প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গোয়ালন্দে প্রতিরোধ যুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য নির্মাণ কাজের উদ্বোধন

কামাল হোসেন: [২] রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ২৫ মার্চ বৃহস্পতিবার ১৯৭১ সালের ২১ এপ্রিল প্রতিরোধ যুদ্ধের স্মৃতি ভাস্কর্য নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রধান অতিথি হিসাবে ভাস্কর্য নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন রাজবাড়ী জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকীর আব্দুল জব্বার।

[৩] উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের বাহাদুরপুর কালুর মোড় মরা পদ্মা নদীর কোল ঘেষে প্রতিরোধ যুদ্ধের স্হানে এ নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হয়।রাজবাড়ী জেলা পরিষদ এতে প্রাথমিক অর্থায়ন করছে। প্রয়োজনীয় জমি দান করেছেন স্হানীয় বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক ইউসুফ আলী শেখ। ভাস্কর্যের প্রাক্কলিত ব্যায় ধরা হয়েছে ১৬ লক্ষ টাকা।

[৪] অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র নজরুল ইসলাম মন্ডল, রাজবাড়ী জেলা রেড ক্রিসেন্টের সাধারন সম্পাদক শামিমা আক্তার মুনমুন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ ইউনুস মোল্লা, জেলা পরিষদের সদস্য নুর-জাহান বেগম, মুক্তিযোদ্ধা আবুল বাশার মিয়া, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা।
অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গোয়ালন্দ সম্মুখ যুদ্ধ ও প্রতিরোধ স্মৃতি মুক্তিযোদ্ধা ভাস্কর্য পরিষদ এর আহবায়ক ইন্জিনিয়ার জুয়েল বাহাদুর।

[৫] অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন রনি, ইন্জিনিয়ার ফকির আব্দুল মান্নান,স্হানীয় ইউপি সদস্য মো. সেলিম খাঁন সলিম, মফিজুল ইসলাম তানসেন গোয়ালন্দ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শামীম শেখ প্রমূখ।

[৬] অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এবং প্রতিরোধ যুদ্ধের যোদ্ধা ফকির আব্দুল জব্বার বলেন, আমরা সেদিন জীবন বাজি রেখে শক্তিশালী পাক বাহিনীকে প্রতিরোধ করোছিলাম। যুদ্ধে আমার চাচা আনছার কমান্ডার ফকির মহিউদ্দিন শাহাদাৎ বরন করেন। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি আরো বলেন, আমার যুদ্ধ এখনো শেষ হয়নি। জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত ঘুষ, দুর্নিতি সন্ত্রাস ও ক্ষুধামুক্ত দেশ গড়ার জন্য আমি আমার যুদ্ধ চালিয়ে যাব।

[৭] এ সময় তিনি মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে নিজেদেরকে উজ্জীবিত করে দেশ গড়ার কাজে নিজেদেরকে প্রস্তুত করার জন্য তরুণদের প্রতি আহবান জানান। তিনি তরুণদের এ প্রজন্মের মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে অভিহিত করেন। সম্পাদনা: সাদেক আলী

সর্বাধিক পঠিত