প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সৌদিআরব ও আমিরাতের কাছে অস্ত্র বিক্রি সাময়িকভাবে স্থগিত করেছে বাইডেন প্রশাসন

লিহান লিমা: [২] সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে যে অস্ত্র চুক্তি করেছিলেন তা পর্যালোচনা করছে বাইডেন প্রশাসন। নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন জানিয়েছেন, ‘এটা রুটিন প্রশাসনিক সিদ্ধান্ত। নতুন প্রশাসন এসে আগের প্রশাসনের অস্ত্র বিক্রির সিদ্ধান্ত খতিয়ে দেখে। আমাদের পররাষ্ট্রনীতি কৌশল ঠিক করতে এই পর্যালোচনাগুলো করা প্রয়োজন।’

[৩]ট্রাম্প তার পররাষ্ট্রনীতিতে, ইসরায়েলকে সর্বোচ্চ সমর্থন দিতে ও ইরানকে প্রবল চাপে রাখতে সৌদিআরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রেখেছিলেন।

[৪]গত বছরের ডিসেম্বরে সৌদিতে ২৯ কোটি ডলারের ছোট অস্ত্র বিক্রির অনুমোদন দেয়া হয়। বাইডেন তখন সৌদির কাছে অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করার আবেদন জানিয়ে বলেছিলেন, এই অস্ত্র ইয়েমেনে ইরান সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীদের দমন করার কাজে ব্যবহার করা হবে।

[৫]নভেম্বরে আমিরাতের কাছে এফ-থার্টি ফাইভ ফাইটার জেট ও ড্রোনসহ বিভিন্ন উন্নত অস্ত্র বিক্রির জন্য দুই হাজার ৩০০ কোটি ডলারের চুক্তিতে অনুমোদন দেয় ট্রাম্প প্রশাসন। আমিরাত ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে সম্মত হওয়ার পরপরই অস্ত্র বিক্রির এই ঘোষণা আসে। রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেট দুই দলেরই আইনপ্রণেতারাই এই চুক্তির তীব্র নিন্দা জানান। মানবাধিকার সংস্থাগুলো চুক্তির সমালোচনা করে বলেছিলো, এ ধরনের চুক্তি মধ্যপ্রাচ্যের আঞ্চলিক বিরোধকে উৎসাহিত করতে পারে।

[৬] এর আগে ২০১৯ সালের মে মাসে ইরানের সঙ্গে উত্তেজনার প্রেক্ষিতে ট্রাম্প জাতীয় জরুরি অবস্থা জরি করে কংগ্রেসের আপত্তি অগ্রাহ্য করে সৌদি, আমিরাত ও জর্ডানের কাছে আটশ কোটি ডলার অস্ত্র বিক্রির উদ্যোগ নেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত