প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] হাসপাতাল ছাড়লেন ট্রাম্প, শিগগিরই নির্বাচনী প্রচারণায় ফেরার আশাবাদ (ভিডিও)

সালেহ্ বিপ্লব: [২] নভেল করোনাভাইরাস নিয়ে অনেক রকম কথা বলেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট, ভ্যাকসিন নিয়েও। কোভিড সম্পর্কে তার মতামত এক পর্যায়ে যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. ফাউচির সঙ্গে মতবিরোধকে স্পষ্ট করে তোলে। বিবিসি, সিএনএন, গার্ডিয়ান, স্পুটনিক, এপি

[৩] এখানেই শেষ নয়, মাস্ক না পরেও সারাবিশ্বের মনোযোগ কাড়েন ট্রাম্প। অবশ্য পরে তাকে মাস্ক পরতে দেখা যায়।

[৪] জো বাইডেনের সঙ্গে প্রথম নির্বাচনী বিতর্কে অংশ নেয়ার পর পরই জানা যায়, ট্রাম্প ও তার স্ত্রী মেলানিয়া কোভিড পজিটিভ। দ্রুত তাকে নিয়ে যাওয়া হয় ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি মেডিকেল সেন্টারে। সেখানকার ডাক্তাররা তার চিকিৎসার জন্য ৫ দিনের কোর্স নির্ধারণ করেন। হাসপাতালে যাবার আগে এক ভিডিওতে ট্রাম্প তার ভক্তসমর্থক ও দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানান।

[৫] সশস্ত্র বাহিনী পরিচালিত হাসপাতালে থাকাকালীন ট্রাম্পের রক্তে অক্সিজেন লেভেল কমে গিয়েছিলো। সে কারণে দুই দিন অক্সিজেন দেয়ার পাশাপাশি ডেক্সামেথাসন দেয়া হয়েছে। এর আগে রেমিডিসিভির ও থেরাপি দেয়া হয়।

[৬] ভেতরে যখন চিকিৎসা চলছে, বাইরে তখন নানা গুঞ্জন। ট্রাম্প কবে কোভিডে আক্রান্ত হয়েছিলেন, সে প্রশ্ন ওঠে। এর মধ্যে তিনি অসুখ লুকিয়ে রেখে আর কাকে কাকে সংক্রমিত করেছেন, সে হিসেবনিকেশের কথাও এসেছে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

[৭] সবচেয়ে বড়ো দ্বিধাদ্বন্দ্ব তৈরি হয় ট্রাম্পের শারীরিক অবস্থা নিয়ে হোয়াইট হাউস ও হাসপাতালের বিপরীতমুখী বক্তব্য নিয়ে। গণমাধ্যম যখন হোয়াইট হাউসের বরাত দিয়ে বলছিলো, প্রেসিডেন্টের অবস্থা গুরুতর, তখন হাসপাতাল থেকে বলা হয়েছে, তিনি ভালো আছেন।

[৮] অন্যদিকে, কথা ওঠে, আদৌ তিনি ৩ নভেম্বরের নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন কি না। তার ক্যাম্পেইন ম্যানেজারও কোভিড পজিটিভ হলে প্রচার-প্রচারণা সাময়িক স্থগিত রাখা হয়। গুজব এতোটই জোরালো হয়ে ওঠে, হোয়াইট হাউস বাধ্য হয় ঘোষণা দিতে, হাসপাতালে যাওয়ার আগে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করে যাননি ট্রাম্প।

[৯] এতোকিছু ঘটে যাওয়ায় ডোনাল্ড ট্রাম্পেরও যেন টনক নড়ে। তিনি নিজের হালহকিকত দেশ ও বিশ্ববাসীকে জানানোর জন্যে টুইটারে হাজির হন ভিডিও নিয়ে। জানান, তিনি ভালো আছেন। অফিসের কাজকর্ম করছেন হাসপাতাল থেকে। খুব দ্রুত ফিরে আ্সার ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, আমাকে ফিরতেই হবে। কারণ প্রিয় দেশকে মহান হিসেবে আবারও প্রতিষ্ঠার কাজ বাকি রয়ে গেছে।

[১০] এর পরদিন আবার বিতর্কের সূচনা করেন ট্রাম্প। হাসপাতাল থেকে কিছুক্ষণের জন্য বের হন গাড়িবহর নিয়ে। রাস্তায় সমবেত ভক্ত-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে হাত নাড়েন। তার এই কাজের কারণে তার সহচররা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হবেন, সে প্রশ্ন ওঠে।

[১১] ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি সেন্টারের ডাক্তার ফিলিপ বলেন, প্রেসিডেন্টের এভাবে বাইরে যাওয়াটা রাজনৈতিক নাটক ছাড়া আর কিছু নয়। তার সঙ্গে থাকা প্রত্যেককে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে যেতে হবে।

[১২] ট্রাম্প হাসপাতাল ছাড়ার আগে তার অবস্থা সম্পর্কে ব্রিফ করেন সেন্টারের ডাক্তাররা। তারা জানান, প্রেসিডেন্ট ভালো আছেন, তবে পুরোপুরি সুস্থ নন। তাকে রিলিজ করার আগে আরও এক ডোজ রেমডিসিভির দেয়া হবে। হোয়াইট হাউসের ডাক্তাররা জানিয়েছেন, বাড়িতে থেকে কোভিড চিকিৎসা নেবেন প্রেসিডেন্ট।

[১৩] যুক্তরাষ্ট্র সময় সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় (বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার ভোর সাড়ে চারটা) হাসপাতাল থেকে বের হবেন, ডাক্তারদের ব্রিফিং-এর আগেই টুইট করে জানিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট।

[১৪] টুইটে তিনি নিজের ভালো থাকার কথা জানান। কোভিডকে ভয় না করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এই অসুখকে আপনাদের ওপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে দেবেন না। আমরা খুব চমৎকার প্রতিষেধক তৈরি করেছি, এ বিষয়ক জ্ঞানও অর্জন করেছি। তিনি বলেন, বলেন, ২০ বছর আগে যেমন ছিলাম, তার চেয়েও ভালো আছি।

[১৫] তিনি খুব শিগগিরই নির্বাচনী প্রচারকাজে ফিরে আসবেন বলে জানান।

[১৬] স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ৪০ মিনিটে তিনি হাসপাতাল থেকে বের হয়ে গাড়িতে ওঠেন, তার আগে উপস্থিত সবাইকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে বুঝিয়ে দেন, সব ঠিক আছে। গাড়িতে করে কয়েক মিনিটে পৌঁছে যান হেলিপ্যাডে, যেখানে অপেক্ষমান ছিলো হেলিকপ্টার মেরিন ওয়ান। সন্ধ্যা ৬টা ৪৬ মিনিটে প্রেসিডেন্টকে নিয়ে মেরিল্যান্ডের ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মিলিটারি সেন্টার থেকে মেরিন ওয়ান হোয়াইট হাউসের উদ্দেশ্যে উড়াল দেয়। ৬টা ৫৫মিনিটে হেলিকপ্টারটি হোয়াইট হাউসে অবতরণ করে।

[১৭] মেরিন ওয়ান থেকে নেমে হোয়াইট হাউসের ব্যালকনিতে দাঁড়ান ট্রাম্প। প্রথমেই মাস্ক খুলে ফেলেন। দুহতে থাম্বস আপ জানান দেন, সব ঠিক আছে। এরপর ফটোসাংবাদিকদের জন্যেই সালাম জানান সামরিক কায়দায়।  ভেতরে ঢোকার আগে আবারও ডান হাতে থাম্বস আপ দেখিয়ে আশ্বস্ত করেন উপস্থিত অফিশিয়াল ও সাংবাদিকদের।

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত