প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দীপু তৌহিদুল: ধর্ষণবিরোধী আন্দোলন এবং আমাদের শিল্প-সংস্কৃতি

দীপু তৌহিদুল: ছেলেটার করোনায় শ্বাস কষ্ট হচ্ছে তাই হাসপাতালে অক্সিজেন না পাওয়ায় একজন মেয়ে এসে রাস্তাতেই নেমে অক্সিজেনটা দিয়ে যাচ্ছেন, মানবতা আজও বেঁচে আছে। ছেলেটার একটা বেল্ট হয়তো কোনো এককালে ছিলো। আপনারা সবাই নেগেটিভলি নিচ্ছেন কেন বিষয়টা। আসলে এই ছবিতে দেখানো হচ্ছে যে, একজন কমরেড ধর্ষণবিরোধী স্লোগান দিতে দিতে যখন তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। তখন আরেকজন কমরেড এভাবেই এগিয়ে এসে মাউথ টু মাউথ রেসপিরেশন ব্রেথিং এ সহায়তা করে। এছাড়া এতে করোনার কোনো ঝুঁকি নেই যেহেতু বোনটি নিজেও মাস্ক পরে আছেন। শাহবাগ সব সময় দুর্দান্ত। ছবিতে চুমুর পেছন দৃশ্য দেখে ভাবছি, হিজাব পরিহিতা ও চাচা মিয়ার মনের অবস্থা তখন কী হয়েছিলো। উনারা কী সত্যি সত্যি নাউজুবিল্লাহ নাউজুবিল্লাহ করছিলেন, নাকি সেটা ঘটনায় ভুলে গেছেন। দেখে মনে হচ্ছে মোটরসাইকেলওয়ালা নাউজুবিল্লাটাও ভুলে গেছে।

বাংলাদেশে এখনো প্রকাশ্য চুমুর ব্যাপারটা আইনত সিদ্ধ বলে শুনিনি। যদি আইনত সিদ্ধ হয় তাহলে কোনো কথা নেই। এই দেশে পার্কে ঘুরলেই প্রেমিক প্রেমিকারে হ্যারাস হতে হয় বলেই জানি, আমি এই আচরণটার বিপক্ষে। প্রেম হবে একটা উদ্দাম কিন্তু সেটা প্রকাশ্য নয়, কারণ দেশের কালচার ওটাকে পারমিট করে না। বাংলা ছবিতে ববিতা ও জাফর ইকবাল বা রাজ্জাক ও বিবিতার চুমুর দৃশ্য ছিলো, যা হয়তো ফ্র্যাকশন অব সেকেন্ড ডিউরেশনের ছিলো। তা নিয়ে এতোই সমালোচনা হলো যে, শেষ পর্যন্ত পত্রিকাতে প্রতিবেদন পর্যন্ত প্রকাশিত হয়েছিলো। এরপর ওই চুমুরা হয়ে গেল পান্তাভাত। ডিপজল, ময়ূরী, মুন, অ্যারেনায় এসে ছবির কিছু অংশ সিঙ্গেল ‘এক্স’ কেও ছাড়িয়ে গেল।

একটা রাষ্ট্রের কিছু ভিন্ন সংস্কৃতি থাকে, আর সেটার ওপর রাষ্ট্রের মরাল দাঁড়িয়ে থাকে। বাংলাদেশ ইউরোপ আমেরিকা নয়, তাই চাইলে আপনি তাদের সংস্কৃতি এখানে প্রয়োগ করে ফেলতে পারবেন। বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রগুলোর ভালো কোনো দিকই রপ্ত করেনি। কিন্তু তাদের আবেগ প্রকাশটা ধরতে খুব চেষ্টা করে যাচ্ছে। প্রকাশ্য রাস্তায় করা কোনো অপরাধমূলক বা অনৈতিক কর্মকান্ডকে কেউ আইন অনুযায়ী ব্যক্তিগত বলতে পারবেন না। দেশের আইন এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের মূল্যবোধ বিরোধী কর্মকাণ্ড পৃথিবীর সবদেশে অশ্লীল ও অসভ্যতা বলে বিবেচিত। দুইদিক দিয়েই এদের কাজ অপরাধ। পোস্ট আঠারোর নিচে কেউ দেখবেন না। নিজের প্রথা ভেঙ্গে পোস্ট করলাম। পোস্ট বক্তব্যর কিছু অংশ সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়া হতে গ্রহণ করা। ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত