প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সুব্রত বিশ্বাস:  সংগঠিত দলীয় রাজনীতি জরুরি

সুব্রত বিশ্বাস: অর্থনৈতিক সমতার সন্ধান, সর্বজনীন উন্নয়নের ভিত্তি সে আদর্শকে প্রতিষ্ঠা করতে পারলে, তবেই গণতন্ত্রের মুক্তির পথে অগ্রসর হওয়া সম্ভব। সংকীর্ণ ও অসহিষ্ণু রাজনীতির উদার ধর্মনিরপেক্ষ রাজনীতিকে বলিষ্ঠ প্রত্যয়ে জনসাধারণের সামনে পেশ করতে না পারবার সঙ্কট দায় শুভবুদ্ধিসম্পন্ন সমস্ত ব্যক্তি, গোষ্ঠী এবং রাজনৈতিক দল-সহ, প্রতিষ্ঠানের। সেই দায় স্বীকার করে যথার্থ উদার সহিষ্ণুতার আদর্শকে তুলে ধরতে পারলে, তবেই গণতন্ত্রের মুক্তির পথে অগ্রসর হওয়া সম্ভব। এর একাধিক কারণ, যেমন জাতীয় স্তরে প্রতিস্পর্ধী নেতৃত্বের অনটন, বিভিন্ন বিরোধী দলের পারস্পরিক সমন্বয়ের অভাব, দলনেতাদের অনেকেরই নিজস্ব উচ্চাকাক্সক্ষা, ইত্যাদি। এই ঘাটতির গভীরে নিহিত রয়েছে মৌলিক সঙ্কট। এই পরিস্থিতি গণতন্ত্রের পক্ষে স্বস্তির কারণ হতে পারে না।

নাগরিক সমাজের একাংশ, বিশেষত মানবাধিকারের সুরক্ষায় দায়বদ্ধ কিছু সংগঠন। সংগঠিত দলীয় রাজনীতি জরুরি। বিরোধী শিবির? শাসকের অন্যায়ের প্রতিবাদ যাদের প্রথম কর্তব্য? তারা অন্ধকারে কী করছে? দলের বহুলপ্রচারিত জনসংযোগ ও সংগঠন থাকা সত্ত্বেও প্রশাসনের উপর চাপ সৃষ্টির বা আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াবার প্রত্যাশিত উদ্যোগ দেখা যায় না  বিরোধীদের। বাস্তব পরিস্থিতির উপর নানা দিক হতে নতুন আলো পড়ছে। সমাজ, রাজনীতি, প্রশাসন, এমনকি আদালত বিভিন্ন ক্ষেত্র বা প্রতিষ্ঠানের যে বহুমাত্রিক স্বরূপ এই আলোকে উদ্ভাসিত হউক রাজনীতি, তাতে অল্প ভরসা এবং বিস্তর আশঙ্কা, কারণ...দুষ্টের দমনে প্রশাসনের বিপুল অনাগ্রহের পাশেই স্বাভাবিক মানবিকতার ছবি, আবার অন্যায়ের প্রতিকারের সুচেষ্টায় উদ্যোগী সহৃদয় তৎপরতায় দায়বদ্ধ কিছু সংগঠন, ভরসা...সংশয়ের নিরসন হবে, কাল না হোক, কোনও এক নতুন ভোরে। উই আর হোপফুল। ফেসবুক থেকে

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত