প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ফের রক্ত ঝরলো চসিক নির্বাচনী প্রচারণায়, ৬ জন মেডিকেলে ভর্তি

রাজু চৌধুরী: [১]  চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনী প্রচারণাকে কেন্দ্র করে ফের তৃণমূলে রক্ত ঝরল। এবার নগরীর লালখান বাজার নামটিও যুক্ত হলো পাঠানটুলি, বাকলিয়া, চকবাজার, চান্দগাঁও ও মোহরার পাশে। নৌকার প্রার্থী রেজাউল করিমের প্রচারণায় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে আহত হয়েছেন ৬ জন। আহতদের সবাইকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

[২] শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে নগরীর টাইগারপাস বটতল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, (শনিবার) বিকেল সাড়ে ৫টায় লালখান বাজার এলাকায় আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিমের গণসংযোগ হওয়ার কথা ছিলো। এতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মাইনুদ্দিন হাসান চৌধুরী, নগর আওয়ামী লীগের যু্গ্ম সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন আলম, লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমেদ যোগ দেওয়ার কথা। অতিথিরা আসার আগে লালখান বাজার ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসনাত মো. বেলাল ও লালখান বাজার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুমের অনুসারীরা জমায়েত হতে শুরু করেন। দুই পক্ষ মুখোমুখি হওয়ায় ঘটনাস্থলে উত্তেজনা বেড়ে যায়। পরবর্তীতে দুই পক্ষই একে অপরকে পাথর নিক্ষেপে করে সংঘর্ষে জড়ায়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক আমির বলেন, ‘লালখান বাজার এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় সংঘর্ষ হয়েছে। এরমধ্যে ৬ জন আহত হয়েছে। তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তারা বর্তমানে ক্যাজুয়ালিটি ইউনিটে ভর্তি আছেন।এ সংঘর্ষ নিয়ে লালখান বাজার ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের কাউন্সিলর প্রার্থী আবুল হাসনাত মো. বেলাল বলেন, দিদারুল আলম মাসুম কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ার পর থেকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের উপর হামলা করছে। মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিমের প্রচারণা উপলক্ষে আমাদের কর্মীরা জমায়েত হলে মাসুমের অনুসারীরা আমাদের ওপর হামলা করে। এতে আমাদের কর্মী মোজাম্মেল হোসেন সোহাগ, মাহমুদ ও শাহীন আহত হন। তাদের চমেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর দিকে হামলার বিষয়টি অস্বীকার করে আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুম বলেন, মেয়র প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায় আমাদের কর্মীরা জমায়েত হওয়ার পর বেলাল গ্রুপের লোকজন আমাদের পেছন থেকে অতর্কিত হামলা করেছে। এতে আমাদের কর্মী আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি হয়েছে। খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহীনুজ্জামান বলেন, ‘বেলাল আর মাসুম গ্রুপের মধ্যে ঝামেলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। আহতদের হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক। দুই গ্রুপের সংঘর্ষের কারণে মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী লালখানবাজারে তার পূর্বনির্ধারিত শিডিউল বাতিল করে ফিরে আসেন বলে জানা যায়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত