমি এলাকায় শীত ও বসন্তকালে, উঁচু লালমাটি এলাকায়, বর্ষাকালে ও সমুদ্রক‚ লবর্তী এলাকায় শীতকালীন শস্য হিসাবে চাষ করা হয়। ১৯৭৫ সাল থেকে সূর্যমুখী একটি তেল ফসল হিসেবে বাংলাদেশে চাষ করা হচ্ছে।

[৫] সূর্যমুখীর তেল ঘিয়ের বিকল্প হিসেবে ব্যবহৃত হয়। এই তেল অন্যান্য ভোজ্য তেল থেকে ভাল এবং হৃদরোগীদের জন্য বেশ উপকারী। এতে কোলেস্টরলের মাত্রা অত্যন্ত কম। এছাড়া এতে ভিটামিন এ, ডি ও ই রয়েছে। এর বীজ হাস মুরগির খাদ্যরূপে ও তেলের উৎস হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

[৬] বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার মোরেলগঞ্জ ইউনিয়নের ভাইজোড়া গ্রামের ফুল চাষি কৃষক হবিবুর রহমানএর সাথে কথা বললে তিনি জানান, প্রথমবারের মতো জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ শুরু করেছেন। সূর্যমুখী ফুলের বাম্পার ফলনের আশা করছেন হবিবুর রহমানসহ বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে কৃষকরা।

[৭] কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের প্রোণোদনার মাধ্যমে হবিবুর রহমান এ বছর ১ বিঘা জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করছে। অন্য ফসলের চেয়ে কম পরিশ্রমে বেশি আয় হয় জানিয়ে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন বুনছেন কৃষকহবিবুর রহমান। ইতোমধ্যেই সূর্যমুখী গাছে ফুল এসেছে। অল্প সময়ে কম পরিশ্রমে ফসল উৎপাদন ও ভালো দাম পাওয়া যায় সেজন্য সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছেন। প্রতি বিঘা জমিতে খরচ মাত্র ৫ হাজার টাকা হবে। মাত্র ৮৫ থেকে ৯০ দিনের মধ্যে বীজ বপন থেকে শুরু করে উৎপাদন করা সম্ভব। প্রতি বিঘাতে খরচ বাদ দিয়ে ১৩থেকে ১৮ হাজার টাকা লাভ হওয়ার সম্ভবনা। যা অন্য কোন ফসলের চেয়ে কম পরিশ্রমে ভালো আয়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে আশা করছেন ভালো আয় হবে।

[৮] মোরেলগঞ্জ উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ সিফাত-আল-মারুফ বলেন, সূর্যমুখী ফুল আমাদের মোরেলগঞ্জ উপজেলায় তেমন চাষ হয়না তবে এবার উপজেলার প্রত্যান্ত ইউনিয়নে অল্প অল্প করে ৬০ হেক্টর জমিতে সূর্যমুখী চাষ হয়েছে। সূর্যমুখী চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করতে বিনামূল্যে বীজ ও সার দেওয়া হয়েছে। প্রতি বিঘা জমিতে ছয় থেকে ৭ মণ সূর্যমুখী ফুলের বীজ পাওয়া যাবে। সূর্যমুখী ফুলের চাষ করলে ফুল থেকে তৈল, খৈল ও জ্বালানি পাওয়া যায়। এই তেল সর্বনিম্ন বাজার মূল্য ২৫০টাকা। কৃষকদের স্বাবলম্বী করতেই সূর্যমুখী ফুল চাষে উৎসাহিত করা হচ্ছে। যদি সফল হওয়া যায় তা হলে আগামীতে সূর্যমুখী ফুল চাষ বেড়ে যাবে।

[৯] সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাকির হোসাইন জানান, সূর্যমুখী ফুল থেকে পাখির খাবারের পাশাপাশি কোলেস্টেরল মুক্ত তেল উৎপাদন করে ক্ষতিকর পাম অয়েল ও সয়াবিনের স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে রক্ষা পাবে মানুষ। চলতি বছরে কৃষক হবিবুর রহমান সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছেন। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে কৃষকদের বিনামূল্যে সূর্যমুখীর বীজ, সার ও আন্ত-পরিচর্যার জন্য উপকরণ ও অর্থ সহায়তা দেয়া হয়েছে। সূর্যমুখী চাষে কৃষকরা আরো আগ্রহী হবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। সম্পাদনা: হ্যাপি

 

সর্বাধিক পঠিত