প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভ্যাকসিন বঙ্গভ্যাক্স: সম্ভাবনা এবং চ্যালেঞ্জ

আব্দুল্লাহ মামুন: চ্যানেল এটিভি কানাডা থেকে আয়োজিত ড. গুলশান আখতারের উপস্থাপনায় এক টকশোতে গ্লোব বায়োটেকের ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট বঙ্গভ্যাক্স এর অগ্রগতি, ভবিষ্যৎ সম্ভাবনা আর চ্যালেঞ্জ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। ভ্যাকসিনটি উদ্ভাবন প্রক্রিয়ায় এক্ষণে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরুর জন্যে এথিক্যাল কমিটির অনুমোদনের অপেক্ষায়। বিশেষজ্ঞ প্যানেলে আলোচকরা ছিলেন গ্লোব বায়োটেকের আরএন্ডডি’র দায়িত্বপ্রাপ্ত ড. আসিফ মাহমুদ, রেগুলেটরি প্রধান ড. মহিউদ্দিন, যুক্তরাজ্যের শেফিল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র রিসার্চ সহযোগী ড. খন্দকার মেহেদি আকরাম, কানাডা থেকে অনুজীব বিজ্ঞানী এবং বহুজাতিক বায়োটেক কর্পোরেটের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর ড. শোয়েব সাঈদ।

অনুজীব বিজ্ঞানী এবং কলামিস্ট ড. শোয়েব সাঈদ বলেন, কোভিড একেবারে নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত ভ্যাকসিনের উপর আমাদের নির্ভর করতেই হবে। কোভেক্স থেকে প্রতিশ্রুতি আর সেরাম থেকে কেনা ভ্যাকসিন দিয়ে বয়স ২০ বছরের উপর জনসংখ্যার মাত্র ৪০ শতাংশ এর দুই ডোজের চাহিদার মেটানোর পর বাকি জনসংখ্যার জন্যে প্রয়োজন কোটি কোটি ডোজের। তাছাড়া এন্টিবডির কয়েক মাসের স্বল্পায়ু একটি দীর্ঘ সময় ধরে ভ্যাকসিনের বিপুল চাহিদার উপর আমাদের নির্ভর করে রাখবে। এরকম অবস্থায় বঙ্গভ্যাক্সের মতো দেশি ভ্যাকসিন আমাদের জন্যে আশীর্বাদ হয়ে আসবার সম্ভাবনাটুকুকে বাস্তবে পরিণত করতে খুব জরুরি ভিত্তিতে সরকার সহ সংশ্লিষ্ট সকলের দায়িত্বটুকু অনতিবিলম্বে পালন করা উচিত। ড. শোয়েব সংরক্ষণ তাপমাত্রা সহ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল, উৎপাদন এবং অনুমোদনে রিয়েল টাইম চ্যালেঞ্জের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে সতর্ক করে বলেন সময় গেলে সাধন হবে না।

ড. খন্দকার মেহেদি আকরাম বঙ্গভ্যাক্স ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের কারিগরি বিষয় নিয়ে কথা বলেন। ডেটা প্রকাশে আরো সংহত পদ্ধতির উপর গুরুত্ব আরোপ করেন। কর্তা ব্যক্তিদের বৈজ্ঞানিক তথ্য উপাত্তের ইন্টেগ্রিটি মেনে কথা বলার উপর জোর দেন। তিনি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ইথিক্যাল কমিটির অনুমোদনে দীর্ঘ সময় লাগার বিষয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন। আশংকা প্রকাশ করেন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে বিলম্ব হলে প্রয়োজনীয় সাবজেক্ট পেতে সমস্যা হবে। ড. আকরাম বঙ্গভ্যাক্স উৎপাদনে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞদের প্রথম থেকেই জড়িত করা উচিত ছিল বলে মনে করেন বিষয়টির গুরুত্বটুকু বুঝানোর জন্যে। গ্লোব বায়োটেক বঙ্গভ্যাক্সের বিষয়ে বায়োআর্কাইভে উন্মুক্ত রিভিউয়ের জন্যে উপস্থাপনের পর কোনো ভালো জার্নালে পিয়ার রিভিউ পাবলিকেশন করার উচিত ছিল বলে মতামত দেন।

গেøাব বায়োটেকের রেগুলেটরি প্রধান ড. মহিউদ্দিন বঙ্গভ্যাক্সের উদ্ভাবন নিয়ে বিস্তারিত অবহিত করেন। তিনি বলেন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ইথিক্যাল অনুমোদনের জন্য গ্লোব বায়োটেক অনুমোদন কর্তৃপক্ষের শ’খানের প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দিয়ে এখন অপেক্ষায় আছেন অনুমোদনের। অনুমোদন প্রক্রিয়া বিলম্ব হলে ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে নেতিবাচক প্রভাবে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। গ্লোব বায়োটেক আরএন্ডডি’র ড. আসিফ মাহমুদ বঙ্গভ্যাক্সে উদ্ভাবনের কারিগরি বিষয়ে বিস্তারিত বলেন এবং নতুন ভ্যারিয়েন্টগুলোর বিরুদ্ধে কমব্যাট করার বিষয়ে তাদের কৌশল বিষয়ে আশ্বস্ত করেন। ড. আসিফ বঙ্গভ্যাক্সের সংরক্ষণ তাপমাত্রা ২-৮ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেডে একমাস পর্যন্ত আর মাইনাস ২০ ডিগ্রী সেন্ট্রিগ্রেডে ৬ মাস পর্যন্ত বলে উল্ল্যেখ করেন। বাংলাদেশের বর্তমান টিকা অবকাঠামোতে সংরক্ষণ আর বিতরণে সমস্যা হবে না বলে আশ্বস্ত করেন। তিনি বঙ্গভ্যাক্স উদ্ভাবনে দীর্ঘ পথ পাড়ি দেবার বিষয়ে অন্যান্য আলোচকদের সাথে ঐক্যমত পোষণ করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত