প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মিয়ানমারের সামরিক টেলিভিশনের দাবি পরিস্থিতি স্বাভাবিক, কিন্তু আতঙ্কে বন্দী আইনপ্রণেতারা

আসিফুজ্জামান পৃথিল: [৩] আর্মি ফেটিক পরা সেনারা ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় নিয়মিত টহল দিচ্ছেন। দেশটিতে শুধুমাত্র সেনাবাহিনীর মালিকানাধীন মায়াবতী টিভি চালু আছে। আর সব টেলিভিশন চ্যানেল বন্ধ রয়েছে। সিএনএন

[৪] দেশটির নির্বাচিত সকল পার্লামেন্ট সদস্যকে আটক করা হয়েছে। দেশটি থেকে সেন্সরশিপের কারণে খুব বেশি তথ্য বাইরে না আসলেও জানা যাচ্ছে, তাদেরকে একটি খোলা কারাগারে রাখা হয়েছে। সরকারি টিভিটি অবশ্য বলছে, সব পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। কিন্তু এখনও বাজারগুলোতে দেখা দিয়েছে খাদ্য সঙ্কট। আল জাজিরা

[৫] নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন এমপি বলেন, আমাদেরকে উদ্বিগ্ন না হতে বলা হয়েছে। কিন্তু আমরা উদ্বিগ্ন। সুচি ও উইন মিন্টকে গৃহবন্দী করা হয়েছে। আমরা যদি তাদের ছবি দেখতে পারতাম তাহলে স্বস্তি পেতাম। এএফপি

[৬] সোমবারের সেনা অভ্যুত্থানের পর মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত মিয়ানমারে বড় ধরনের কোনও বিক্ষোভ হয়নি। সকালে এক ট্যাক্সিচালক এএফপিকে বলেন, ‘আমরা বিক্ষোভ করতে চাই। কিন্তু আমাদের মা তাদের হাতে। আমরা খুব বেশি কিছু করতে পারি না।’

[৭] ২০১১ সালে ৪৯ বছরের সেনাশাসন থেকে মুক্ত হয় মিয়ানমার। গত বছরের নভেম্বরে মিয়ানমারে দ্বিতীয় দফা গণতান্ত্রিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এনএলডি এতে ৮০ শতাংশেরও বেশি ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়। তবে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। তাদের দাবি, তাদের কাছে এক কোটিরও বেশি কারচুপির ঘটনার প্রমাণ রয়েছে। মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল আগে থেকেই। সুচি তাই অভ্যুত্থানের আগেই চিঠি লিখে রেখেছেন। আটকের আগে সু চির লেখা একটি চিঠি তাঁর দলের চেয়ারপারসন ফেসবুকে পোস্ট করেন। তাতে অভ্যুত্থান মেনে না নিতে জনগণের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত