প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] চট্টগ্রাম-সেন্টমার্টিন রুটে দেশের প্রথম প্রমোদতরী এমভি বে ওয়ান

সুজিৎ নন্দী: [২] চট্টগ্রাম থেকে সেন্টমর্টিন রুটে সরাসরি চালু হয়েছে পর্যটকবাহী বিলাসবহুল প্রমোদতরী এমভি বে ওয়ান। জাহাজটি চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা এলাকার ওয়াটার বাস টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে সেন্টমার্টিনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছে।

[৩] জাপানের কোবে শহরের মিতসুবিশি হেভি ইন্ডাস্ট্রিজে তৈরি করা বিলাসবহুল প্রমোদতরী বে ওয়ান বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক ক্রুজ শিপ। এর আগে বাংলাদেশে আন্তর্জাতিকমানের আর কোনও জাহাজ চলাচল করেনি। কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম এ রশিদ এ তথ্য জানান।

[৪] তিনি জানান, সারা বিশ্বে আন্তর্জাতিক ক্রুজ শিপ আছে ৩১৪টি। বে ওয়ান তার একটি। ৪৫০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ৫৫ ফুট প্রস্থের এই ক্রুজ শিপটির উত্তাল সমুদ্র মোকাবিলার সক্ষমতা আছে। জাহাজের দুইপাশে দুটি বড় ফ্যান আছে। সমুদ্রে ঝড়ো হাওয়া শুরু হলে দুইপাশে এগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে বের হয়ে আসবে। তখন জাহাজটি স্থির হয়ে থাকবে।

[৫] তিনি আরও বলেন, প্রাথমিকভাবে সপ্তাহের প্রতি বৃহস্পতি, শুক্রবার ও শনিবার রাত ১১ টায় চট্টগ্রামের পতেঙ্গা ওয়াটার বাস টার্মিনাল থেকে জাহাজটি ছাড়বে এবং সকাল ৭টায় এটি সেন্টমার্টিন পৌঁছাবে। আবার সেন্টমার্টিন থেকে শুক্র, শনি ও রবিবার দুপুর একটায় ফিরতি যাত্রী নিয়ে সেন্টমার্টিন থেকে ছাড়ছে। সন্ধ্যা ৭ টায় জাহাজটি চট্টগ্রামে আসছে।

[৬] দুই হাজার যাত্রী পরিবহনে সক্ষম এ জাহাজটিতে প্রাথমিকভাবে ৫শ’ থেকে ১ হাজার যাত্রী প্রত্যাশা করছেন কর্ণফুলী শিপ বিল্ডার্স। এম এ রশিদ বলেন, জাহাজটি দুই হাজার যাত্রী পরিবহনে সক্ষম। যাত্রী যদি না পাওয়া যায় সেই ক্ষেত্রে আমরা অনেক লোকসানের মুখোমুখি হবো।

[৭] শীতকালীন সময়ে সেন্টমার্টিন রুটে চলাচল করলেও অন্য সময়ে যেন জাহাজটিকে বসিয়ে রাখতে না হয় সেজন্য আমরা নতুন রুট তৈরির ব্যাপারে সরকারের কাছে প্রস্তাব দিয়েছি। জাহাজটি আন্তর্জাতিক রুটে চলাচল করতে সক্ষম। তাই সরকার যদি চায় হজকালীন সময়ে আমরা এটিকে সৌদি আরব রুটে চলাচল করাতে পারবো। এ ছাড়া মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর রুটেও চলাচল করতে পারবে।

[৮] সেন্টমার্টিনগামী পর্যটকদের জন্য সর্বনিন্ম আসা-যাওয়া ৩ হাজার টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত একাধিক প্যাকেজ ঘোষণা করেছে এমভি বে ওয়ানের পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ফিরতি ভাড়া ও রাত্রিযাপনসহ ভিভিআইপি প্যাকেজের আওতায় ২ জনের ভিভিআইপি কেবিনের ভাড়া পড়বে ৫০ হাজার টাকা। ফ্যামিলি প্যাকেজের আওতায় ৪ জনের স্পেশাল ক্লাশ বাংকারের ভাড়া পড়বে ৫০ হাজার টাকা। রয়্যাল প্যাকেজের আওতায় ২ জনের রয়্যাল স্যুটের ভাড়া পড়বে ৪৫ হাজার টাকা। প্রেসিডেন্সিয়াল প্যাকেজের আওতায় ২ জনের প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটের ভাড়া পড়বে ৩০ হাজার টাকা। বাঙ্কার বেড প্যাকেজের আওতায় ১ জনের বাঙ্কার বেডের ভাড়া পড়বে ১০ হাজার টাকা। এছাড়া ইকোনমি প্যাকেজের আওতায় ইকোনমি সিটের ভাড়া পড়বে জনপ্রতি ৩ হাজার টাকা, অন্যদিকে, বিজনেস ক্লাশ সিটের জনপ্রতি ৪ হাজার টাকা।

[৯] একমুখী ভাড়া ও রাত্রিযাপনসহ ভিভিআইপি কেবিনে ২ জনের ভাড়া পড়বে ২৫ হাজার টাকা। ফ্যামিলি প্যাকেজে একমুখী স্পেশাল ফার্স্ট ক্লাশ বাঙ্কার বেডের ভাড়া হবে ২৫ হাজার টাকা। একমুখী অন্য প্যাকেজগুলোর মধ্যে রয়্যাল প্যাকেজে ২ জনের রয়্যাল স্যুটের ভাড়া পড়বে ২০ হাজার টাকা, প্রেসিডেন্সিয়াল প্যাকেজের আওতায় ২ জনের প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটের ভাড়া পড়বে ১৫ হাজার টাকা, ১ জনের সিঙ্গেল বাঙ্কার বেডের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ৭ হাজার টাকা। এছাড়াও যাওয়া বা আসার জন্য বিজনেস ক্লাসে সিট ভাড়া আড়াই হাজার টাকা ও ইকোনমি ক্লাসে সিট ভাড়া ২ হাজার টাকা নির্ধারণ করেছে কর্তৃপক্ষ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত