প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পাসপোর্টের মাধ্যমে আবারও ই-টিআইএন দেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড

সোহেল রহমান: [২] পাসপোর্টের মাধ্যমে আবারও ‘ইলেকট্রনিক কর শনাক্তকরণ নাম্বার’ (ই-টিআইএন) প্রদানের সেবা চালু করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

[৩] এনবিআর-এর ই-টিআইএন সিস্টেমে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) ও পাসপোর্টের তথ্য ব্যবহার করে ই-–টিআইএন নেয়ার সুযোগ ইতোপূর্বে ছিল।

[৪] কিন্তু এক ব্যক্তি কর্তৃক একাধিক টিআইএন নেয়ায় বছরখানেক আগে এই সুযোগ বন্ধ করে দেয়া হয় এবং শুধু জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে ই-টিআইএন নেয়ার ব্যবস্থাটি চালু রাখা হয়। [৫] কিন্তু প্রবাসীদের কথা বিবেচনা করে এখন আবার পাসপোর্টের মাধ্যমে ই-টিআইএন গ্রহণের সুযোগ দেয়া হয়েছে।

[৬] সম্প্রতি এনবিআর থেকে জারিকৃত এ-সংক্রান্ত এক আদেশে বলা হয়েছে, পাসপোর্ট ও এনআইডি’র তথ্য দিয়ে ই-–টিআইএন নেয়ার সুযোগ থাকায় অনেকে একাধিক টিআইএন নিয়েছেন। এতে জালিয়াতির সুযোগ তৈরি হয়। এ পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর পাসপোর্টের মাধ্যমে টিআইএন নেয়ার সুযোগ স্থগিত করা হয়। এরপর থেকে শুধু এনআইডি দিয়েই টিআইএন নেয়া যেত। কিন্তু প্রবাসী বাংলাদেশিদের অনেকের এনআইডি না থাকায় তারা টিআইএন নিতে পারছিলেন না। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর আবার পাসপোর্টের তথ্য দিয়ে টিআইএন নেয়ার সুযোগ দিয়েছে।

[৭] প্রসঙ্গত: বর্তমানে বাড়ি, গাড়ি ও জমি নিবন্ধন, বিদ্যুৎ-সংযোগ ও ক্রেডিট কার্ড প্রাপ্তি এবং জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়াসহ বিভিন্ন কাজে টিআইএন থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এনবিআর সূত্রমতে, কর ফাঁকি দিতে অনেকে পাসপোর্টের মাধ্যমে একটি এবং এনআইডি’র মাধ্যমে আরেকটি টিআইএন নিয়ে থাকেন।

[৮] এনবিআর সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে দেশে মোট ৫২ লাখ ৭২ হাজার টিআইএনধারী আছেন। তাদের মধ্যে প্রতিবছর গড়ে ২০-২২ লাখ টিআইএনধারী আয়-ব্যয়ের হিসাব দিয়ে এনবিআরে রিটার্ন জমা দেন। বাকিরা রিটার্ন জমা দেন না। তবে শুধু ক্রেডিট কার্ড নেয়া, জমি বেচাসহ কিছু কাজে টিআইএন নিলেই রিটার্ন জমা দেয়া বাধ্যতামূলক নয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত